বুধবার ১১ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯, ২৫ মে ২০২২ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা
সর্বশেষ

এই মুহূর্তে সড়ক আইন বদলে দাবি মানা সম্ভব নয় ॥ কাদের

বিশেষ প্রতিনিধি ॥ আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, এই মুহূর্তে সড়ক পরিবহন আইন পরিবর্তন করে শ্রমিকদের দাবি মেনে নেয়া সম্ভব নয়। একই সঙ্গে ঐক্যফ্রন্টের সাত দফা দাবি মানতে হলে তার সংবিধান সংশোধন করতে হবে। কিন্তু এখন আর কোন সুযোগ নেই।

রবিবার সেতু ভবনে বাংলাদেশে নিযুক্ত ইইউ রাষ্ট্রদূতের সঙ্গে সাক্ষাত শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এসব কথা বলেন। পরিবহন শ্রমিকদের উদ্দেশে ওবায়দুল কাদের বলেন, এই মুহূর্তে বলতে চাই, ধর্মঘট প্রত্যাহার করুন, মানুষকে কষ্ট দিয়ে লাভ নেই। এখন আইন পরিবর্তন করতে তো পারব না। পরবর্তী পার্লামেন্ট পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে। পরিবহন শ্রমিকদের ধৈর্য ধরার পরামর্শ দিয়ে তিনি বলেন, অপেক্ষা করুন, ন্যায়সঙ্গত কোন বিষয় থাকলে পরে আলোচনার মাধ্যমে বিবেচনা করা হবে।

কাদের বলেন, ঐক্যফ্রন্ট হা-হুতাশ করছে, অপজিশন তো একটু ক্রিটিকাল হবেই। অপজিশনের কাজই হলো ক্রিটিসাইজ করা। তারা সাত দফা দাবি দিয়েছে। এই মুহূর্তে সাত দফা মেনে নিতে হলে সংবিধান বদলাতে হবে, যা কোন অবস্থাতেই সম্ভব নয়। কাজেই এ দাবির বিষয়ে তারা যদি স্ট্রাইক করে, অনড় থাকে, তাহলে অস্থিরতার পরিবেশ তৈরি হতে পারে।

দেশে এখন শান্তিপূর্ণ নির্বাচনী পরিবেশ বিরাজ করছে দাবি করে ওবায়দুল কাদের বলেন, তাদের দরকার একটা নিরপেক্ষ নির্বাচন কমিশন। এই মুহূর্তে ইসি পুনর্গঠনের কোনো সুযোগ নেই। রাষ্ট্রপতি একটি সার্চ কমিটি গঠন করে সব দলের প্রতিনিধিকে নিয়ে ইলেকশন কমিশন গঠন করেছেন। কাজেই এটা পরিবর্তন করার কোন সুযোগ নেই। তারপরও যদি তারা পরিবর্তন চায় তাহলে বুঝতে হবে, আসলে তারা ইলেকশন চায় কি না।

১০ বছর পার হলো, আর কবে আন্দোলন ॥ বিকেলে পল্লবীতে হারুন মোল্লা ঈদগাহ ময়দানে এক গণসংযোগ অনুষ্ঠানে ওবায়দুল কাদের বিএনপির উদ্দেশে বলেন, ‘আপনারা আন্দোলনের কথা বলেন গত ১০ বছর ধরে। ঈদের পর আন্দোলন। ঈদ আর আসে না। দেখতে দেখতে ১০ বছর পার হয়ে গেল, কবে হবে আন্দোলন? ঈদ তো আর আসে না। বিএনপির আন্দোলন সবাই দেখেছে। এ সময় বিএনপিকে ‘ভুয়া, ভুয়া, ভুয়া বলে সেøাগান দেন ওবায়দুল কাদের।’

ওবায়দুল কাদের বলেন, নির্বাচনে এক আসন থেকে হয়তো মনোনয়ন জমা দেবেন ১০ জন। তাদের মধ্য থেকে শেখ হাসিনা যাকে মনোনয়ন দেবেন, বাকিরা তার হয়ে কাজ করবেন। কেউ ঘরের মধ্যে ঝামেলা সৃষ্টি করলে মনে রাখবেন, পোস্টারে নাম লিখে, ছবি ছাপিয়ে কোন লাভ নেই। নেতা হতে হলে মানুষের হƒদয়ে নাম লেখাতে হবে। সেতুমন্ত্রী বলেন, শেখ হাসিনার উন্নয়ন বিএনপির চোখে পড়ে না। তাদের চশমা দরকার। উন্নয়ন দেখতে হলে বিএনপি ও ঐক্যফ্রন্টের নেতারা চশমা লাগাতে পারেন। তাহলেই দেখবেন পদ্মা সেতু ও মেট্রোরেল দৃশ্যমান। চশমা লাগালে অন্য কিছু নয়, আপনারা শুধু উন্নয়নই দেখতে পারবেন।

কাদের বলেন, ‘এখন সবার হাতে মোবাইল। কৃষক, রিক্সাওয়ালা, দিনমজুরসহ সকলের কানে মোবাইল। কে দিয়েছে এই মোবাইল, ইন্টারনেট? এখন আমাদের নিজস্ব স্যাটেলাইট হয়েছে। নিজস্ব স্যাটেলাইটের মাধ্যমে দেশ এগিয়ে যাচ্ছে। এতে ভূমিকা রাখছেন বঙ্গবন্ধুর নাতি সজীব ওয়াজেদ জয়। সেই জয়কে আপনারা (বিএনপি) ভয় পান।’

কাদের বলেন, এখন ঘরে ঘরে বিদ্যুত। আগে মাগরিবের নামাজের সময়, ইফতারের সময়, সেহরির সময় খালেদা (বিদ্যুত) চলে যেতেন! এই খালেদা জিয়া মানে কি? খালেদা জিয়া গেল মানে বিদ্যুত চলে গেল। আর কিছুদিন পর বাংলাদেশের প্রতিটি মানুষ ২৪ ঘণ্টা বিদ্যুত পাবে। জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট নেতা কামালের সমালোচনা করে সেতুমন্ত্রী বলেন, ড. কামাল আজ আপনি কথায় গেলেন? খুনী সন্ত্রাসীদের সঙ্গে হাত মেলালেন! তারেক রহমানের নেতৃত্ব আপনি মেনে নিয়েছেন। এটা- লজ্জা, লজ্জা, লজ্জা। আমরা আপনার সঙ্গে অসম্মানের সঙ্গে কথা বলব না, তবে আমরা আপনাকে সাবধান করে বলতে চাই, আপনি বহুরূপী শয়তানের সঙ্গে হাত মিলিয়েছেন।

ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘কামাল সাহেব বঙ্গবন্ধুর সহকর্মী হয়ে তার খুনীদের সঙ্গে হাত মিলিয়েছেন, যারা যুদ্ধাপরাধীদের সঙ্গে হাত মিলিয়েছেন, যারা স্বীকৃত সন্ত্রাসী, তাদের সঙ্গে হাত মেলানোর ফল আপনাকে একদিন পেতেই হবে। এজন্য তাকে কঠিন শাস্তি পেতে হবে।’ ঢাকা-১৬ আসনের সংসদ সদস্য ইলিয়াস মোল্লার সভাপতিত্বে এই গণসংযোগে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় এবং স্থানীয় নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

শীর্ষ সংবাদ:
কাজী নজরুলের সমাধিতে সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়ের শ্রদ্ধা         স্বপ্ন পূরণে ভাগ্য বদল ॥ পদ্মা সেতু নামেই ২৫ জুন উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী         রোহিঙ্গারা অপরাধে জড়াচ্ছে প্রত্যাবাসন অনিশ্চয়তায়         ১৩৫ বিলাসবহুল পণ্যে ২০ ভাগ নিয়ন্ত্রণমূলক শুল্ক আরোপ         আমি ত্রাস সঞ্চারি ভুবনে সহসা সঞ্চারি ভূমিকম্প...         দিনের ভোট দিনেই হবে, রাতে হবে না ॥ সিইসি         সম্রাটকে জামিন না দিয়ে কারাগারে পাঠালেন আদালত         হাতিরঝিলের পানির ক্ষতি করা যাবে না ॥ হাইকোর্ট         এগিয়ে যাওয়ার লক্ষ্যে লড়ছে দুদল         মাঙ্কিপক্সের প্রবেশ রোধে সর্বোচ্চ সতর্ক হতে হবে         ঢাবিতে ছাত্রলীগ ছাত্রদল সংঘর্ষ ॥ আহত ৩০         জামায়াতের সঙ্গেও সংলাপে বসবে বিএনপি ॥ ফখরুল         সিলেটে বন্যার পানি নামছে ধীরে, নানা সঙ্কট         জলাবদ্ধতা থেকে এবারের বর্ষায়ও মুক্তি মিলছে না চট্টগ্রামবাসীর         শেখ হাসিনা সরকার পাহাড়ে শান্তি ফিরিয়ে এনেছে ॥ কাদের         প্রত্যাবাসন নিয়ে রোহিঙ্গারা দীর্ঘ অনিশ্চয়তার কারণে হতাশ হয়ে পড়ছে : প্রধানমন্ত্রী         হাতিরঝিলে স্থাপনা উচ্ছেদসহ ওয়াটার ট্যাক্সি নিষিদ্ধে রায় প্রকাশ         মাদকাসক্ত সন্তানকে গ্রেফতারে বাবা-মা আসেন ॥ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী         নিয়মানুযায়ী দিনের ভোট দিনেই হবে ॥ সিইসি         রোহিঙ্গা শরণার্থীদের স্বেচ্ছায় প্রত্যাবাসনই স্থায়ী সমাধান