মঙ্গলবার ৪ মাঘ ১৪২৮, ১৮ জানুয়ারী ২০২২ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা
সর্বশেষ

মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত কাদের ও তার স্ত্রী যাবজ্জীবনপ্রাপ্ত রুনাসহ সবাই খালাস

  • বুশরা হত্যা মামলা

স্টাফ রিপোর্টার ॥ দীর্ঘ ১৬ বছর আগে মালিবাগের চৌধুরীপাড়ায় চাঞ্চল্যকর কলেজছাত্রী রুশদানিয়া বুশরা হত্যা মামলায় মৃত্যুদ-প্রাপ্ত এমএ কাদের ও তার স্ত্রী যাবজ্জীবন কারাদ-প্রাপ্ত রুনা আক্তারসহ চারজনের সবাইকে খালাস দিয়েছে আপীল বিভাগ। প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহার নেতৃত্বে চার সদস্যের আপীল বেঞ্চ মঙ্গলবার এ রায় দেয়। নিম্ন আদালতে মৃত্যুদ- পাওয়া ও পরে হাইকোর্টে খালাস পাওয়া দুজনের খালাস আদেশ বহাল রয়েছে। তারা হলেন- এমএ কাদেরের দুই শ্যালক শেখ শওকত আহমেদ ও শেখ কবির আহমেদ। আদালতে রাষ্ট্রপক্ষে শুনানি করেন ডেপুটি এ্যাটর্নি জেনারেল খোন্দকার দিলীরুজ্জামান। আসামিপক্ষে ছিলেন সিনিয়র আইনজীবী খন্দকার মাহবুব হোসেন।

ডেপুটি এ্যাটর্নি জেনারেল খোন্দকার দিলীরুজ্জামান জানান, রায়ের কপি পাওয়ার পর পর্যালোচনা করে রিভিউয়ের বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে। ২০০০ সালের ১ জুলাই কলেজছাত্রী বুশরাকে ধর্ষণের পর হত্যা করা হয়। বুশরার বাবা সহকারী পুলিশ সুপার সিরাজুল ইসলাম সে সময় অবসরকালীন ছুটিতে যুক্তরাষ্ট্রে ছিলেন। বুশরার মা লায়লা ইসলাম হত্যাকা-ের পরদিন রমনা থানায় মামলা দায়ের করেন। ময়নাতদন্ত প্রতিবেদনে বলা হয়, ধর্ষণের পর ধারালো অস্ত্র দিয়ে হত্যা করা হয় বুশরাকে। ২০০০ সালের ৫ অক্টোবর একটি সম্পূরক অভিযোগ দাখিল করেন বুশরার মা। সেখানে বুশরার খালুর সৎভাই কাদের, তার স্ত্রী রুনা ও কাদেরের শ্যালক মোঃ শওকত আহমেদ ও কবির আহমেদকে আসামি করা হয়। প্রথমে পুলিশ ও পরে সিআইডি এ মামলার তদন্ত করে ২০০০ সালের ১৯ ডিসেম্বর আদালতে অভিযোগপত্র দেয়। সেখানে কাদেরের শ্যালিকা কানিজ ফাতেমা হেনা ও কাজের মেয়ে সুফিয়াকেও আসামি করা হয়।

২০০৩ সালের ৩০ জুন বুশরা হত্যা মামলায় বিচারিক আদালত রায় দেয়। রায়ে তিনজনকে মৃত্যুদণ্ড ও রুনা আক্তারকে যাবজ্জীবন কারাদ- দেয়া হয়। ওই রায়ের বিরুদ্ধে আসামিরা আপীল করেন। ডেথ রেফারেন্স শুনানির জন্য হাইকোর্টে আসে।

দীর্ঘ শুনানি শেষে ২০০৭ সালের ২৯ জানুয়ারি বিচারপতি মোহাম্মদ ইমান আলী ও বিচারপতি ফজলুর রহমানের হাইকোর্ট বেঞ্চ কাদেরের মৃত্যুদ- ও রুনা আক্তারের যাবজ্জীবন কারাদ- বহাল রেখে বাকিদের খালাস দেয়। ওই রায়ের বিরুদ্ধে আপীল করেছিল দুই পক্ষই। মঙ্গলবার আপীল বিভাগের রায়ে দুই আসামির আপীল মঞ্জুর হয়, ফলে খালাস পান তারা। অন্যদিকে হাইকোর্টে দুই আসামির খালাসের রায়ের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রপক্ষের আপীল সর্বোচ্চ আদালত খারিজ করে দেয়ায় আগের রায়ই বহাল থাকে। রায়ের পর মোহাম্মদ দিলীরুজ্জামান বলেন, চাক্ষুষ সাক্ষী না থাকায় ন্যায়বিচার পাওয়া যায়নি। মঙ্গলবার হাইকোর্ট মৃত্যুদণ্ড প্রাপ্ত দুজনের আপীল মঞ্জুর করেছে। আর আমাদের আপীল খারিজ করেছে। খন্দকার মাহবুব বলেন, নিম্ন আদালত সন্দেহের বশবর্তী হয়ে রায় দিয়েছিল। বুশরাকে অজানা ব্যক্তিরা ধর্ষণ করে হত্যা করেছে।

শীর্ষ সংবাদ:
ইসি গঠনে আইন হচ্ছে ॥ সরকারের যুগান্তকারী পদক্ষেপ         সংলাপে আওয়ামী লীগের ৪ প্রস্তাব         নেতিবাচক রাজনীতির ভরাডুবি হয়েছে ॥ কাদের         আগামী সংসদ নির্বাচনও চমৎকার হবে ॥ তথ্যমন্ত্রী         ইভিএমে ভোট দ্রুত হলে জয়ের ব্যবধান বাড়ত ॥ আইভী         পন্ডিত বিরজু মহারাজ নৃত্যালোক ছেড়ে অনন্তলোকে         উত্তাল শাবি ॥ ভিসির পদত্যাগ দাবিতে বাসভবন ঘেরাও         দুর্নীতি মামলায় ওসি প্রদীপের সাক্ষ্যগ্রহণ পেছাল         আমিরাতে ড্রোন হামলায় নিহত ৩         কখনও ওরা মন্ত্রীর আত্মীয়, কখনও নিকটজন         সোনারগাঁয়ে পিকআপ ভ্যান খাদে পড়ে দুই পুলিশের এসআই নিহত         ইসি গঠন : রাষ্ট্রপতিকে আওয়ামী লীগের ৪ প্রস্তাব         ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের ১০ সদস্যের প্রতিনিধি দল রাষ্ট্রপতির সংলাপে বসেছে         দেশে ২৪ ঘণ্টায় করোনায় মৃত্যু ১০, নতুন শনাক্ত ৬,৬৭৬         সংক্রমণের হার ২০ শতাংশ ছাড়িয়েছে : স্বাস্থ্য মহাপরিচালক         স্বাস্থ্যবিধি মানাতে ‘অ্যাকশনে’ যাবে সরকার         না’গঞ্জে নেতিবাচক রাজনীতির ভরাডুবি হয়েছে ॥ কাদের         সিইসি ও ইসি নিয়োগ আইন মন্ত্রিসভায় অনুমোদন