ঢাকা, বাংলাদেশ   মঙ্গলবার ০৯ আগস্ট ২০২২, ২৫ শ্রাবণ ১৪২৯

পরীক্ষামূলক

তালগাছ সবার হতে হবে ॥ রিজভী

ওবায়দুল কাদেরের বক্তব্যে রাষ্ট্রপতির সংলাপ নিয়ে বিএনপির সংশয়

প্রকাশিত: ০৬:১৭, ২০ ডিসেম্বর ২০১৬

ওবায়দুল কাদেরের বক্তব্যে রাষ্ট্রপতির সংলাপ নিয়ে বিএনপির সংশয়

স্টাফ রিপোর্টার ॥ ইসি গঠন নিয়ে রাষ্ট্রপতির সঙ্গে বিএনপি সংলাপ নিয়ে শুরু হয়েছে কাদা ছোড়াছুড়ি। গত রবিবার এক অনুষ্ঠানে এ বিষয়ে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের এ সংলাপের সফলতা নিয়ে সংশয় প্রকাশ করেন। তিনি বলেন সালিশ মানি তালগাছ আমার, এই যদি হয় বিএনপির অবস্থা তাহলে সংলাপ সফল হবে না। এর জবাবে সোমবার এক সংবাদ সম্মেলনে বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেন, রাষ্ট্রপতির সঙ্গে বৈঠকের সফলতা নিয়ে ওবায়দুল কাদেরের সংশয় প্রকাশ দুঃখজনক। এখন তো আমাদের মনে প্রশ্ন দেখা দিয়েছে আসলে ক্ষমতাসীন দল কি চায়। একই সঙ্গে ওবায়দুল কাদেরের প্রশ্নের জবাবে রিজভী বলেন, তালগাছ সবার হতে হবে। সেখানে সবার সমর্থন থাকতে হবে। আস্থা থাকতে হবে। এটাই বড় বিষয় উল্লেখ করেন তিনি। গত রবিবার ইসি গঠন নিয়ে বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার নেতৃত্বে ১১ সদস্যের একটি প্রতিনিধি দল বঙ্গভবনে রাষ্ট্রপতির সঙ্গে বৈঠক করেন। প্রায় এক ঘণ্টা বৈঠক শেষে বিএনপির পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে এ বৈঠক ফলপ্রসু হয়েছে। বৈঠক শেষে সম্মেলনে বিএনপি মহাসচিব বলেন, এ সংলাপে বিএনপি খুশি ও আশাবাদী। রাষ্ট্রপতি মোঃ আবদুল হামিদ বলেছেন, এ বৈঠকে ইসি গঠনে বিএনপি যে প্রস্তাব দিয়েছে তা নির্বাচন কমিশন গঠনে সহায়ক হবে। অবশ্য ওইদিন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবাদুল কাদের রাজধানীর বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে বিএনপির সঙ্গে রাষ্ট্রপতির এ সংলাপের সফলতা নিয়ে সংশয় প্রকাশ করেন। সোমবার বঙ্গবন্ধু মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের অডিটরিয়ামে এক অনুষ্ঠানেও বলেন, রাষ্ট্রপতির সঙ্গে দেখা করে বিএনপি যে আশাবাদী মনোভাব পোষণ করছে এবং খুশি খুশি ভাব প্রকাশ করেছে তা যেন শেষ পর্যন্ত থাকে। এই খুশি ভাব যেন শেষ পর্যন্ত বিষাদে পরিণত না হয়। এর জবাবে পল্টন দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে বিএনপির পক্ষ থেকে এক সংবাদ সম্মেলনের আয়োাজ করা হয়েছে। এতে দলের সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী সাংবাদিকদের বলেন, রাষ্ট্রপতি যেখানে বিএনপির প্রস্তাবকে সাধুবাদ জানিয়েছেন সেখানে আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে এ ধরনের সংশয় প্রকাশ করা দুঃখজনক। বিএনপির প্রস্তাবে কোথাও কারও নাম উল্লেখ করা হয়নি। ১৩ দফা প্রস্তাবের কোথায় কী বলা আছে যে বিএনপি সমর্থিত ব্যক্তি বাছাই কমিটির আহ্বায়ক হবেন। বিএনপি সমর্থিত বুদ্ধিজীবীরা ও অবসরপ্রাপ্ত বিচারপতিরা সেখানে নির্বাচন কমিশনার হবেন, একথা তো বলেননি। বিএনপির প্রস্তাবে দল সমর্থিত কাউকে সার্চ কমিটি অথবা নির্বাচন কমিশনের নিয়োগের জন্য সুপারিশ করেনি। বরং বিএনপি সবার কাছে গ্রহণযোগ্য, নিরপেক্ষ নির্বাচন কমিশন গঠনের কথা বলেছে। প্রয়োজনে আরও নিরপেক্ষ কাউকে ইসিতে নিয়োগের জন্য কার্যকর উদ্যোগ নিতে অন্যান্য রাজনৈতিক দলের সঙ্গে আলোচনা করার কথা বলা হয়েছে। বেগম খালেদা জিয়া বলেছেন সবার কাছে গ্রহণযোগ্য, দলনিরপেক্ষ, যোগ্য একজন সাবেক প্রধান বিচারপতি হবেন বাছাই কমিটির আহ্বায়ক এবং অন্যান্য যারা সদস্য হবেন, তারাও হবেন সবার কাছে গ্রহণযোগ্য, দলনিরপেক্ষ ও যোগ্য ব্যক্তি। এখানে নীতি-নৈতিকতা-নিরপেক্ষতার ব্যত্যয় কী ঘটল? তিনি বলেন, যদি ক্ষমতাসীনদের সদিচ্ছা থাকে, তাহলে অবশ্যই সবার কাছে গ্রহণযোগ্য সার্চ কমিটি হবে এবং একটা শক্তিশালী নির্বাচন কমিশন হবে। সংবিধানে নির্দেশনা আছে শক্তিশালী নির্বাচন কমিশন গঠনের ক্ষেত্রে আইন তৈরি করতে হবে। কিন্তু এখনও তা হয়নি। রিজভী বলেন, রাষ্ট্রপতির সঙ্গে বৈঠকে পর বিপন্ন গণতন্ত্র থেকে গণতন্ত্রের শুভযাত্রার একটা ইঙ্গিত এবং আলোর রেখা দেখতে পেলাম।
ডিজিটাল বাংলাদেশ পুরস্কার ২০২২
ডিজিটাল বাংলাদেশ পুরস্কার ২০২২