ঢাকা, বাংলাদেশ   বুধবার ০৫ অক্টোবর ২০২২, ২০ আশ্বিন ১৪২৯

‘বিকৃতকারীদের জন্য ইতিহাস অনুকম্পাবোধ করে’

প্রকাশিত: ০৫:৩৯, ৩১ মার্চ ২০১৮

‘বিকৃতকারীদের জন্য ইতিহাস অনুকম্পাবোধ করে’

বিশ্ববিদ্যালয় রিপোর্টার ॥ জিয়াউর রহমান সাপ্তাহিক বিচিত্রায় একটি রচনাতে লেখেন, জাতির জনকের ৭ মার্চের ভাষণ আমাদের জন্য গ্রীন সিগন্যাল ছিল। অথচ তার অনুসারীরা ইতিহাসকে অন্ধকারে ফেলে দিয়ে বলে ‘বঙ্গবন্ধু জাতির জনকও নন, স্বাধীনতার ঘোষণাও করেননি’। ইতিহাস ইতিহাসের জায়গায় থাকে। ইতিহাসকে বিকৃতি যারা করে তাদের জন্য ইতিহাস অনুকম্পাবোধ করে। শুক্রবার ঢাকা বিশ^বিদ্যালয়ের ছাত্র শিক্ষক কেন্দ্রের মিলানায়তনে জাতির জনকের ৯৮তম জন্মবার্ষিকী ও স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষে এক আলোচনা সভায় প্রধান আলোচকের বক্তব্যে ঢাকা বিশ^বিদ্যালয়ের ইতিহাস বিভাগের অধ্যাপক ও শিক্ষাবিদ সৈয়দ আনোয়ার হোসেন এসব কথা বলেন। ঢাকা বিশ^বিদ্যালয় ছাত্রলীগ এই আলোচনা সভার আয়োজন করে। অনুষ্ঠানে সংগঠনটির ঢাকা বিশ^বিদ্যালয় সভাপতি আবিদ আল হাসানের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক মোতাহার হোসেন প্রিন্সের সঞ্চালনায় বক্তব্য দেন কেন্দ্রীয় সভাপতি সাইফুর রহমান সোহাগ, সাধারণ সম্পাদক এস এম জাকির হোসাইন প্রমুখ। প্রসঙ্গত, গত ২৬ মার্চ দৈনিক নয়াদিগন্ত পত্রিকায় ‘জ্যোতির্ময় জিয়া’ শিরোনামে এক নিবন্ধ লেখেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সাদা দলের যুগ্ম-আহ্বায়ক অধ্যাপক মোরশেদ হাসান খান। তিনি লেখেন, ‘আওয়ামী নেতাদের বেশিরভাগই তাদের পরিবার-পরিজনসহ ভারতে চলে গেলেন, এ দেশবাসীকে মৃত্যু ফাঁদে ফেলে দিয়ে নেতৃত্বহীন অবস্থায়। যাকে ঘিরে এ দেশের মানুষ স্বপ্ন দেখত সেই শেখ মুজিবুর রহমানও’। স্বাধীনতার ডাক এসেছিল শেখ মুজিবুর রহমান গ্রেফতার হওয়ার পর, তার আগে নয়। আমার জানা মতে, তিনি কোন স্বাধীনতার ঘোষণা দেননি। এই লেখাতে চারিদিকে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়। সৈয়দ আনোয়ার হোসেন বলেন, বাংলাদেশে অনেকে আছে যারা ধৃষ্টতা দেখায় ৭ মার্চের ভাষণ স্বাধীনতার ঘোষণা ছিল না। শত্রুর মুখ থেকে যা শুনি তার থেকে বড় প্রমাণ আর হতে পারে না। ৮ মার্চ পাকিস্তানের সামরিক গোয়েন্দা বাহিনী একটি প্রতিবেদন পাকিস্তানের সদর দফতরে পাঠানো হয়েছিল। সেখানে একটি বাক্য ছিল যার বাংলা অনুবাদ ‘চতুর শেখ মুজিব কৌশলে স্বাধীনতার ঘোষণা করল, আমরা চেয়ে চেয়ে দেখলাম’। অধ্যাপক সৈয়দ আনোয়ার হোসেন বলেন, বঙ্গবন্ধু শুধু নিজে বড় হননি তার জাতিকে বড় করে গেছেন। বঙ্গবন্ধু বেঁচে থাকলে দেশ আরও সমৃদ্ধশালী হতো। বঙ্গবন্ধু সম্পর্কে জানতে তিনি ছাত্রলীগ নেতাকর্মীবৃন্দের প্রতি ‘অসমাপ্ত আত্মজীবনী’ ও কারাগারের রোজনামচা বই দুটি পড়ার পরামর্শ দেন। ছাত্রলীগ সভাপতি সাইফুর রহমান সোহাগ বলেন, বঙ্গবন্ধু বাংলাদেশকে স্বাধীনতা এনে দিয়েছিল আর প্রধানমন্ত্রী আমাদের সমৃদ্ধি দিচ্ছেন। আমাদেরকে শপথ নিতে হবে প্রধানমন্ত্রীকে চতুর্থবারের মতো বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী করে উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে হবে।