শুক্রবার ২২ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭, ০৫ জুন ২০২০ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা
সর্বশেষ

করোনা ভাইরাস নিয়ন্ত্রণে যেভাবে সফল হল দক্ষিণ কোরিয়া

করোনা ভাইরাস নিয়ন্ত্রণে যেভাবে সফল হল দক্ষিণ কোরিয়া

অনলাইন ডেস্ক ॥ প্রাণঘাতী রহস্যময় করোনা ভাইরাসটিকে নিয়ন্ত্রণে জরুরি ভিত্তিতে পরিচালিত মহড়া পরীক্ষা এক মাসেরও কম সময়ের পর এসে ছড়িয়ে পড়া নভেল করোনা ভাইরাস ঠেকানোর হাতিয়ার তৈরিতে দক্ষিণ কোরিয়াকে সহায়তা করেছিল।

ওই মহড়া সংশ্লিষ্ট এক বিশেষজ্ঞ ও সরকারি এক গোপন নথির ভিত্তিতে প্রকাশিত বার্তা সংস্থা রয়টার্সের প্রতিবেদনে একথা জানানো হয়েছে।

ওই নথিতে দেখা যায়, গত ১৭ ডিসেম্বর দক্ষিণ কোরিয়ার সংক্রামক ব্যাধি বিষয়ে দুই ডজন শীর্ষ বিশেষজ্ঞ একটি উদ্বেগজনক পরিস্থিতি সামাল দেন। চীন ভ্রমণ করে আসা এক দক্ষিণ কোরীয় পরিবারের মধ্যে নিউমোনিয়ার দেখা পান তারা। ততোদিনে চীনে ছড়িয়ে পড়েছে অজ্ঞাত এক রোগ।

নতুন ধরনের করোনা ভাইরাস হিসেবে কল্পনা করে নেওয়া রোগটি দ্রুতই পরিবারের সদস্য ও তাদের সংস্পর্শে আসা স্বাস্থ্যকর্মীদের মধ্যে ছড়িয়ে পড়ে। পরিস্থিতি মোকাবেলায় দক্ষিণ কোরিয়ার রোগ নিয়ন্ত্রণ ও প্রতিরোধ কেন্দ্র (কেসিডিসি) রোগটির জীবনশক্তি ও উৎপত্তি খুঁজতে অ্যালগরিদমের পাশাপাশি দ্রুত পরীক্ষার কৌশলও তৈরি করে ফেলেন।

গোপন ওই নথি অনুসারে, ২০ জানুয়ারি দক্ষিণ কোরিয়ায় প্রথম নভেল করোনা ভাইরাসের সন্দেহভাজন রোগী দেখা দিলে তখনকার মহড়া থেকে পাওয়া ওই ব্যবস্থা প্রয়োগ করা হয়।

মহড়া পরিচালনাকারী কেসিডিসির অন্যতম বিশেষজ্ঞ লি স্যাং অন বলেন, "গত ২০ বছরের দিকে তাকালে দেখা যায়, মানুষের জীবন ইনফ্লুয়েঞ্জা অথবা করোনা ভাইরাসের আক্রমণে বিপর্যস্ত ছিল। আমরা তা ভালোভাবেই মোকাবেলায় করেছি। কিন্তু নতুন ধরনের একটি করোনা ভাইরাস ছড়িয়ে পড়ার বিষয়ে আমরা উদ্বিগ্ন ছিলাম।

“এটা (মহড়া কাজে লাগার বিষয়টি) ছিল একটা অন্ধ ভাগ্য... ওই পরিস্থিতিটি বাস্তবে রূপ নিতে দেখে আমরা হতবাক হয়ে পড়েছি। কিন্তু মহড়া থেকে পরীক্ষা পদ্ধতি ও রোগ শনাক্তের পদ্ধতিতে আমাদের অনেক সময় বাঁচিয়ে দিয়েছে।”

আগ্রাসী ও টেকসই পরীক্ষা পদ্ধতি ব্যবহার করে চীনের বাইরে এশিয়ার সবচেয়ে বড় করোনা ভাইরাস প্রাদুর্ভাবের গতি শ্লথ করতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছিল ওই মহড়া।

শুরুতে বড় আকারে ছড়িয়ে পড়ার পর কয়েক দিনের মধ্যেই দক্ষিণ কোরিয়া ব্যাপকভাবে পরীক্ষা শুরু করে। উপসর্গ না থাকলেও অন্যকে সংক্রমিত করতে পারেন এমন লোকদের পরীক্ষা করা, নিশ্চিত রোগীদের বিচ্ছিন্ন করে রাখা এবং তাদের সংস্পর্শে আসা ব্যক্তিদের শনাক্ত করার মত বিস্তৃত কর্মসূচি নিয়েছিল দেশটি।

বেশি একটা বিপর্যয় সৃষ্টির আগেই নভেল করোরা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব মোকাবেলায় দক্ষিণ কোরিয়ার নেওয়া কার্যকর পদক্ষেপ খুবই প্রশংসিত হয়। এ মহামারীতে নয় হাজার ৫৮৩ জন আক্রান্ত হয়েছেন, যাদের মধ্যে ১৫৮ জনের মৃত্যু হয়েছে। কিন্তু গত তিন সপ্তাহ ধরে সেখানে আক্রান্তের সংখ্যা ১০০ বা তার নিচে রয়েছে।

বিশেষজ্ঞ লি বলেন, ২০১৫ সালে মিডল ইস্ট রেসপিরেটরি সিনড্রোম (মার্স) ভাইরাস প্রতিরোধে ব্যাপক সমালোচনার মুখে পড়ার পর ২০১৮ সালে বৃহদাকারে ডিএনএ বিশ্লেষণ ক্ষমতা জোরদারে‘স্টাডি গ্রুপ’ হিসেবে কেসিডিসির অধীনে বিশেষজ্ঞ দলটি গঠন করে দক্ষিণ কোরিয়া।

“ওই মহড়ার পরপরই চীনের উহান শহরে করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব শুরু হয়। তখনই বিশেষজ্ঞ দলটি ধারণা করে, এটা বোধহয় নতুন করোনা ভাইরাস। এমনকি চীন এটার আনুষ্ঠানিক ঘোষণা দেওয়ার আগেই কেসিডিসি পরীক্ষার জন্য প্রস্তুত হয়ে যায়।”

নথিতে আরও দেখা যায়, চীন ভাইরাসটিকে শনাক্ত করার তিন দিন আগে ৪ জানুয়ারি কেসিডিসির বিশেষজ্ঞ দলটি পরীক্ষা পদ্ধতি আবিষ্কার করে ফেলে। ৯ জানুয়ারি তারা সন্দেহজনক ঘটনাগুলো পরীক্ষা করা শুরু করে। মার্চের প্রথম দিকে দক্ষিণ কোরিয়া দিনে ২০ হাজার নমুণা পরীক্ষা করতে পারত। তখন দেশটির পাঁচটি কোম্পানি একযোগে নিজেদের ব্যবহার ও রপ্তানির জন্য ব্যাপক আকারে টেস্টিং কিট তৈরি করছিল।

লি বলেন, “দেশে মাত্র কয়েকটি সংক্রমণের ঘটনা নিয়ে ওই সময় আমাদের প্রতিক্রিয়াটা হয়তো একটু বেশিই দেখানো হয়েছে। কিন্তু এটা যে আসলেই একটা মহামারীতে রূপ নিতে পারে, তার যথেষ্ট সম্ভাবনা ছিল।

"আমরা কি যথেষ্ট ভালো করেছি? আমি জানি না। কিন্তু ২০১৫ সালে আমরা যে পরিস্থিতির মধ্য দিয়ে গিয়েছিলাম, তা ফিরে আসুক আমরা চাই না।

শীর্ষ সংবাদ:
আঙ্গিনায় সবজি চাষ ॥ করোনা পরবর্তী সঙ্কট মোকাবেলায় পারিবারিক কৃষিতে জোর         করোনা থেকে মানুষকে রক্ষায় প্রাণপণ চেষ্টা করছি         বাজেটে দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণে রাখার কৌশল নেয়া হচ্ছে         করোনায় আরও ৩৫ জনের মৃত্যু, আক্রান্ত ২৪২৩         সংক্রমণের শুরুতেই ওষুধ দিলে করোনায় মৃত্যু শূন্য         বাংলামোটরে বাসচাপায় দুজন নিহত, চালক গ্রেফতার         করোনার কারণে আম রফতানি অনিশ্চিত         শব্দ দূষণের যন্ত্রণা থেকে আপাতত মুক্ত রাজধানীবাসী         সোশ্যাল মিডিয়ায় গুজব ছড়িয়ে মানুষকে বিভ্রান্ত করার চেষ্টা চলছেই         করোনা উপসর্গ নিয়ে রানা প্লাজার মালিকসহ ১২ জনের মৃত্যু         চট্টগ্রামে অক্সিজেন সিলিন্ডারের তীব্র সঙ্কট         ৫৫ শতাংশ সক্ষমতায় শতভাগ কর্মী রাখা সম্ভব নয়         স্পেনে করোনায় চারদিনে কেউ মরেনি ॥ নতুন মৃত্যুপুরী মেক্সিকো         আইএমএফের ঋণে রিজার্ভে নতুন রেকর্ড         অর্থনীতি একেবারে স্থবির অবস্থায়, তাই কিছু ক্ষেত্র উন্মুক্ত করেছি ॥ প্রধানমন্ত্রী         করোনা ভাইরাসে আরও ৩৫ জনের মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ২৪২৩         স্বাস্থ্যবিধির প্রতি উদাসীনতা করোনা সংকটকে আরও ঘনীভূত করবে ॥ সেতুমন্ত্রী         সরকারি চাকরীজীবিদের নমুনা সংগ্রহ-চিকিৎসা ফুলবাড়িয়া হাসপাতালে         ১৩ বছরের মধ্যে ডিএসইতে সর্বনিম্ন লেনদেন         জুন থেকে শুরু হবে শ্রমিক ছাঁটাই : ড. রুবানা হক        
//--BID Records