সোমবার ৬ আশ্বিন ১৪২৭, ২১ সেপ্টেম্বর ২০২০ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা
সর্বশেষ

ঘুষ দাবি ও নির্যাতন ॥ ভৈরব থানার ১৪ পুলিশের বিরুদ্ধে মামলা

ঘুষ দাবি ও নির্যাতন ॥ ভৈরব থানার ১৪ পুলিশের বিরুদ্ধে মামলা

অনলাইন ডেস্ক ॥ হত্যা মামলার আসামিকে অভিযোগ থেকে অব্যাহতি দেওয়ার কথা বলে ঘুষ দাবি ও পুলিশ হেফাজতে নির্যাতনের অভিযোগে কিশোরগঞ্জের ভৈরব থানার দুই পরিদর্শক, আট এসআই ও চার কনস্টেবলের বিরুদ্ধে আদালতে পৃথক দুটি মামলা হয়েছে। অথচ ওই হত্যাকাণ্ডের সময় অভিযুক্ত শেখ আশরাফুল আলম বিজন অন্য একটি মামলায় কিশোরগঞ্জ কারাগারে বন্দি ছিলেন বলে জানিয়েছেন তার স্বজনরা।

ভৈরব উপজেলার সদরের ভৈরবপুর দক্ষিণপাড়া গ্রামের শেখ সাদিয়া সুলতানা ও একই এলাকার শেখ শাহানাজ আক্তার সুমনা বাদী হয়ে বুধবার কিশোরগঞ্জের জেলা ও দায়রা জজ আদালতে মামলা দুটি দায়ের করেন।

জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক মো. সায়েদুর রহমান মামলা দুটির প্রাথমিক অনুসন্ধান ও প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য জেলা পুলিশ সুপার এবং দুর্নীতি দমন কমিশন ময়মনসিংহ সমন্বিত কার্যালয়ে সব কাগজপত্র পাঠানোর আদেশ দেন।

শেখ সাদিয়া সুলতানা দায়ের করা মামলায় ভৈরব থানার এসআই আনোয়ার হোসেন মোল্লা, পরিদর্শক তদন্ত মো. বাহালুল হক খান ও পরিদর্শক মুখলেছুর রহমানকে আসামি করা হয়। মামলার বিবরণে উল্লেখ করা হয়, ২০১৫ সালের ৫ জানুয়ারি সাদিয়ার ভাই শেখ আশরাফুল আলম বিজনকে ভৈরব থানার একটি মামলায় সন্দেহভাজন আসামি হিসেবে আটক করে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠায় পুলিশ। ওই বছরের ১১ মার্চ হাইকোর্ট থেকে জামিনে মুক্তি পান বিজন। এ মামলায় কারাগারে থাকার সময় সংঘটিত অন্য একটি হত্যা মামলায় পুলিশ তাকে আটক করে কারাগারে পাঠায়। পরে এ মামলায় জামিন পেয়ে প্রয়োজনীয় কাগজপত্রসহ এ বছরের ১৪ জানুয়ারি বিকালে বিজন ভৈরব থানায় যান। এ সময় ভৈরব থানার এসআই ও দুই পরিদর্শক হত্যা মামলার অভিযোগ থেকে অব্যাহতি দিতে তার কাছে এক লাখ টাকা ঘুষ দাবি করেন। টাকা দিতে রাজি না হওয়ায় তার বিরুদ্ধে আদালতে চার্জশিট দেওয়া হয়।

অপরদিকে শেখ আশরাফুল আলম বিজনের স্ত্রী শেখ শাহনাজ আক্তার সুমনা বাদী হয়ে দায়েরকৃত মামলায় পুলিশ হেফাজতে থাকা অবস্থায় নির্যাতনের অভিযোগে ভৈরব থানার দুই পরিদর্শক, আট এসআই ও চার কনস্টেবলকে আসামি করা হয়। মামলার এজাহারে বলা হয়, ভৈরব থানার একটি মামলায় সন্দেহভাজন আসামি হিসেবে ২০১৫ সালের ৫ জানুয়ারি পুলিশ বিজনকে আটক করে। একেই বছরের ১১ মার্চ তিনি জামিনে মুক্তি পান। কিন্তু বিজন জেলে থাকার সময় ২০১৫ সালের ১১ ফেব্রুয়ারি সংগঠিত অপর একটি হত্যা মামলায় বিজনকে আসামি দেখিয়ে আদালতে চার্জশিট দাখিল করে।

গত ১৮ মে পুলিশ বিজনকে বাড়ি থেকে আটক করে থানায় নিয়ে বেধড়ক মারপিট করে। আহত অবস্থায় থাকে কারাগারে পাঠানো হলে আদালতের নির্দেশে তাকে জেল হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হয়।

এ বিষয়ে কিশোরগঞ্জের পুলিশ সুপার মাশরুকুর রহমান খালেদ জানান, আদালত বিষয়টি অনুসন্ধানের জন্য আমার কাছে পাঠিয়েছে বলে শুনেছি। আমি ঢাকায় থাকায় এখন পর্যন্ত কাগজপত্র দেখিনি। আদালতের নির্দেশনা অনুযায়ী পরবর্তী ব্যবস্থা গ্রহণ করবো।

শীর্ষ সংবাদ:
তিতাসের ৮ কর্মকর্তা-কর্মচারী জামিনে মুক্ত         ঢাকা উত্তরের ৯টি ওয়ার্ড ডেঙ্গুর ঝুঁকিতে         ভ্যাকসিনের ট্রায়াল শুরুর বিষয়ে ২ দিনের মধ্যে চিঠি দেবে চীন         স্বাস্থ্যের গাড়িচালক আব্দুল মালেক ১৪ দিনের রিমান্ডে         শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার বিষয়ে যা জানালেন মন্ত্রিপরিষদ সচিব         করোনা ভাইরাস নিয়ন্ত্রণে প্রধানমন্ত্রীর দুই অনুশাসন         করোনা ভাইরাসে আরও ৪০ জনের মৃত্যু, শনাক্ত সাড়ে তিন লাখ ছাড়াল         বাংলাদেশ ও ভারতের বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক বহুমাত্রিক ॥ কাদের         স্বাস্থ্য অধিদফতরের গাড়ি চালক আব্দুল মালেকের বিরুদ্ধে ২ মামলা         ১৮ বছর পর মুক্তিযোদ্ধা হত্যা মামলায় দুই আসামীর ফাঁসি         ভিয়েতনাম-কাতার ফেরত ৮৩ শ্রমিককে মুক্তি দেওয়া নিয়ে রুল জারি         ঢাকায় নির্মাণ হচ্ছে ১১১ তলা ‘বঙ্গবন্ধু ট্রাই টাওয়ার’         মানবপাচার ॥ নৃত্যশিল্পী ইভান ৭ দিনের রিমান্ডে         দুদকের মামলায় খালিদীর জামিন আপিলে বহাল         করোনা সংক্রমণের দ্বিতীয় ঢেউয়ের শঙ্কা বাংলাদেশে         করোনা ভাইরাস ॥ মৃত্যুপুরী যুক্তরাষ্ট্রে আক্রান্ত ৭০ লাখ ছাড়াল         করোনা ॥ ৬ মাস পর খুলল তাজমহল         ব্যবসায়ী আজিজ হত্যা॥ একজনের মৃত্যুদণ্ড, আরেকজনের যাবজ্জীবন         সড়ক দুর্ঘটনায় পিআইবির পরিচালকের মৃত্যু         যুক্তরাষ্ট্রে ছোট বিমান বিধ্বস্ত ॥ সব আরোহী নিহত