রবিবার ৪ আশ্বিন ১৪২৭, ২০ সেপ্টেম্বর ২০২০ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা
সর্বশেষ

জনগণের অপ্রতিরোধ্য আন্দোলনে ষড়যন্ত্র চক্রান্ত ব্যর্থ হয়

  • শেখ হাসিনার কারামুক্তি দিবসে সংসদে অনির্ধারিত আলোচনা

সংসদ রিপোর্টার ॥ গণতন্ত্র ও উন্নয়নের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র-চক্রান্তের কঠোর সমালোচনা করে সরকারদলীয় সংসদ সদস্যরা বলেছেন, সেনা সমর্থিত সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আমলে বঙ্গবন্ধুর কন্যা শেখ হাসিনাকে কারারুদ্ধ করে গণতন্ত্রকে ধ্বংস করার ষড়যন্ত্র হয়েছিল। এমনকি তাঁকে হত্যার চক্রান্তও হয়েছিল। কিন্তু জনগণের অপ্রতিরোধ্য আন্দোলনের মুখে সেই ষড়যন্ত্র-চক্রান্ত ব্যর্থ হয়, তত্ত্বাবধায়ক সরকার শেখ হাসিনাকে মুক্তি দিতে বাধ্য হয়। তাঁর কারামুক্তির মধ্য দিয়ে দেশে দুঃশাসনের অবসান হয়, গণতন্ত্র আবারও মুক্তি পায়। এরপর জনগণের ভোটে নির্বাচিত হয়ে তিনি প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব গ্রহণ করেন বলেই দেশ এখন উন্নয়নের মহাসড়কে। আজ গণতান্ত্রিক বিশ্বের নেতৃত্ব দিচ্ছে বাংলাদেশ।

রবিবার জাতীয় সংসদ অধিবেশন পয়েন্ট অব অর্ডারে অনির্ধারিত আলোচনায় অংশ নিয়ে তাঁরা এসব এ কথা বলেন। স্পীকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে শুরু হওয়া সংসদ অধিবেশনে শেখ হাসিনার কারামুক্তি দিবস উপলক্ষে পয়েন্ট অব অর্ডারে এই আলোচনার সূত্রপাত করেন ডাক ও টেলিযোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম। এই আলোচনায় আরও অংশ নেন সাবেক আইনমন্ত্রী এ্যাডভোকেট আবদুল মতিন খসরু, পংকজ দেবনাথ, বেগম ফজিলাতুন নেসা বাপী, বেগম নুরজাহান বেগম, সাবিনা আক্তার তুহিন ও উম্মে রাজিয়া কাজল। আলোচকরা সকলেই বিগত তত্ত্বাবধায়ক সরকারের নির্মম নির্যাতনের শিকার হন। আলোচনার সময় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা অধিবেশনে উপস্থিত ছিলেন।

অনির্ধারিত আলোচনার সূত্রপাত করে প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম বলেন, শেখ হাসিনার মুক্তির মধ্য দিয়ে দেশের গণতন্ত্রের মুক্তি পেয়েছে। দেশে গণতন্ত্রের বিকাশ ঘটছে। এখন উন্নয়ন ও অগ্রগতির পথে দেশ চলছে। তিনি আরও বলেন, শেখ হাসিনা হাল ধরেছেন বলে নৌকা অগ্রগতির দিকে ধাববান। বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলার পথে দেশ অগ্রসর হচ্ছে। অবশ্য এজন্য জননেত্রীকে অনেক জেল-জুলুম ও অত্যাচার সহ্য করতে হয়েছে।

ব্রিটিশ পার্লামেন্টে বিজয়ী তিন বাঙালী কন্যাকে অভিনন্দন জানিয়ে তারানা হালিম বলেন, পনের হাজারেরও বেশি ভোটের ব্যবধানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভাগ্নি টিউলিপ সিদ্দিকী বিজয়ী হয়েছেন। টিউলিপের একাগ্রতা, কর্তব্য নিষ্ঠা ও ন্যায় পরায়ণতার কারণে এটা সম্ভব হয়েছে। এক্ষেত্রে পরিবারের শিক্ষা ও অনুপ্রেরণা কাজ করেছে। তিনি আরও বলেন, টিউলিপ জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের যোগ্য নাতি, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যোগ্য ভাগ্নি ও শেখ রেহানার যোগ্য সন্তান। যিনি বাঙালী জাতির ভাবমূর্তিকে উজ্জ্বল করেছেন।

সাবেক আইনমন্ত্রী আবদুল মতিন খসরু বলেন, জনগণের বিরুদ্ধে দাঁড়িয়ে কোন উদ্দেশ্য বাস্তবায়ন করা যায় না, এটা শেখ হাসিনা প্রমাণ করেছেন। ষড়যন্ত্র-চক্রান্তের মাধ্যমে শেখ হাসিনাকে মাইনাস করার পরিকল্পনা হয়েছিল। তাঁকে কারারুদ্ধ করা হয়েছিল। কিন্তু জনগণের অকৃত্রিম ভালবাসা তাঁকে ফিরিয়ে এনেছে। তিনি মৃত্যুকে জয় করেছেন। বঙ্গবন্ধুর শোষণমুক্ত বাংলাদেশ গড়তে তিনি কাজ করছেন। ক্রিকেটে একের পর এক বিজয় প্রধানমন্ত্রীর পদক্ষেপের কারণে সম্ভব হচ্ছে বলে তিনি দাবি করেন।

নির্বাচনের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র চলছে দাবি করে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সময় চরম নির্যাতনের শিকার সংসদ সদস্য পংকজ দেবনাথ বলেন, বিগত তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আমলে নির্বাচনের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র হয়েছিল। শেখ হাসিনা বলেছিলেন, তত্ত্বাবধায়ক সরকারের প্রধান কাজ নির্বাচন। দ্রুত নির্বাচন দিতে হবে। এতে নাখোশ হয়েছিল সেই সরকার। তাঁকে বিদেশ থেকে দেশে ফিরতে বাধা দিয়েছিল। সরকারের কথায় ব্রিটিশ এয়ারওয়েজ বঙ্গবন্ধুর কন্যা টিকিট বাতিল করেছিল। সরকারের হুমকি ছিল, দেশে ফিরলে গ্রেফতার করা হবে। পিতার ভাগ্য বরণ করতে হবে। কিন্তু শেখ হাসিনা পিছু পা হননি। মৃত্যুতে হাতের মুঠোয় নিয়ে দেশে ফিরে ছিলেন। ১৯৮২ সালেও একইভাবে তাঁর বিরুদ্ধে চক্রান্ত করা হয়।

তিনি বলেন, দুর্নীতির বিরুদ্ধে তত্ত্বাবধায়ক সরকার অভিযান শুরু করলেও দুর্নীতিতে চ্যাম্পিয়ান খালেদা জিয়াকে গ্রেফতার না করে শেখ হাসিনাকে গ্রেফতার করা হলো। অসংখ্য মামলা দেয়া হলো। নির্বাচন ও রাজনীতি থেকে মাইনাসের চেষ্টা করা হলো। তিনি আরও বলেন, কারাগারে শেখ হাসিনা ভোটার হতে চাইলে খালেদা জিয়া ভোটার হতে রাজি হননি। কারণ তিনি নির্বাচন চান না। তিনি নির্বাচনের বিরুদ্ধে সব সময় অবস্থান নিয়েছেন। এখনও নিচ্ছেন। এ বিষয়ে দেশবাসীকে সতর্ক থাকতে হবে।

গণমানুষের অপ্রতিরোধ্য আন্দোলনের মুখে শেখ হাসিনাকে মুক্তি দিতে বাধ্য হয় বলে দাবি করেন সংসদ সদস্য ফজিলাতু নেসা বাপ্পি। তিনি বলেন, গণতন্ত্রের শত্রু ও এক-এগারোর কুশীলবরা কোন গ্রেফতারি পরোয়ানা ছাড়াই শেখ হাসিনাকে গ্রেফতার করে। গ্রেফতারের মুহূর্তে জাতির উদ্দেশ্যে লেখা ২২ লাইনের চিঠিতে তিনি দলীয় নেতা-কর্মীদের অন্যায়ের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তোলার আহ্বান জানান। তিনি আমৃত্যু জনগণের পাশে থাকার প্রতিশ্রুতি ব্যক্ত করেন। তিনি সেই প্রতিশ্রুতি রক্ষা করেছেন। তিনি আরও বলেন, কারাগারে শেখ হাসিনার প্রতি নির্মম নির্যাতন করা হয়েছে। তাঁকে ভাঙ্গা খাটে থাকতে দেয়া হয়েছে। ইঁদুরে কাটা লেপ তোষক দেয়া হয়েছে। খাবারে বিষ মিশিয়ে হত্যার ষড়যন্ত্র হয়েছে। কিন্তু শেখ হাসিনার গণতন্ত্রের প্রতি অসীম সাহস ও জনগণের প্রতি দায়বন্ধতার কারণে সকল ষড়যন্ত্র ব্যর্থ হয়েছে। বঙ্গবন্ধুর কন্যার মুক্তির মধ্য দিয়ে গণতন্ত্র, উন্নয়ন ও সমৃদ্ধি মুক্তি পেয়েছে। নবম ও দশম সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠান সম্ভব হয়েছে। যে কারণে বাংলাদেশ এখন গণতান্ত্রিক বিশ্বের নেতৃত্বের আসনে বসতে পেরেছে।

সাবিনা আক্তার তুহিন বলেন, জনগণের প্রতি অফুরন্ত ভালবাসার প্রতিদান পেয়েছেন শেখ হাসিনা। রক্তাক্ত হয়ে হাসপাতালে গেলেও জননেত্রীর মুক্তির দাবি থেকে পিছু হটেনি দলের তৃণমূল নেতাকর্মীরা। তিনি আবেগ জড়িত কণ্ঠে বলেন, আমরা দিনের পর দিন বাচ্চার মুখ দেখতে পারেনি। বাচ্চারা মায়ের দুধ খেতে পারেনি। আমাদের একমাত্র লক্ষ্য ছিল নেত্রীর মুক্তি। এই দিনে আমাদের স্বপ্ন পূরণ হয়েছিল।

গ্রেফতারের সময়ে দেশবাসীকে লেখা চিঠিটি পড়ে শোনান বেগম নূরজাহান বেগম। তিনি বলেন, এই চিঠি আমাদের কঠিন সময়েও আন্দোলনে অনুপ্রাণিত করেছে। জনগণের প্রতি তাঁর অঙ্গীকার কর্মীদের আরও সাহসী করে তুলেছে। যে কারণে আন্দোলনের মাধ্যমে শেখ হাসিনাকে মুক্ত করা সম্ভব হয়েছে। এতে বাঙালী জাতির অর্থনৈতিক মুক্তি নিশ্চিত হয়েছে।

এ্যাডভোকেট উম্মে রাজিয়া কাজল বলেন, শেখ হাসিনার গ্রেফতারের বিরুদ্ধে আন্দোলনের উপর দমন-পীড়ন চালিয়ে তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যর্থ হয়। সরকার এক পর্যায়ে মিছিল-সমাবেশ বন্ধ করে দেয়। কিন্তু নেতাকর্মীদের দমিয়ে রাখা যায়নি। আন্দোলনের মাধ্যমে বিজয় ছিনিয়ে এনেছে।

এদিকে প্রস্তাবিত বাজেটের উপর সাধারণ আলোচনায় অংশ নিয়ে মুহিবুর রহমান মানিক বলেন, শেখ হাসিনা মুক্তি না পেলে দেশে গণতন্ত্র আসত না। কোন নির্বাচন হতো না। দেশকে উন্নয়নের মহাসড়কে আনা সম্ভব হতো না। নিজস্ব অর্থায়নে পদ্মা সেতুর মতো প্রকল্প বাস্তবায়ন অসম্ভব ছিল। এমনকি আইপিইউ ও সিপিএ-এর মতো সংস্থায় নির্বাচন কারো কল্পনায় আসত না। তিনি ব্রিটিশ পার্লামেন্টে নির্বাচিত তিন বাঙালী কন্যা ও বাংলাদেশ ক্রিকেট দলকে অভিনন্দন জানান।

উল্লেখ্য, আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনা দীর্ঘ ১১ মাস কারাভোগের পর ২০০৮ সালের ১১ জুন জাতীয় সংসদ ভবন এলাকার বিশেষ কারাগার থেকে মুক্তি পেয়েছিলেন। এর আগে ২০০৭ সালের ১৬ জুলাই সুধা সদন থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। এরপর তার বিরুদ্ধে একের পর এক মামলা দেয়া হয়। বিশেষ আদালতে সেই মামলার বিচারও শুরু হয়।

শীর্ষ সংবাদ:
নির্দিষ্ট এলাকার বাইরে কল কারখানা নয়         তিন বন্দর দিয়ে ভারতে আটকে থাকা পেঁয়াজ আসা শুরু         দুর্নীতির বিরুদ্ধে শুদ্ধি অভিযান অব্যাহত রয়েছে ॥ কাদের         কওমি বড় হুজুর আল্লামা শফীকে চিরবিদায়         ওষুধ খাতের ব্যবসা রমরমা         করোনার নমুনা পরীক্ষা ১৮ লাখ ছাড়িয়েছে         করোনা সংক্রমণ বাড়ছে ॥ ফের লকডাউনে যাচ্ছে ইউরোপ         বিশেষ মহলের ইন্ধন-ভাসানচরে যাবে না রোহিঙ্গারা         তুলা উৎপাদনে গুরুত্ব দিচ্ছে সরকার         দগ্ধ আরও দুজনের মৃত্যু, তিতাসের গ্রেফতার ৮ জন দুদিনের রিমান্ডে         শিক্ষার ক্ষতি পোষাতে বিশেষ প্রকল্প আগামী মাস থেকেই ॥ করোনায় সব লণ্ডভণ্ড         আর কোন জিকে শামীম নয় ॥ গণপূর্তের দৃশ্যপট পাল্টেছে         ব্যক্তিগত ও পারিবারিক দ্বন্দ্বই অধিকাংশ খুনের কারণ         এ্যাটর্নি জেনারেলের অবস্থার উন্নতি         বর্তমান সরকারের আমলে রেলপথে ব্যাপক উন্নয়ন হয়েছে : রেলপথমন্ত্রী         ইউএনও ওয়াহিদা জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ে বদলী, স্বামী স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ে         সোহরাওয়ার্দী হাসপাতাল পরিচালকের রুম ঘেরাও         চিরনিদ্রায় শায়িত হেফাজত আমির আল্লামা আহমদ শফী         সবচেয়ে কঠিন সময় পার করছি ॥ মির্জা ফখরুল         করোনা ভাইরাস ॥ ভারতে একদিনে ১২৪৭ জনের মৃত্যু