ঢাকা, বাংলাদেশ   রোববার ০৪ ডিসেম্বর ২০২২, ২০ অগ্রাহায়ণ ১৪২৯

monarchmart
monarchmart

শিক্ষার্থীদের মধ্যে সংঘর্ষে নিহত ১ আহত শতাধিক

প্রকাশিত: ০২:০৪, ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০১৭

শিক্ষার্থীদের মধ্যে সংঘর্ষে নিহত ১ আহত শতাধিক

নিজস্ব সংবাদদাতা, সুনামগঞ্জ ॥ সুনামগঞ্জের ছাতক উপজেলার পৌর শহরের জালালিয়া আলিয়া মাদ্রাসা ও বনেসুর কৌমি মাদ্রাসার শিক্ষার্থীদের মধ্যে সংঘর্ষে একজন নিহত এবং শতাধিক আহত হয়েছে বলে জানা গেছে। নিহত যুবকের নাম আবদুল বাছিত বাবুল। সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়ার পথে মারা যান। নিহত যুবক ছাতক পৌর শহরের বাঘবাড়ি এলাকার আব্দুর রাজ্জাকের ছেলে। সোমবার বেলা ২টা থেকে প্রায় দুই ঘন্টাব্যাপী এ সংঘর্ষ চলে। সংঘর্ষ নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশ ৪০ রাউন্ড ফাকা গুলি ও ১০ রাউন্ড কাঁদানে গ্যাস নিক্ষেপ করেছে। সংঘর্ষের এক পর্যায়ে দুই পক্ষের সঙ্গে সাধারণ জনতাও অংশ নেয়। ছাতক পৌর শহর হয়ে উঠে রণক্ষেত্র। পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, ২৬, ২৭, ২৮ ফেব্রুয়ারি তিন দিন ব্যাপি ওয়াজ মাহফিলের আয়োজন করে ছাতক কওমী মাদ্রাসার শিক্ষার্থীরা। এ উপলক্ষ্যে জাওয়া বাজারে ব্যনার টানায় তারা। ব্যনারটি ছিড়ে ফেলে ছাতক আলীয়া মাদ্রাসার ছাত্ররা। এ নিয়ে রবিবার দিন ভর উত্তেজনা বিরাজ করে এবং দুপক্ষকে নিয়ে উপজেলা চেয়ারম্যান সবাইকে শান্ত থাকার নির্দেশনা দেন। কিন্তু সোমবার দুপুর ২টায় ছাতক জালালিয়া মাদ্রাসার ছাত্ররা ঢিল ছুরে কওমী মাদ্রসার ওয়াজ মাহফিলের ব্যানারে। এ নিয়ে দুই পক্ষ রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। সংঘর্ষে উভয় পক্ষের সঙ্গে সাধারণ জনতাও অংশ নেয়। এঘটনায় প্রায় শতাধিক দোকানও ভাংচুর করা হয়েছে বলে স্থানীয় ব্যাবসায়ীরা দাবি করেছেন। প্রায় দুই ঘন্টাব্যাপী সংঘর্ষ, বিকেল চারটার দিকে পুলিশ নিয়ন্ত্রণে আনতে সক্ষম হয়। আহতদের ছাতক স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সসহ সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করছে। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত (সন্ধা ৬টা) এলাকায় থমথমে অবস্তা বিরাজ করছে। শহরের প্রতিটি মোড়ে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। সুনামগঞ্জের পুলিশ সুপার হারুন অর রশিদ হতা-হতের বিষয় নিশ্চিত করে জানান, পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশ কাজ করে যাচ্ছে। এতে প্রায় অর্ধ শতাধিক লোকজন আহত হয়েছে বলে তিনি জানান।
monarchmart
monarchmart