শনিবার ৭ কার্তিক ১৪২৮, ২৩ অক্টোবর ২০২১ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা
সর্বশেষ

ক্রেতায় ঠাসা দর্জিপাড়া, দম ফেলার ফুরসত নেই কারিগরদের

  • ঈদের কেনাকাটা;###;রমনা ভবন, গাউছিয়া নিউমার্কেটে দিনরাত ঘড়ঘড় আওয়াজ

রহিম শেখ ॥ ক্রেতারা ছুটছেন দর্জির দোকানে। উদ্দেশ্য, মনের মতো ঈদের পোশাক তৈরি। তাই দর্জিপাড়া এখন মহাব্যস্ত। বিরতিহীন সেলাই মেশিনের যান্ত্রিক শব্দ বলছে, দম ফেলার ফুরসত নেই কারিগরদের। আর এই ব্যস্ততা চলবে চাঁদরাত পর্যন্ত। রাজধানীর পাড়া মহল্লায় ফ্যাশন সচেতন তরুণ-তরুণী ও নারীদের পোশাক এখন বেশি তৈরি হচ্ছে। ছেলেদের শার্ট-প্যান্ট তৈরির যোগান দিচ্ছে রাজধানীর নামকরা সব টেইলার্সে। যদিও শবে বরাতের পর থেকে এই পোশাক তৈরির অর্ডার নেয়া শুরু হয়েছে। ২০ রমজানের পর অর্ডার নেয়া বন্ধ করে দেবেন অনেক দোকানি। এবার কাপড়ের দাম বৃদ্ধি তো বটেই, ঈদ উপলক্ষে দর্জিরাও বাড়তি মজুরি নিচ্ছেন বলে জানিয়েছেন গ্রাহকরা।

‘দর্জিপাড়া’ খ্যাত রাজধানীর বঙ্গবন্ধু এভিনিউর রমনা ভবন, নীলক্ষেত, নিউমার্কেট, গাউসিয়া, সায়েন্স ল্যাবরেটরি, ফার্মগেট ও মিরপুরের বিভিন্ন টেইলার্সে সরেজমিন ঘুরে দেখা গেছে, কাপড় তৈরির কারিগরদের এখন দম ফেলার সময় নেই। কাপড় সেলাইয়ের মেশিনের শব্দ একটানা ঘড়ঘড় শব্দ, নাকি ছন্দময় তা চিন্তারও সুযোগও নেই তাদের। বাংলাদেশ ড্রেস মেকার এ্যাসোসিয়েশনের সূত্র মতে, রাজধানীসহ সারা দেশে তালিকাভুক্ত লক্ষাধিক টেইলার্স রয়েছে। তবে কোয়ালিটি টেইলার্সের সংখ্যা হবে হাজারের মতো। বাকি ৭৫ হাজার অতি সাধারণ মানের এবং ছোট পরিসরের। সংগঠনের সভাপতি আবুল কালাম আজাদ জনকণ্ঠকে বলেন, ঈদের সময় হাল ফ্যাশনের তৈরি পোশাকের প্রতিই মানুষের আগ্রহ বেশি। এ ক্ষেত্রে শরীরের সঙ্গে মানানসই পোশাক পরতে হলে দর্জিপাড়ায় তাদের আসতেই হবে এবং আসছেনও। তাই এ সময়ে দর্জির দোকানগুলোতে বেশ ভিড় পড়ে। এবারও তাই হয়েছে। তিনি বলেন, এবার ঈদে বৃষ্টি এবং একই সঙ্গে তাপদাহ থাকার সম্ভাবনাকে সামনে রেখে ক্রেতারা পছন্দের পোশাক বানাচ্ছেন।

বাংলাদেশ ড্রেস মেকার এ্যাসোসিয়েশনের তথ্য মতে, রাজধানীর ব্র্যান্ড টেইলার্সের মধ্যে রয়েছে সানমুন, সেঞ্চুরি, ক্লাইমেক্স, আইডিয়াল, রেমন্ড, মিডল্যান্ড, স্টার, ফবস, ফেরদৌস, এলিগেন্স, ফাইভ মাস্টার, ম্যানচেস্টার, ক্যামব্রিজ, দ্যা ব্লেজার বিডি, ড্রেস কিং, এম আকবর, হ্যানস টেইলার্স উল্লেখযোগ্য। এছাড়া নিউমার্কেট, গাউসিয়া ও এলিফ্যান্ট রোডেও বেশ কিছু ব্র্যান্ড টেইলার্স রয়েছে। এসব ব্র্যান্ডে কর্মরত কয়েকজনের কর্মচারী জনকণ্ঠকে জানান, বছরের অন্য সময়ের তুলনায় এখন তাদের ব্যস্ততা দ্বিগুণ বেড়েছে। রোজার শুরু থেকেই অর্ডার বেড়েছে। তারা এখন দিনরাত কাজ করছেন। বিশেষ করে শার্ট, প্যান্ট ও মেয়েদের পোশাকেরই অর্ডার আসছে বেশি। এবার একটি শার্ট তৈরিতে মাঝারি মানের টেইলার্সে মজুরি নেয়া হচ্ছে ৪৫০ থেকে ৬৫০ টাকা। প্যান্টের মজুরি ৫৫০ থেকে ৭৫০ টাকা। এ বিষয়ে নিউমার্কেটের সানসিটি টেইলার্সের স্বত্বাধিকারী দেলোয়ার হোসেন জনকণ্ঠকে বলেন, অন্য সময় কাজের চাপ না থাকলেও ঈদ সামনে রেখে কাজের চাপ বেড়ে গেছে কয়েকগুণ। সব অর্ডারও এখন নেয়া যাচ্ছে না। চাঁদনী চক মার্কেটের সুচন্দা টেইলার্সের মফিজুল ইসলাম জানান, বেশির ভাগ অর্ডার আসছে মহিলাদের কাছ থেকে। কারণ মহিলা কিংবা তরুণীদের অনেকেই ফিটিংস পোশাক পছন্দ করেন। এ পোশাকের বড় একটা অংশের অর্ডার আসে রোজার ঈদেই। তাই অনেকে থান কাপড় কিংবা সেট নিয়ে চলে আসছেন দর্জিপাড়ায়। এ কারণে লেডিজ টেইলার্সগুলোয় অন্য সময়ের তুলনায় ব্যস্ততা বেড়েছে। চাঁদনী চক, নিউমার্কেট ও গাউছিয়া ঘুরে জানা যায়, এখানে থ্রি-পিস তৈরির মজুরি সর্বনিম্ন ৫৫০ টাকা থেকে ৫০০০ টাকা পর্যন্ত। লং ফ্রক স্টাইলের পোশাক তৈরিতে খরচ পড়বে ৮০০ থেকে ২৫০০ টাকা পর্যন্ত। তবে ডিজাইনের ওপর মজুরির হেরফের হয়। নিউমার্কেটের নিউ ফ্যাশন টেইলার্সের স্বত্বাধিকারী হোসেন মনসুর বলেন, ঈদের অর্ডার নেয়া বন্ধ হয়ে গেছে। তবে কিছু নিয়মিত কাস্টমার আছে তারা যখন কাপড় আনবে তখনি তাদেরটা সেলাই করে দিতে হবে। কারণ তারা আমাদের নিয়মিত কাস্টমার। আমাদের মজুরি খুব একটা পরিবর্তন হয়নি। নরমাল সালোয়ার-কামিজের মজুরি ৬৫০ টাকা। সিটি কলেজ সংলগ্ন সিটি টেইলার্সের কাটিং মাস্টার প্রসেণজিৎ জানান, গতবারের চেয়ে এবার ঈদে কাজের চাপ বেশি। তাদের প্রতিষ্ঠানে ১২ জন কারিগর প্রতিদিন ৫০ সেট কাপড় সেলাই করে থাকেন। ঈদ উপলক্ষে প্রতিদিন ১৬ ঘণ্টা কাজ করেন তারা। নিউমার্কেটের দর্জি মাস্টার আমিনুল ইসলাম বলেন, সব কিছুর যেমন দাম বেড়েছে; তেমনি কারিগরদের মজুরি বেড়েছে। আগে এক সেট সালোয়ার-কামিজ সেলাই করতে ২০০ থেকে ৩০০ টাকা লাগত। এখন সেখানে লাগছে সর্বনিম্ন ৪৫০ থেকে ৬৫০ টাকা পর্যন্ত।

দর্জি দোকানের পাশাপাশি এবার গজ কাপড়ও ভাল বিক্রি হচ্ছে। ঈদ সামনে রেখে বেশ কিছু নতুন গজ কাপড় এনেছেন চাঁদনী চক মার্কেটের দোকানিরা। নিউমার্কেটে পিওর, অর্গেন্ডি, নেট, ভেলভেট, জর্জেট, তসর, সিল্ক, কাতান, টিস্যুসহ রিবন চিকেন, ভেলভেট চিকেন, লেস চিকেন, ফুচকা চিকেনসহ বিভিন্ন সূতি কাপড় এসেছে। তবে এ সব কাপড়ের দামটা একটু বেশি বলে জানান ক্রেতারা। এ মার্কেটের দোকানি ছদরুল ইসলাম বলেন, চাকচিক্য না থাকলে ঈদের কাপড় চলবে না। তবে অনেকে আবার একেবারে সাদামাটা কাপড়ও খোঁজেন। শনিবার মোহাম্মদপুর থেকে নিউমার্কেটে জামার কাপড় কিনতে এসেছিলেন জেসমিন সুলতানা। তিনি কাপড়ের দাম বেশি বলে অভিযোগ করেন। জেসমিন বলেন, রোজার আগে যে কাপড় ৩০০ টাকা গজে পাওয়া যেত সে কাপড়ের গজ এখন ৬০০ টাকা লাগিয়েছে দোকানিরা। থানকাপড়ের রকমারি কালেকশন আছে; তবে এসব কাপড়ের দাম খুবই চড়া। এদিকে গজ বা থানকাপড়ের কেনাকাটার সঙ্গে বেড়েছে লেস, পুঁতি, চুমকি, কুন্দন, পাথর, ডলার, ফিতা ইত্যাদির বিক্রয়। লেসের দাম ২০ টাকা গজ থেকে শুরু করে হাজার/বারশ টাকা পর্যন্ত বিক্রি হচ্ছে। আর এক তোলা চুমকি বিক্রি হচ্ছে ৩০ টাকা থেকে ১২০০ টাকা পর্যন্ত। আর পুঁতি পাথর বিক্রি হচ্ছে পিস হিসেবে।

শীর্ষ সংবাদ:
সড়কে শৃঙ্খলা আনাই আমাদের চ্যালেঞ্জ ॥ কাদের         সম্প্রীতি বজায় রাখতে শিশুদের সংস্কৃতিচর্চা অপরিহার্য ॥ তথ্যমন্ত্রী         কবি শামসুর রাহমানের জন্মদিন আজ         মগবাজারে ট্রেন লাইনচ্যুত, যোগাযোগ বিঘ্নিত         করোনায় ১ লাখ ৮০ হাজার স্বাস্থ্যকর্মীর মৃত্যুর শঙ্কা ডব্লিউএইচওর         উন্নয়নের মহাসড়কে নারায়ণগঞ্জ         জলবায়ু পরিস্থিতি বিপর্যয়ের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে ॥ জাতিসংঘ         করোনা ভাইরাসে ১৭ মাসে সর্বনিম্ন ৪ জনের মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ২৩২         পূজামণ্ডপে কোরআন শরিফ রাখার কথা ‘স্বীকার করেছেন’ ইকবাল         ২৪ ঘণ্টায় আরও ১২৩ ডেঙ্গু রোগী হাসপাতালে         সংখ্যালঘুদের সুরক্ষায় আইনের দাবি দিয়ে শাহবাগ ছাড়লেন বিক্ষোভকারীরা         রোহিঙ্গা ক্যাম্পে মাদক-অস্ত্র বন্ধে প্রয়োজনে গুলি ॥ পররাষ্ট্রমন্ত্রী         সড়কে শৃঙ্খলা আনাই আমাদের চ্যালেঞ্জ ॥ সেতু মন্ত্রী         কোরিয়ার ভিসার জন্য আবেদন শুরু রবিবার         বিদেশি শ্রমিকদের ওপর নিষেধাজ্ঞা তুলছে মালয়েশিয়া         মুশফিক ও লিটনের প্রতি আস্থা রাখতে বললেন অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ         রাজধানীর কাওরানবাজার এলাকায় মালবাহী ট্রেন লাইনচ্যুত         সিরিয়ার বনে আগুন দেওয়ার দায়ে ২৪ জনের মৃত্যুদণ্ড ১১ জনের যাবজ্জীবন         নেপালে বন্যা, ভূমিধস ॥ মৃত্যু ১০০ জনের বেশী         ঝিনাইদহে ইজিবাইক চালক হত্যার ঘটনায় ৬ জন গ্রেফতার