মঙ্গলবার ৪ মাঘ ১৪২৮, ১৮ জানুয়ারী ২০২২ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা
সর্বশেষ

ব্রিটেনে প্রধানমন্ত্রীর দৌড় থেকে সরে দাঁড়ালেন বরিস জনসন

জনকণ্ঠ ডেস্ক ॥ ব্রিটেনে ২৩ জুনের গণভোটে ইইউ থেকে বেরিয়ে যাওয়ার পক্ষে রায় হওয়ার পর ধরেই নেয়া হচ্ছিল লন্ডনের সাবেক মেয়র বরিস জনসনই হচ্ছেন পরবর্তী প্রধানমন্ত্রী। ভোটের পরদিন প্রধানমন্ত্রী ক্যামেরন পদত্যাগের পর সেই ধারণা আরও জোরালো হয়েছিল। কারণ ইইউ ছাড়ার পক্ষের প্রচারে বরিস জনসনই নেতৃত্ব দিয়েছিলেন। গণভোটে অপ্রত্যাশিত ফলের কৃতিত্ব তাকেই দিচ্ছিলেন অধিকাংশ বিশ্লেষক। কিন্তু বৃহস্পতিবার প্রার্থী হওয়ার সময়সীমা শেষের কয়েক মুহূর্ত আগে দুই বার নির্বাচিত লন্ডনের সাবেক মেয়র অপ্রত্যাশিতভাবে লড়াইয়ে না নামার সিদ্ধান্ত জানান। তার এই ঘোষণাকে নাটকীয় বললে কম বলা হবে, ব্রিটেনের বিশ্লেষকরা একে একটা রাজনৈতিক বোমা ফাটানোর সঙ্গে তুলনা করছেন। কেন তিনি এই সিদ্ধান্ত নিয়েছেন, তা এখনও পরিষ্কার করেননি। তার এই সিদ্ধান্ত অনেককেই হতবাক করেছে। তবে এই নাটকীয়তার আগে বৃহস্পতিবার আরও নাটকীয় ঘটনা ঘটেছে, ব্রিটেনের রাজনীতিতে। ইইউ ছাড়ার পক্ষে বরিস জনসনের সবচেয়ে ঘনিষ্ঠ সহযোগী ছিলেন যিনি, কনজারভেটিভ পার্টির আরেক নেতা, মাইকেল গোভ, তিনি হঠাৎ বৃহস্পতিবার দলের নেতা হওয়ার জন্য প্রার্থী হয়েছেন। অথচ আশা করা হচ্ছিল, মাইকেল গোভ বরিস জনসনকেই সমর্থন দেবেন এবং তার অন্যতম সহযোগী হিসেবে পাশে থাকবেন। খবর বিবিসি অনলাইনের।

বিশ্লেষকরা বলছেন, বরিস জনসন হয়ত আশঙ্কা করছেন যে জেতার জন্য যত এমপির সমর্থন দরকার হবে, তার হয়ত সেই সমর্থন নেই।

বরিস জনসনের এ ঘোষণার পর ক্ষমতাসীন কনজারভেটিভ পার্টির পরবর্তী নেতা এবং পরবর্তী প্রধানমন্ত্রী কে হচ্ছেনÑ সেটাই এখন বড় প্রশ্ন। এখন পর্যন্ত যারা কনজারভেটিভ পার্টির নেতার হওয়ার জন্য প্রার্থী হয়েছেন, তাদের মধ্যে এখন সবচেয়ে সুবিধাজনক অবস্থানে চলে এসেছেন টেরেসা মে, যিনি এখন সরকারের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী। ইউরোপীয় ইউনিয়ন প্রশ্নে গণভোটে তিনি সরাসরি কোন পক্ষ নেননি, ফলে দলের উভয় অংশের দিক থেকে তিনি সমর্থন পাবেন বলে মনে করা হচ্ছে। ধরে নেয়া হচ্ছে টেরেসা মের প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী হবেন ব্রেক্সিটপন্থী বিচারমন্ত্রী মাইকেল গোভ।

বিরোধী লেবার পার্টিতেও নেতৃত্ব নিয়ে বড় ধরনের বিরোধ তৈরি হয়েছে। লেবার পার্টি ছিল ইইউতে থাকার পক্ষে, কিন্তু গণভোটে হেরে যাওয়ার পর অনেকেই দলের নেতা জেরেমি করবিনের নেতৃত্বের সমালোচনা করে রীতিমতো বিদ্রোহ করেছেন। তার ছায়া মন্ত্রিসভার বেশিরভাগ সদস্য পদত্যাগ করেছেন। দলের পার্লামেন্টারি পার্টির বেশিরভাগ সদস্য তার বিরুদ্ধে অনাস্থা এনে তার পদত্যাগ দাবি করেছেন। ইইউ থেকে বেরিয়ে আসার সিদ্ধান্ত নেয়ার পর ব্রিটেনের বড় দুটি দলেই এখন কার্যত নেতৃত্বশূন্যতা দেখা যাচ্ছে।

শীর্ষ সংবাদ:
ইসি গঠনে আইন হচ্ছে ॥ সরকারের যুগান্তকারী পদক্ষেপ         সংলাপে আওয়ামী লীগের ৪ প্রস্তাব         নেতিবাচক রাজনীতির ভরাডুবি হয়েছে ॥ কাদের         আগামী সংসদ নির্বাচনও চমৎকার হবে ॥ তথ্যমন্ত্রী         ইভিএমে ভোট দ্রুত হলে জয়ের ব্যবধান বাড়ত ॥ আইভী         পন্ডিত বিরজু মহারাজ নৃত্যালোক ছেড়ে অনন্তলোকে         উত্তাল শাবি ॥ ভিসির পদত্যাগ দাবিতে বাসভবন ঘেরাও         দুর্নীতি মামলায় ওসি প্রদীপের সাক্ষ্যগ্রহণ পেছাল         আমিরাতে ড্রোন হামলায় নিহত ৩         কখনও ওরা মন্ত্রীর আত্মীয়, কখনও নিকটজন         সোনারগাঁয়ে পিকআপ ভ্যান খাদে পড়ে দুই পুলিশের এসআই নিহত         ইসি গঠন : রাষ্ট্রপতিকে আওয়ামী লীগের ৪ প্রস্তাব         ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের ১০ সদস্যের প্রতিনিধি দল রাষ্ট্রপতির সংলাপে বসেছে         দেশে ২৪ ঘণ্টায় করোনায় মৃত্যু ১০, নতুন শনাক্ত ৬,৬৭৬         সংক্রমণের হার ২০ শতাংশ ছাড়িয়েছে : স্বাস্থ্য মহাপরিচালক         স্বাস্থ্যবিধি মানাতে ‘অ্যাকশনে’ যাবে সরকার         না’গঞ্জে নেতিবাচক রাজনীতির ভরাডুবি হয়েছে ॥ কাদের         সিইসি ও ইসি নিয়োগ আইন মন্ত্রিসভায় অনুমোদন