বৃহস্পতিবার ৭ মাঘ ১৪২৮, ২০ জানুয়ারী ২০২২ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা
সর্বশেষ

চট্টগ্রামে দেড় হাজার দুগ্ধ খামারি বিপাকে

  • করোনা আতঙ্কে দুধ সংগ্রহ বন্ধ, প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা

বিকাশ চৌধুরী, পটিয়া, চট্টগ্রাম, ২৫ মার্চ ॥ করোনা আতঙ্ক সারাদেশের মতো চট্টগ্রামেও ছড়িয়ে পড়েছে। বর্তমান সময়ে এখানকার দেড় হাজার দুগ্ধ খামারি বিপাকে পড়েছেন। আজ (বৃস্পতিবার) থেকে টানা ১০ দিন সরকারী ও বেসরকারী সব প্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষণার পর দুগ্ধ খামারিদের মাঝে নতুন করে হতাশা দেখা দিয়েছে। এদিকে বাংলাদেশ দুগ্ধ উৎপাদনকারী সমবায় লিমিটেড (মিল্ক ভিটা) ইতোমধ্যে প্রান্তিক খামারিদের থেকে গরুর দুধ সংগ্রহ বন্ধ করে দিয়েছে। ফলে দুগ্ধ খামারিরা প্রতিদিনের তিন লাখ ২৫ হাজার লিটার দুধ নিয়ে চিন্তিত। বুধবার সকালে চট্টগ্রাম বিভাগীয় ডেইরি ফার্মারস এ্যাসোসিয়েশনের নেতৃবৃন্দ চট্টগ্রাম বিভাগীয় কমিশনার এবিএম আজাদের সঙ্গে সাক্ষাত করেছেন। ডেইরি ফার্মারস এ্যাসোসিয়েশনের চট্টগ্রাম বিভাগের সভাপতি মোঃ ইকবাল হোসাইন, সাধারণ সম্পাদক ও মিল্ক ভিটার চট্টগ্রাম অঞ্চলের পরিচালক মোঃ নাজিম উদ্দিন হায়দার প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন। হঠাৎ করে প্রান্তিক খামারিদের গরুর দুধ সংগ্রহ বন্ধ, গো খাদ্যের দাম বৃদ্ধি ও মিষ্টির দোকান বন্ধ হয়ে যাওয়ার কারণে মূলত খামারিরা বিপাকে পড়েছেন। চট্টগ্রামের কর্ণফুলী উপজেলা, পটিয়াসহ দেড় হাজার দুগ্ধ খামারি রয়েছে। খামারিদের উৎপাদিত দুধ বিভিন্ন মিষ্টির দোকান, মিল্ক ভিটা ছাড়াও মানুষের নিত্যদিনের খাবার ছিল।

খামারি সূত্রে জানা গেছে, চট্টগ্রামের কর্ণফুলী উপজেলা, পটিয়া উপজেলা ছাড়াও বিভিন্ন এলাকায় দেড় হাজারের অধিক গরুর খামার রয়েছে। মিল্ক ভিটার চট্টগ্রামে পটিয়া দুগ্ধ শীতলীকরণ নামের একটি কেন্দ্র রয়েছে। এই শীতলীকরণ কেন্দ্র থেকে প্রতিদিন ৭-১০ হাজার লিটার দুধ মিল্ক ভিটার ঢাকার পূর্ণাঙ্গ কারখানায় পাঠানো হয়। অন্য খামারিরা মিষ্টির দোকান ছাড়াও বিভিন্ন জায়গায় খুচরা ও পাইকারী দুধ বিক্রি করে তাদের জীবিকা নির্বাহ করতেন। কিন্তু করোনার ইস্যুতে বন্ধ হয়ে গেছে দুধ বিক্রি। এদিকে ওষুধ ও মুদির দোকান ছাড়া বাকি অন্যসব দোকান বন্ধ ঘোষণা করা হলে পাইকারী ও খুচরা দুধ ব্যবসায়ীরা বিপাকে পড়েন। মিল্ক ভিটার কারখানা চালু রেখে প্রান্তিক খামারিদের থেকে অধিক দুধ সংগ্রহ, সরকারীভাবে ঘোষিত বন্ধের সময় খামারিদের উৎপাদিত দুধ (শিশু খাদ্য) বাজারজাত ও বিতরণ করার সুযোগ প্রদান, ডেইরি শিল্পকে ঠিকে রাখতে গো খাদ্যের দোকান খোলা রাখা ও গো খাদ্যের উচ্চমূল্য বিক্রির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ ছাড়াও বিভিন্ন ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানের ঋণের কিস্তি ন্যূনতম তিন মাস বন্ধ রাখার দাবি জানান।

মিল্ক ভিটার চট্টগ্রাম অঞ্চলের পরিচালক ও চট্টগ্রাম বিভাগীয় ডেইরি ফার্মারস এ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক নাজিম উদ্দিন হায়দার জানিয়েছেন, খামারিদের গরুর দুধ ইতোমধ্যে বাজারজাত বন্ধ হয়ে গেছে। যার কারণে চট্টগ্রামে দেড় হাজার দুগ্ধ খামারি বিপাকে পড়েছেন। খামারিদের উৎপাদিত দুধ বিভিন্ন মিষ্টির দোকান, মিল্ক ভিটা ছাড়াও মানুষের নিত্যদিনের খাবার ছিল। এটি বন্ধ হয়ে যাওয়ার কারণে বড় ধরনের ক্ষতির সম্মুখীন। শিশু খাদ্য দুধ বাজারজাত স্বাভাবিক রাখতে প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

শীর্ষ সংবাদ:
বিধিনিষেধে তোয়াক্কা নেই ॥ করোনা সংক্রমণ বেড়েই চলেছে         অগ্রযাত্রা কেউ থামিয়ে দিতে পারবে না         চিকিৎসার নামে অপচিকিৎসা         ঢাকা, রাঙ্গামাটির পর ঝুঁকিপূর্ণ আরও ১০ জেলা         বিএনপি-জামায়াতের লবিস্ট নিয়োগ তদন্তে গোয়েন্দারা         লাভজনক থেকে রুগ্ন ॥ গাজী ওয়্যারসের আধুনিকায়ন প্রকল্পে ২০ কোটি টাকা লোপাট         বিএনপি জনমনে বিভ্রান্তি সৃষ্টির পাঁয়তারা চালাচ্ছে ॥ কাদের         ওমক্রিন প্রতেিরাধে ডসিদিরে র্সবােচ্চ সর্তক থাকার নর্দিশে         শিমুকে সরিয়ে দেয়ার সুযোগ খুঁজতে থাকে ঘাতক স্বামী         দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত অনশন চলবে         কেটে গেছে শৈত্যপ্রবাহ তিনদিনের মধ্যে বৃষ্টি হতে পারে         অস্ট্রেলিয়ায় চাকরির নামে বিপুল অর্থ আত্মসাত         খাস জমির অর্ধেক উদ্ধার করে ১০ লাখ ভূমিহীনকে আশ্রয় দেয়া সম্ভব         ‘বাংলাদেশের অপ্রতিরোধ্য অগ্রযাত্রা কেউ থামাতে পারবে না’         একদিনে করোনায় ১২ মৃত্যু, শনাক্ত ৯৫০০         ‘মাসুদ রানা’খ্যাত কাজী আনোয়ার হোসেন আর নেই         গ্যাসের দাম বাড়ানোর বিরুদ্ধে ব্যবসায়ীরা         বাংলাদেশ ব্যাংকের ৪ কর্মকর্তাকে দুদকে তলব         ই-কমার্সে আস্থা ফেরাতে ফেব্রুয়ারিতে চালু হচ্ছে নিবন্ধন : পলক         করোনার সংক্রমণের উচ্চ ঝুঁকিতে ১২ জেলা