শুক্রবার ১৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯, ২৭ মে ২০২২ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা
সর্বশেষ

সন্তানের জঙ্গী হয়ে ওঠার কাহিনী নিজ মুখে বললেন এক বিদেশী মা-

  • ঢাবিতে গোলটেবিল বৈঠক

বিশ^বিদ্যালয় রিপোর্টার ॥ ধর্মবিদ্বেষী গোষ্ঠী হঠাৎ ধর্ম সম্পর্কে কৌতূহলী হয়ে ওঠা তরুণদের বিপদগামী করতে নিজ ধর্ম সম্পর্কেও বিদ্বেষী করে তোলে। এমনকি মুসলিম ধর্মের তরুণদের ইসলাম ধর্ম সম্পর্কেও। আমার ছেলে সাবরিকে বলা হয়, ‘মসজিদে ঠিকভাবে নামাজ পড়ানো হয় না।’ আর এভাবেই তাকে বিপথগামী করে সিরিয়া যাওয়ার উস্কানি দেয়া হয়। আইএসে যোগ দেয়ার পর একপর্যায়ে সে সেখানেই যুদ্ধে নিহত হয়। ঠিক এমনভাবেই আইএসে যোগ দেয়া সন্তানের গল্প বললেন এক মা। তিনি তিউনিসীয় বংশোদ্ভূত সালিহা বেন আলী। তিনি বেলজিয়ামের নাগরিক। সিরিয়ায় গিয়ে সাবরির মৃত্যুর পর তিনি লজ্জায় লুকিয়ে থাকেননি। প্রথম ইউরোপীয়ান নারী হিসেবে ছেলের জঙ্গীবাদে জড়িয়ে পড়া নিয়ে মুখ খোলেন তিনি।

মঙ্গলবার সকালে ঢাকা বিশ^বিদ্যালয়ের নবাব নওয়াব আলী চৌধুরী সিনেট ভবনে ‘সোসাইটি এগেইনস্ট ভায়োলেন্ট এক্সট্রিমিজম (সেভ)’ শীর্ষক এক গোলটেবিল বৈঠকে আইএসে জড়িয়ে যাওয়ার গল্প শোনান তিনি। ইনোভেশন ফর ওয়েল বিং ফাউন্ডেশন এই অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। গোলটেবিল অনুষ্ঠানে বক্তারা তরুণদের চরম পন্থায় জড়ানো ও চরম পন্থা প্রতিরোধের বিষয়ে কথা বলেন।

সালিহা বেন আলীর বয়ানে সাবরি বেন আলীর পরিবর্তন ও আইএসে যোগ দেয়ার গল্পটা ছিল এমন। সাবরি আর দশটা কিশোর তরুণের মতোই স্বাভাবিক ছিল। নিয়মিত স্কুলে যেত। তার মাথায় সারাক্ষণ নানা প্রশ্ন কিলবিল করত। এমন এমন প্রশ্ন, যার উত্তর খুঁজে পাওয়া মুশকিল। গান ভালবাসত। খেলাধুলাও করত নিয়মিত। ছবি তুলতে তো খুব ভালবাসত।

সালিহা বলেন, মতপ্রকাশের স্বাধীনতার যে শর্ত বেলজিয়ামে মানা হয়, তার অপব্যবহার করত ওই লোকগুলো। তারা অন্য ধর্মের নামে বিদ্বেষপূর্ণ কথা বলত। সাবরিকে সিরিয়ায় যাওয়ার জন্য উস্কানী দিত। তারা সব ঘটনার পেছনেই ষড়যন্ত্র খুঁজত।

শীর্ষ সংবাদ:
ঢাকা টেস্টে লড়াই করছে সাকিব আর লিটন         সীমান্তে মাদক ও মানবপাচার রোধে কাজ করছে বিজিবি ॥ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী         বরিশালে পৃথক দুর্ঘটনায় তিনজন নিহত         সন্ত্রাসীদের হামলায় বুরকিনা ফাসোয় নিহত ৫০         বাজারে ডিমসহ বেড়েছে আটা, সবজি ও মুরগির দাম         অভিনেত্রী মঞ্জুষা নিয়োগীর ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার         মিয়ানমারে বেসামরিক নাগরিকদের সুরক্ষা একটি গুরুতর চ্যালেঞ্জ ॥ রাবাব ফাতিমা         প্রেস ক্লাবের সামনে বিএনপির নেতাকর্মীরা ॥ সতর্ক অবস্থানে পুলিশ         নীলফামারীতে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে বাস খাদে, আহত ৩২         পাক সরকারের রাষ্ট্রদ্রোহ মামলার আসামির নাম মুক্তিযোদ্ধার তালিকায় নেই         ইমরান খানসহ তেহরিক নেতাদের বিরুদ্ধে দুটি মামলা         বালিয়াতলীর ফেরি পারাপার নয় বছর ধরে বন্ধ         মুশফিকের আউটের পর সাকিব নেমেই আক্রমনাত্মক         আজ থেকে ৪৪তম বিসিএসের প্রিলিমিনারি পরীক্ষা শুরু হয়েছে         পেরুতে ৭ দশমিক ২ মাত্রার শক্তিশালী ভূমিকম্প অনুভূত         গত ২৪ ঘণ্টায় সারা বিশ্বে করোনায় মারা গেছেন এক হাজার ৪১৩ জন         অবৈধ ক্লিনিকের দৌরাত্ম্য ॥ ভুল চিকিৎসায় প্রতিনিয়ত মৃত্যু         ভবিষ্যত প্রজন্মের জন্য উন্নত জীবন নিশ্চিত করতে চাই         জঙ্গী নেতা আবদুল হাই যেভাবে ১৭ বছর আত্মগোপনে ছিলেন         জামিনে মুক্ত দুর্ধর্ষ অপরাধীদের ওপর চলবে নজরদারি