বৃহস্পতিবার ১৩ কার্তিক ১৪২৮, ২৮ অক্টোবর ২০২১ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা
সর্বশেষ

বাবার রয়ে গলদ ছিল প্রমান করলেন ছেলে

বাবার রয়ে গলদ ছিল প্রমান করলেন ছেলে

অনলাইন ডেস্ক ॥ বাবার মত ‘বাতিল’ হয়ে গেল ছেলের হাত ধরে! ব্যাপারটা অনেকটা সেই রকমই। ব্যক্তিপরিসরের অধিকার মৌলিক অধিকার— সুপ্রিম কোর্টের নয় সদস্যের সাংবিধানিক বেঞ্চ আজ একমত হয়ে ঐতিহাসিক এই রায় দিয়েছে। এই বেঞ্চে রয়েছেন এমন এক বিচারপতি যিনি, এই নিয়ে অতীতে তাঁর বাবারই ঘোষণা করা রায়ে ‘গুরুতর খামতি’ রয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন এবং বলেছেন, ‘‘কোনও সভ্য দেশ ব্যক্তি-স্বাধীনতার পূর্ণ দখল নিতে পারে না।’’ তিনি, বিচারপতি ডি ওয়াই চন্দ্রচূড়, সুপ্রিম কোর্টের প্রাক্তন বিচারপতি ওয়াই ভি চন্দ্রচূড়ের ছেলে।

অতীতে বাবার দেওয়া রায় কোনও ছেলের হাতে পাল্টে গিয়েছে, এমনটা ভারতীয় বিচারব্যবস্থার ইতিহাসে বিরল এবং উল্লেখযোগ্য বলেই মনে করছে আইনজীবী মহল।

কী ছিল সেই রায়?

জানতে হলে ফিরে যেতে হবে ১৯৭৫ সালে জরুরি অবস্থার সময়ে। ইন্দিরা গাঁধীর নেতৃত্বাধীন কংগ্রেস সরকার তখন সব মৌলিক অধিকার খর্ব করেছিল। আর সেই সিদ্ধান্তে সায় দিয়েছিল সুপ্রিম কোর্টের পাঁচ সদস্যের এক বেঞ্চ। প্রাক্তন বিচারপতি ওয়াই ভি চন্দ্রচূড় সেই বেঞ্চেরই সদস্য ছিলেন। ‘এডিএম জবলপুর বনাম শিবকান্ত শুক্ল’ নামে ১৯৭৬ সালের সেই বহুচর্চিত মামলায় প্রাক্তন বিচারপতি ওয়াই ভি চন্দ্রচূড়-সহ চার বিচারপতি বলেছিলেন, ব্যক্তি-স্বাধীনতার কোনও সিলমোহর নেই। তাঁর বক্তব্য ছিল, ‘‘যখন এই অধিকার কার্যকর করা হবে, তখন এটা বোঝা অসম্ভব যে এই অধিকার সংবিধান প্রদত্ত নাকি প্রাক-সাংবিধানিক।’’ বিরোধী মত পোষণ করেছিলেন বিচারপতি এইচ আর খন্না।

বৃহস্পতিবার বাবার সেই যুক্তিই খারিজ করে বিচারপতি ডি ওয়াই চন্দ্রচূড় বলেছেন, ‘এডিএম জবলপুর’ মামলায় পাঁচ সদস্যের বেঞ্চে চার বিচারপতি যে সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন, তার মধ্যে ‘গুরুতর খামতি’ ছিল। প্রাক্তন বিচারপতির এই ছেলের কথায়, ‘‘জীবন এবং ব্যক্তি-স্বাধীনতা মৌলিক অধিকারের অবিচ্ছেদ্য অঙ্গ। জীবন এবং ব্যক্তি-স্বাধীনতার পূর্ণ দখল কোনও সভ্য দেশ নিতে পারে না।’’ বাবার কথার সম্পূর্ণ বিপরীত অবস্থানে নিজেকে রেখে ডি ওয়াই চন্দ্রচূড়ের বক্তব্য, ‘‘কেশবনন্দ ভারতী যে ভাবে দেখিয়েছেন, ব্যক্তি স্বাধীনতা মানুষের আদিম অধিকারের মধ্যেই পড়ে। জীবন বা স্বাধীনতা— রাষ্ট্রের দেওয়া উপহারও নয়, সংবিধানও এই অধিকার তৈরি করে না।’’

‘এডিএম জবলপুর’ মামলা শুরু হয়েছিল ব্যক্তি স্বাধীনতার প্রশ্ন ঘিরেই। জরুরি অবস্থা ঘোষণার আগে দুর্নীতির দায়ে আদালত ইন্দিরা গাঁধীকে দোষী সাব্যস্ত করে এবং যে ভোটে তিনি জিতে এসেছিলেন তাকে মান্যতা দিতে আপত্তি জানায়। তখন ইন্দিরা তৎকালীন রাষ্ট্রপতি ফখরুদ্দিন আলি আহমেদকে জরুরি অবস্থা ঘোষণা করার জন্য অনুরোধ জানান। তাতে সায় দেন রাষ্ট্রপতি।

তার পরে ১৯৭৫ থেকে ১৯৭৭-এর মধ্যে অভিযোগ বা বিচার ছাড়াই হাজার হাজার বিরোধী নেতার জেল হয়েছিল। এঁদের মধ্যে ছিলেন মোরারজি দেশাই, রাজ নারায়ণ, অটলবিহারী বাজপেয়ী, জয়প্রকাশ নারায়ণ, লালকৃষ্ণ আডবাণী প্রমুখ। সংবাদমাধ্যমের উপরেও তখন জারি হয়েছিল নিষেধাজ্ঞা।

সূত্র : আনন্দবাজার পত্রিকা

করোনাভাইরাস আপডেট
বিশ্বব্যাপী
বাংলাদেশ
আক্রান্ত
২৪৫৪০৪৪৯৬
আক্রান্ত
১৫৬৮৫৬৩
সুস্থ
২২২৪৫৬৫৬৯
সুস্থ
১৫৩২৪৬৮
শীর্ষ সংবাদ:
সেনাবাহিনী বহির্বিশ্বে দেশের ভাবমূর্তি উজ্জ্বল করেছে         ইংল্যান্ডের কাছে বড় ব্যবধানে হার বাংলাদেশের         নীলনক্সা লন্ডনে         ‘গরিবের আইনজীবী’ বাসেত মজুমদারের ইন্তেকাল         পাটুরিয়ায় তলদেশ দিয়ে পানি ঢুকে ফেরিডুবি         দেশে প্রতি চারজনে একজন স্ট্রোকে আক্রান্ত         মূল্যস্ফীতি সরকারের নিয়ন্ত্রণে ॥ অর্থমন্ত্রী         প্রধানমন্ত্রীর প্রণোদনা প্যাকেজে অর্থনীতি ঘুরে দাঁড়িয়েছে         জ্বালানি তেলের দাম বাড়ানোর চিন্তা ॥ জনজীবনে চাপ পড়ার শঙ্কা         বাবুলের মামলার চূড়ান্ত প্রতিবেদনে নারাজির শুনানি         কুমিল্লার ঘটনায় জড়িতদের শনাক্ত করা হচ্ছে         হামলা করে সার্বভৌমত্ব হুমকির মধ্যে ফেলে দেয়া হয়েছে         ফ্লাইওভারের র‌্যাম্পে কোন ফাটল সৃষ্টি হয়নি         বৃহস্পতিবার গণটিকার দ্বিতীয় ডোজ         ১ ফেব্রুয়ারিতে হচ্ছে না এসএসসি পরীক্ষা : শিক্ষামন্ত্রী         বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব শিল্প পুরস্কার পাচ্ছে ২৩ প্রতিষ্ঠান         করোনা: গত ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু ৭, নতুন শনাক্ত ৩০৬         কোচিং সেন্টার বন্ধ থাকবে ১৮ দিন         গুলশানে ট্রান্সফরমার বিস্ফোরণ, শিশুসহ দগ্ধ ৪         টেকসই উন্নয়নের জন্য চাই ঐক্যবদ্ধ সামাজিক শক্তি