বৃহস্পতিবার ৯ আশ্বিন ১৪২৭, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২০ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা
সর্বশেষ

ইয়াসমিন থেকে তনু আর মিতু

আজ থেকে ২১ বছর আগে ১৯৯৫ সালের ২৩ আগস্ট। মাত্র ১৩ বছরের কিশোরী ইয়াসমিন ঢাকা থেকে রাতের বাসে ওঠে দিনাজপুরে যাওয়ার উদ্দেশে। ঠাকুরগাঁওগামী একটি বাসে করে সে দিনাজপুর আসলে ভোরে বাসের হেলপার ইয়াসমিনকে জেলার দশমাইল মোড়ে নামিয়ে দেয়। এর অল্পক্ষণ পর কোতোয়ালি পুলিশের টহল দেয়া পিকআপ আসে দশমাইল মোড়ে। পিকআপের পুলিশরা ইয়াসমিনকে তুলে নেয় তাকে তার জায়গামতো পৌঁছে দেবে বলে। কিন্তু পুলিশরা সেটা না করে ইয়াসমিনের ওপর সবাই মিলে পাশবিক নির্যাতন চালায়। শুধু তাই নয়, শেষ অবধি তাকে হত্যাও করে। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর কাছেও নারীরা নিরাপদ নয় এর থেকে মর্মান্তিক আর কি হতে পারে? টানা ৪ দিন পুরো দিনাজপুরে চলে বিক্ষোভ, আন্দোলনসহ নানা প্রতিবাদমূলক কর্মসূচী। পাশাপাশি সমানে চলতে থাকে এই উত্তাল কার্যক্রমের ওপর পুলিশী নির্যাতনও। পুলিশের গুলিতে প্রাণ হারায় ৭ জন আন্দোলনকারী। আহত হয় দুই শতাধিকেরও ওপর। একসময় এই প্রতিবাদ-প্রতিরোধ ও আন্দোলন দিনাজপুর শহর থেকে সারা বাংলায় ছড়িয়ে পড়ে। সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠন থেকে আরম্ভ করে নানা পেশাজীবী সংগঠনও এই আন্দোলনের সঙ্গে সম্পৃক্ত হয়ে যায়। খালেদা জিয়া-সরকারের তখন ক্ষমতার পাঁচ বছরপূর্তির একেবারের শেষ পর্যায়ে। অভিযুক্তদের বিচারের দাবিতে পুরো দেশ উত্তপ্ত হয়ে ওঠে। দেশবাসীর রোষানলের মুখে সরকার অভিযুক্তদের বিচারের মুখোমুখি করতে বাধ্য হয়। মামলা হয়, মামলা কোর্টে ওঠে, বিচারি কার্যক্রম এক চূড়ান্ত পর্যায়ে পৌঁছায়। রায়ে অভিযুক্তদের ফাঁসিতে ঝুলিয়ে মৃত্যুদ- দেয়ার নির্দেশ দেয়া হয়। রায়ের পরিপ্রেক্ষিতে ২০০৪ সালে আগস্ট মাসে অভিযুক্তদের ফাঁসি কার্যকর করা হয় একই ঘটনার পুনরাবৃত্তি ঘটে ২০১৬ সালের এপ্রিল মাসে। কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া কলেজের মেধাবী ছাত্রী ও সংস্কৃতিকর্মী সোহাগী জাহান তনুকে কুমিল্লা সেনানিবাসের নিরাপত্তা বেষ্টনীর মধ্যে ধর্ষণের পর হত্যা করা হয়। পরিতাপের বিষয়। আজও অভিযুক্তদের শনাক্ত করা যায়নি। তদন্তেরও কোন সুরাহা হয়নি। তনু হত্যার পরও সারাদেশ বিক্ষোভে ফেটে পড়েছিল। কুমিল্লা থেকে দেশব্যাপী এই আন্দোলন ছড়িয়ে পড়ে। কিন্তু কোন আন্দোলন বিক্ষোভ, প্রতিবাদ, প্রতিরোধেও তনু হত্যার কোন কূল-কিনারা করা যায়নি। জুন মাসেও ঘটে আর এক নির্মম-নৃশংস, হৃদয়-বিদারক হত্যাকা-। পুলিশ কর্মকর্তা বাবুল আখতারের স্ত্রী মাহমুদা খাতুন মিতুকে প্রকাশ্যে, দিবালোকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে অমানবিকভাবে হত্যা করা হয়। সবাই আশা করেছিল দক্ষ, সহাসী, সৎ, আদর্শনিষ্ঠ পুলিশ কর্মকর্তার স্ত্রীর হত্যার বিচার কেউই রোধ করতে পারবে না। কিন্তু এখানেও একই পরিণতি। মিতু হত্যাকারীদের এখনও পর্যন্ত চিহ্নিত করা যায়নি, সুষ্ঠু তদন্ত এগোনের বদলে পিছিয়ে গেছে। বরং পুলিশ কর্মকর্তা তার নিজের অর্জন করা এই সম্মানের পেশাটি পর্যন্ত ধরে রাখতে পারলেন না। নানাবিধ মানসিক চাপের মধ্যে তাকে চাকরিচ্যুত করা হয়। জানি না এই দুটো নৃশংস, পাশবিক হত্যাকা-ের দায় কাদের? তারা কি আদৌ কোনদিন ধরা পড়বে? কখনই কি তাদের বিচারের মুখোমুখি করা যাবে? তনু এবং মিতুর পরিবার তাদের একান্ত আপনজনের হত্যার বিচার কি কোনদিনই পাবে? এসব প্রশ্নের উত্তর সময়ের ওপর ছেড়ে দেয়া ছাড়া আর কোন পথ নেই।

আরতি নাহার

শীর্ষ সংবাদ:
নির্যাতিত রোহিঙ্গাদের ৫৪০ কোটি ডলার ক্ষতিপূরণ দেয়া উচিত         হাসপাতালগুলো ডাকাতির মত পয়সা নিচ্ছে ॥ মেয়র আতিক         মসজিদে বিস্ফোরণ ॥ ৩৫ পরিবারকে ৫ লাখ টাকা করে অনুদান         করোনা ভাইরাসে আরও ২৮ জনের মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ১৫৪০         নুর অপরাধ করলে বিচার করুন, হয়রানি করবেন না ॥ ডা. জাফরুল্লাহ         সৌদি-ওমানের সব ফ্লাইট ১ অক্টোবর থেকে চালু হবে ॥ পররাষ্ট্রমন্ত্রী         স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার ক্ষেত্রে অনেকের মধ্যে গা-ছাড়া ভাব দেখা দিয়েছে ॥ সেতুমন্ত্রী         এনু-রুপনের বিরুদ্ধে চার্জশিট গ্রহণ         স্বাস্থ্যবিধি মেনে শিশুদের টিকা দেওয়ার আহ্বান মেয়র তাপসের         করোনা ভাইরাস ॥ ভারতে একদিনে ১১২৯ জনের মৃত্যু         করোনায় ভারতের রেল প্রতিমন্ত্রী সুরেশ আঙ্গাদির মৃত্যু         সৌদি আরবের ভিসা ও টিকেট নিতে গিয়ে বিশৃঙ্খলা না করার অনুরোধ         নারায়ণগঞ্জে ‘মৃত’ ছাত্রীর ফিরে আসা ॥ বিচারিক অনুসন্ধানের নির্দেশ         বাবা-মায়ের আদরের ভাগ না দিতে ছোট বোনকে খুন করে বড় ভাই         অবশেষে জার্মানে আজানের অনুমতি পেলেন মুসলিমরা         দক্ষিণ কোরীয়ার কর্মকর্তাকে হত্যা করে মৃতদেহ পুড়িয়ে ফেলেছে পিয়ংইয়ং         সৌদি প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা ভারতসহ তিন দেশের নাগরিকদের         এবার কিউবার ওপর মার্কিন নিষেধাজ্ঞা         সংসদ ভবন উন্নয়ন কার্যক্রমের উপস্থাপনা প্রত্যক্ষ করলেন প্রধানমন্ত্রী         সৌদিতে আকামার মেয়াদ বাড়ল ২৪ দিন