ঢাকা, বাংলাদেশ   মঙ্গলবার ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১২ আশ্বিন ১৪২৯

পুলের ভগ্নদশা ॥ বিপাকে শিশু শিক্ষার্থীরা

প্রকাশিত: ১১:৫২, ৩১ জানুয়ারি ২০১৯

পুলের ভগ্নদশা ॥ বিপাকে শিশু শিক্ষার্থীরা

স্টাফ রিপোর্টার, বাগেরহাট ॥ মোরেলগঞ্জের জিউধরা ইউনিয়নে একটি পুলের ভগ্নদশার কারণে তিনটি বিদ্যালয়ের শিশু শিক্ষার্থীসহ এলাকাবাসীকে ভোগান্তির শিকার হতে হচ্ছে। ইউনিয়নের ডেউয়াতলা ও শনিরজোড় দুটি গ্রামের জনসাধারণের যোগাযোগ রক্ষায় রয়েছে দুটি কাঠের পুল। দুটি পুলই দীর্ঘদিন যাবৎ জরাজীর্ণ অবস্থায় পড়ে আছে। মাধ্যমিক ও প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শত শত শিক্ষার্থীসহ এলাকাবাসীকে ঝুঁকি নিয়ে চলাচল করতে হয়। পুল দুটি যেমন নড়বড়ে তেমনি নেই কোন রেলিং। বিশেষ করে শিশুরা পার হতে ভয় পায়। এখানে দুটি গ্রামের ৫ হাজার লোকের যাতায়াতের একমাত্র মাধ্যম এ পুলটি। তাছাড়া এখানে রয়েছে একটি মাধ্যমিক বিদ্যালয়, দুটি সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়, ১০ টি মসজিদ, ৮ টি মন্দিরসহ ডেউয়াতলা বাজার ও শনিরজোড় বাজার। প্রতিনিয়ত পুল দুটি থেকে পারাপারে দুর্ঘটনার শিকার হচ্ছে শিক্ষার্থীসহ গ্রামবাসী। স্থানীয় ইউপি সদস্য আরিফুল কবীর বাচ্চু জানান, দেড় বছর ধরে এ রকম ভাঙ্গাচোরা অবস্থায় পড়ে রয়েছে পুল দুটি। ইতোপূর্বে স্থানীয় ও ইউনিয়ন পরিষদের উদ্যোগে একাধিকবার মেরামত করা হয়েছে। কিছুদিন যেতে না যেতেই একই অবস্থা। ইউপি চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর আলম বাদশা বলেন, ইউনিয়ন পরিষদের বাজেট থেকে ছোট আকারে কয়েকবার মেরামত করা হয়েছে ইউনিয়নের ৫ টি পুল। ইতোমধ্যে জেলা পরিষদে লিখিতভাবে চন্দন তলা, একমারখালী, বটতলা, শনিরজোড় ও মঠবাড়িয়ায় ৫টি কাঠের পুল ও কালভার্টের পুনর্নির্মাণের জন্য আবেদন করা হয়েছে। এলাকাবাসীর দাবি, শীঘ্রই পুল দুটি নতুন করে নির্মাণ করা না হলে গ্রামের যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়বে এবং ঝুঁকিপূর্ণ ভাঙ্গা পুল থেকে পারাপারে বড় ধরনের দুর্ঘটনা ঘটতে পারে।