সোমবার ১৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৮, ২৯ নভেম্বর ২০২১ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা
সর্বশেষ

চাঁপাইনবাবগঞ্জ সীমান্তে ডলার ও রুপী বিক্রির হাট

স্টাফ রিপোর্টার, চাঁপাইনবাবগঞ্জ ॥ চাঁপাইনবাবগঞ্জের কানসাট সংলগ্ন সীমান্তবর্তী ইউনিয়ন বিনোদপুর ও মনাকষা। একেবারে সীমান্ত ঘেষে ইউপি দুটির অবস্থান। এখানে প্রায় ২১টি পয়েন্ট দিয়ে চোরাচালান হয়ে থাকে। তাই দুটি ইউনিয়নে ১২টি বাজার বসে ভারতীয় রুপী ও ডলারের। বর্তমানে ডলার নিয়ে কাড়াকাড়ি চলছে। তাছাড়া ভারতীয়দের কাছে ডলার এখন খুবই মূল্যবান হয়ে দাঁড়িয়েছে। তাই এপারের চোরাকারবারিরা ডলার নিয়ে পণ্য কিনতে ভারতে যাচ্ছে। ডলার দিয়ে পণ্য কেনাবেচায় ভারতীয়রা খুবই স্বাচ্ছন্দ্যে ও আনন্দ উপভোগ করে থাকে। পাশাপাশি দ্রব্য মূল্যেও কম ধরে থাকে ডলার পেলে। তবে তারা সোনা পেলে ভারতীয় রুপী দেয়ার চেষ্টা করে এখানকার চোরাকারবারিদের।

অধিকাংশ চোরাকারবারি এ এলাকার হওয়ার কারণে তারা বিনিময় মূল্যে যে কোন ধরনের মুদ্রা পেলেই সন্তুষ্ট থাকে। কারণ ভারতীয় মুদ্রা বা রুপী ভাঙ্গাতে কোন বেগ পেতে হয় না। এখানে তাই তারা ডলার দিয়ে কম দামে অবৈধ অস্ত্রসহ বিস্ফোরক ও মাদকদ্রব্য কিনলেও সোনা বিক্রি করে ভারতীয় মুদ্রায়/নগদ কড়কড়ে রুপী নিয়ে নাচতে নাচতে এখানে প্রবেশ করা মাত্র বিনিময়ে বাংলাদেশী মুদ্রা পেয়ে থাকে। তবে এপারের বাজারে ডলারসহ ভারতীয় রুপী যে হারে পাওয়া যায় তা অন্য কোথাও পাওয়া যায় না।

এমনকি বাংলাদেশ ব্যাংকের কোন শাখায় ঢু মারলেও ডলার পাওয়া যাবে না। তবে বিনোদপুর ও কানসাটের মনাকষা বাজারে যেখানে সেখানে খোঁজ করলেই পাওয়া যাবে ডলার। অনেক চোরাকারবারি যারা অস্ত্র ও মাদক কিনতে ভারতে যায় তারা বাংলাদেশী মটাকা দিয়ে খোলাবাজার থেকে ডলার কিনে ভারতে প্রবেশ করে। কারণ ভারতীয় চোরাকারবারিদের কাছে ডলালের মূল্য অনেক বেশি। তাই চাঁপাই-এর কানসাট সংলগ্ন বিনোদপুর ও মনাকষা বাজারের একাধিক পয়েন্টে ভারতীয় রুপী ও ডলারের অবাধ বিক্রিতে কোন ঘাটতি নেই। যে সব বাংলাদেশী চিকিৎসার জন্য ভারতে গিয়ে থাকে তারাও এ দুটি বাজার থেকে ভারতীয় রুপী কিনে থাকে। দামেও তেমন হেরফের নেই। মাত্র ৫/৭ টাকা বেশি নিয়ে থাকে এখানকার মুদ্রা ব্যবসায়ীরা।

এখান থেকে পদ্মা পার হলেই মুর্শিদাবাদের একাধিক বাজার পাওয়া যায়। তাই গরু ব্যবসায়ীরা সাধারণত ডলার ও ভারতীয় মুদ্রা নিয়ে সীমান্ত অতিক্রম করে। তারা ডলার ও ভারতীয় রুপী পেলে গুরুসহ অনেক দ্রব্যের মূল্যও কম ধরে থাকে। তাই এখানকার চোরাকারবারিরা বিনোদপুর ও মনাকষার খোলা বাজার থেকে ডলার ও রুপী কিনে থাকে।

দিন দিন ভারতে ডলারের মূল্যবৃদ্ধি পাওয়ার কারণে এখানে ডলারের অনেক কেনাবেচা বেড়ে গেছে বলে চোরাকারবারি সূত্রে জানা গেছে। এছাড়াও প্রতিদিন বাড়ছে ডলার ও রুপী বিক্রির দোকান পাট। তবে এখানকার দোকানদাররা কিভাবে ডলার সংগ্রহ করে তা জানা না গেলেও ভারতীয় মুদ্রা কেনার বিষয়ে ভারতীয়রা ডিলার নিয়োগ করেছে বলেও নির্ভরযোগ্য সূত্রে জানা গেছে।

শীর্ষ সংবাদ:
দেশ এগিয়ে যাচ্ছে, এগিয়ে যাবে         ব্যাটিং ব্যর্থতায় ম্লান বোলিং সাফল্য         মিল্কি ওয়ের প্রথম ‘পালক’         সরকারী কাস্টডিতে নেই খালেদা, তিনি মুক্ত         ঢাকায় বিশ্ব শান্তি সম্মেলন ৪ ডিসেম্বর শুরু         ওমিক্রন প্রতিরোধে সতর্ক অবস্থায় সারাদেশ         সাদা পোশাকে দেশে সবার ওপরে মুশফিক         সাগরে জলদস্যুতায় যাবজ্জীবন দন্ড         গ্রুপ থিয়েটার ফেডারেশন, ৪১ বছর পূর্তির আয়োজন         কুয়েতে পাপুলের সাত বছরের কারাদন্ড         পাকি প্রেম দূরে রাখুন         বিনিয়োগবান্ধব পরিবেশ তৈরিতে আমরা প্রতিশ্রুতিবদ্ধ         ‘মোকাবেলা করে বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছে ’         তৃতীয় ধাপের সহিংসতাহীন নির্বাচন সম্পন্ন হয়েছে দাবি ইসির         করোনা : গত ২৪ ঘন্টায় মৃত্যু ৩         করোনার নতুন ভ্যারিয়েন্ট ওমিক্রন নিয়ে স্বাস্থ্য অধিদফতরের সতর্কবার্তা         পরিবহন সেক্টর কার নিয়ন্ত্রণে : জি এম কাদের         সংসদে নির্বাচন কমিশন গঠনে আইন আনা হচ্ছে শিগগিরই ॥ আইনমন্ত্রী         বাংলাদেশে বিনিয়োগে আগ্রহী সৌদির ৩০ কোম্পানি         আগামী ১ ডিসেম্বর থেকে নগর পরিবহন চালু সম্ভব নয় : মেয়র তাপস