ঢাকা, বাংলাদেশ   শুক্রবার ২৭ জানুয়ারি ২০২৩, ১৪ মাঘ ১৪২৯

monarchmart
monarchmart

'নারী এবং আত্মঘাতী বেল্ট সবচেয়ে উদ্বেগের বিষয়'

প্রকাশিত: ১৮:৪৯, ২৫ ডিসেম্বর ২০১৬

'নারী এবং আত্মঘাতী বেল্ট সবচেয়ে উদ্বেগের বিষয়'

অনলাইন ডেস্ক ॥ ঢাকার আশকোনায় শনিবারের জঙ্গীবিরোধী অভিযানে নারীদের চরমপন্থায় সম্পৃক্ত হওয়ার উদাহরণ এবং আত্মঘাতী বেল্টের ব্যবহার প্রধান দুটি উদ্বেগজনক বিষয় হিসেবে দেখছেন নিরাপত্তা বিশ্লেষক অবসরপ্রাপ্ত ব্রিগেডিয়ার শাখাওয়াত হোসেন। বিবিসির সাথে এক সাক্ষাতকারে তিনি বলেন, "ঢাকার আশেপাশেই তাদেরকে (জঙ্গীদের) এখন সংগঠিত হতে দেখা যাচ্ছে"। ঢাকাকে কেন্দ্র করে জঙ্গীদের সংগঠিত হবার চেষ্টা করার কারণ ব্যাখ্যা করতে গিয়ে মি. হোসেন বলেন, "যখনি এধরণের কর্মকাণ্ড হয়, তখনি ফোকাস থাকে যে যেই জায়গাটায় এধরণের কর্মকাণ্ড চালালে সেটা আন্তর্জাতিক খবরে পরিণত হবে এবং আন্তর্জাতিকভাবে প্রতিক্রিয়া তৈরি করবে। জঙ্গি সংগঠণগুলোর টার্গেট সবমসময়ই থাকে যে জায়গা থেকে তারা সবচেয়ে বেশি প্রোপাগান্ডা ভ্যালুটা তারা পাবে"। ঢাকাকে 'আনম্যানেজেবল্ সিটি' হিসেবে উল্লেখ করে তিনি বলেন, এখানে নিয়ন্ত্রণ করাটা আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর জন্যও বেশ কঠিন। শনিবার ঢাকার আশকোনায় একটি বাড়িতে পুলিশের অভিযানে একজন নারী আত্মঘাতী জঙ্গী নিহত হয় এবং পুলিশের সাথে গোলাগুলির পর অপর এক কিশোরও নিহত হয়। মি. হোসেন বলেন, জঙ্গি সংগঠণগুলোর ওপর চাপ পড়ার কারণে তারা এখন একটি ভিন্ন কৌশল অবলম্বনের চেষ্টা করছে। নতুন করে সংগঠিত হওয়া, অস্ত্র সংগ্রহ এবং প্রশিক্ষণের বিষয়টিই তাদের কাছে গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠেছে বলে তিনি মনে করছেন। "নতুনভাবে আবার কিছু তরুণ যাদেরকে বলা হচ্ছে হারিয়ে গেছে, তাদের হদিশ কিন্তু পুলিশ এখনো পর্যন্ত পায়নি। এইসমস্ত বিষয় কিন্তু একটি ইন্ডিকেশন যে, এই সময়টাতে আবার তারা নতুনভাবে সংগঠিত হওয়ার চেষ্টা করছে তাতে কোন সন্দেহ নাই"। সম্প্রতি ঢাকার বেসরকারী বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র এবং চাকুরিজীবীসহ অন্তত ৬ জন তরুণ নিখোঁজ হয়। পুলিশের সন্দেহ, তারা উগ্রপন্থার দিকে ঝুঁকে পড়ে বাড়ি ছাড়তে পারে। সূত্র : বিবিসি বাংলা
monarchmart
monarchmart

শীর্ষ সংবাদ:

কর্মক্ষেত্রে দায়িত্ব ও ক্ষমতার পার্থক্য সচেতনভাবে বজায় রাখুন
সব রেকর্ড ভেঙে দুইদিনে পাঠানের আয় ১২৭ কোটি!
শীতের তীব্রতা কমায় বোরো ধান লাগাতে ব্যস্ত চুয়াডাঙ্গার কৃষকরা
নেপালের আসিফ পেলেন আইসিসির পুরস্কার, কৃতিত্ব কী তার!
দাম বৃদ্ধি সঠিক সিদ্ধান্ত, অন্যথায় চিনিই পাওয়া যেত না: বাণিজ্যমন্ত্রী
আর একজন রোহিঙ্গাকেও আশ্রয় দেবে না বাংলাদেশ
হলুদ-সবুজ চিহ্নিত এলাকায় ব্যবসা করতে পারবেন হকাররা
নাকে দেওয়ার করোনা ভ্যাকসিন ‘ইনকোভ্যাক’ আনল ভারত
হেফাজতে ইসলাম কারও কাছেই মুচলেকা দেয়নি, দেবেও না
কৃষকের ১০ হাজার একর জমি হাতছাড়া
নেত্রী আমাকে ক্ষমা করেছেন
এ সরকারের আমলে ডিজিটালি ব্যাংক ডাকাতি হচ্ছে ॥ আমীর খসরু
চিনির কেজিতে বাড়ল ৫ টাকা