ঢাকা, বাংলাদেশ   সোমবার ০৩ অক্টোবর ২০২২, ১৮ আশ্বিন ১৪২৯

আজ আওয়ামী লীগের বিশেষ বর্ধিত সভা

প্রকাশিত: ০৫:২৯, ২৩ জুন ২০১৮

আজ আওয়ামী লীগের বিশেষ বর্ধিত সভা

বিশেষ প্রতিনিধি ॥ আগামী নির্বাচন সামনে রেখে সারাদেশ থেকে আগত তৃণমূল নেতাদের বিশেষ বার্তা দেবেন প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনা। এজন্য আজ শনিবার সকালে গণভবনে বসছে দলটির বিশেষ বর্ধিত সভা। সারাদেশ থেকে আগত চার সহ¯্রাধিক তৃণমূল নেতা নিয়ে অনুষ্ঠেয় বর্ধিত সভায় ডিসেম্বরে জাতীয় নির্বাচনের সর্বাত্মক প্রস্তুতি গ্রহণের পাশাপাশি দলের হ্যাটট্রিক বিজয়ের জন্য করণীয় দিক-নির্দেশনাও দেবেন প্রধানমন্ত্রী। আজ আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী ॥ রাজধানীর ২৩ বঙ্গবন্ধু এভিনিউতে অত্যাধুনিক ১০ তলা ভবনে দলটির কেন্দ্রীয় কার্যালয় উদ্বোধন করা হবে। দলের বিশেষ বর্ধিত সভা আহ্বানের এটিও আরেকটি উপলক্ষ। সূত্র জানায়, আজকের বর্ধিত সভা থেকে সারাদেশে নেতাকর্মীদের বিশেষ সতর্ক থাকা, জনসংযোগ অব্যাহত রাখা, অভ্যন্তরীণ কোন্দল-দ্বন্দ্ব দ্রুত নিরসন করে ইস্পাতকঠিন দৃঢ় ঐক্য গড়ে তোলা, ঘরে বসে না থেকে মাঠ-ময়দান চষে বেড়িয়ে ভোটারদের মন জয় করা এবং সরকারের উন্নয়ন কর্মকা-গুলো বেশি করে প্রচার করতে আজকের বর্ধিত সভায় প্রধানমন্ত্রী সারাদেশ থেকে আগত তৃণমূল নেতাদের বিশেষ নির্দেশনা দেবেন। বর্ধিত সভার উদ্দেশ্য সম্পর্কে শুক্রবার আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেন, দেশের বর্তমান পরিস্থিতিতে ভিন্নমুখী চ্যালেঞ্জ আছে। নির্বাচনের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র ও চক্রান্ত আছে। দেশের রাজনীতিতে ডি-এস্টাবিলাইজ করার জন্য একটি মহল তৎপর। এসব বিষয়ে দলের করণীয় নিয়ে নেতাকর্মীদের দিক-নির্দেশনা দেবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ৪ হাজার ১৫৭ নেতার অংশগ্রহণে এত বড় বিশেষ বর্ধিত সভা সম্প্রতি আর হয়নি। বর্ধিত সভায় আগামী নির্বাচনের দিক-নির্দেশনাই নয়, তৃণমূল থেকে আগত নেতাদেরও কথা শুনবেন প্রধানমন্ত্রী। এ সময় দলের অনেক বড় বড় মন্ত্রী-নেতা তৃণমূল নেতাদের কোপানলে পড়তে পারেন। সারাদেশে সৃষ্ট দলীয় কোন্দল-দ্বন্দ্ব সৃষ্টিকারীদের মুখোশও বর্ধিত সভায় প্রকাশ করতে পারেন তৃণমূল নেতারা। আওয়ামী লীগের শীর্ষ পর্যায়ের নেতারা বলেন, সাধারণত এ ধরনের সভায় বড় কোন সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। এটি দলের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ও ভারি সভা। আওয়ামী লীগের বর্তমান কমিটি নির্বাচিত হওয়ার পরে এটি দ্বিতীয় বিশেষ বর্ধিত সভা। এর আগে গত বছর ২০ মে গণভবনে আরেকটি বর্ধিত সভা অনুষ্ঠিত হয়। বিশেষ বর্ধিত সভায় যোগ দেবেন আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদের ৮১ সদস্য, উপদেষ্টা পরিষদের ৪১, জাতীয় কমিটির সদস্য ৯৯, জেলা ও মহানগরের সভাপতি-সাধারণ সম্পাদক ১৫৬, উপজেলা সভাপতি-সাধারণ সম্পাদক ৯৮৪, পৌরসভার সভাপতি-সাধারণ সম্পাদক ৬৪৬, দলীয় সংসদ সদস্য (সংরক্ষিত আসনসহ) ২৮৯, সিটি কর্পোরেশন অন্তর্গত থানার সভাপতি-সাধারণ সম্পাদক ১৯২, সহযোগী সংগঠনের সভাপতি-সাধারণ সম্পাদক ২৬, সিটি কর্পোরেশনের দলীয় মেয়র ৫, জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ৪৮, উপজেলা চেয়ারম্যান ৩৩৬, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান (পুরুষ) ৩৩০, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান (নারী) ৩২৬, পৌরসভার দলীয় মেয়র ২১৬, ঢাকা মহানগর উত্তর- দক্ষিণের অন্তর্গত প্রতিটি ওয়ার্ডের সভাপতি-সাধারণ সম্পাদক ২৫৮ এবং ঢাকা মহানগর উত্তর-দক্ষিণের সিটি কর্পোরেশনের দলীয় কাউন্সিলর ১২৪ জন।