শনিবার ২০ আষাঢ় ১৪২৭, ০৪ জুলাই ২০২০ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা
সর্বশেষ

অবসরের পরে রায় লেখা বন্ধ হলে সাংবিধানিক সঙ্কট সৃষ্টি হবে

অবসরের পরে রায় লেখা বন্ধ হলে সাংবিধানিক সঙ্কট সৃষ্টি হবে
  • প্রধান বিচারপতিকে দেয়া চিঠিতে বিচারপতি মানিকের মন্তব্য

আরাফাত মুন্না ॥ অবসরে যাবার পরে বিচারপতিদের রায়ে স্বাক্ষর না করতে দিতে প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার (এসকে) সিনহা যে সিদ্ধান্ত নিয়েছেন, তাতে দেশে চরম সাংবিধানিক সঙ্কট সৃষ্টি হবে বলে অভিযোগ করেছেন সুপ্রীমকোর্টের আপীল বিভাগের অবসরপ্রাপ্ত বিচারপতি এএইচএম শামসুদ্দিন চৌধুরী মানিক। গত ১০ জানুয়ারি প্রধান বিচারপতিকে পাঠানো এক চিঠিতে তিনি এ অভিযোগ করেন। মঙ্গলবার ওই চিঠির একটি অনুলিপি জনকণ্ঠের হাতে আসে।

চিঠিতে প্রধান বিচারপতিকে তিনি বলেন, আপনি (প্রধান বিচারপতি) আমার দ্বারা লিখিত অপেক্ষমাণ

রায়সমূহ লেখার ক্ষেত্রে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করে আমার সাংবিধানিক অধিকারে হস্তক্ষেপ করেছেন ও লঙ্ঘন করছেন। তিনি চিঠিতে লিখেন, অবসপ্রাপ্ত বিচারপতিদের রায়ে স্বাক্ষর করতে না দেয়ার সিদ্ধান্তে সংবিধানের ১৫তম, ১৩তম, পঞ্চম, সপ্তম সংশোধনীর মামলার রায়, জেল হত্যা মামলার রায়, মাজদার হোসেন মামলার রায়সহ অনেক সাংবিধানিক গুরুত্বপূর্ণ মামলার রায় প্রশ্নবিদ্ধ হবে।

কারণ হিসেবে চিঠিতে বিচারপতি মানিক বলেন, এসব মামলার রায় বিচারপতিরা অবসরে যাওয়ার পরে লিখেছেন। ফলে আপনার গৃহিত সিদ্ধান্তের কারণে এসব রায় প্রশ্নবিদ্ধ হলে দেশে চরম সাংবিধানিক সঙ্কট সৃষ্টি হবে। বিচারপতি মানিক আরও বলেন, এ ধরনের আইনগত ভিত্তিহীন প্রশাসনিক সিদ্ধান্তের দ্বারা আপনি দেশকে চরম সাংবিধানিক সঙ্কটের দিকে ঠেলে দিচ্ছেন বলে, আমি রাষ্ট্রের স্বার্থে আগেও আপনাকে বিষয়টি অবহিত করেছি।

তিনি প্রধান বিচারপতির উদ্দেশে আরও বলেন, রায় লেখার জন্য আমাকে অফিস না দেয়া আপনার ব্যক্তিগত হীনমন্যতা হিসেবে বিবেচনা করে আমি আমার ওপর অর্পিত দায়িত্ব পালনের জন্য অবসরপ্রাপ্ত বিচারপতিদের কক্ষে বসেও কাজ করতে আপত্তি করি নাই, যদিও আমার ব্যবহৃত অফিস এখনও খালি পড়ে আছে। বিচারপতি মানিক চিঠিতে বলেন, আপনার সৃষ্ট প্রতিবন্ধকতা থাকা সত্ত্বেও আমি অনেক অপেক্ষমাণ রায় লেখা শেষ করেছি। প্রতিবন্ধকতা না থাকলে এ সময়ের মধ্যে আমি প্রায় সকল অপেক্ষমাণ রায় লেখা শেষ করতে সক্ষম হতাম।

চিঠিতে বিচারপতি মানিক আরও বলেন, অবসরগ্রহণের পর আমি প্রায় তিন মাস রায় লেখা থেকে বঞ্চিত থেকেছি। আবার গত ১ জানুয়ারি থেকে প্রয়োজনীয় সুবিধাসমূহ বন্ধ করে দেয়ায় আবার আমি রায় লেখা থেকে বঞ্চিত হচ্ছি। আপনার এহেন কর্মকা- আমার রায় লেখার ক্ষেত্রে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করছে এবং এরূপ কাজ ন্যায়বিচার ও আদালতের প্রথা বিরুদ্ধ।

প্রধান বিচারপতির উদ্দেশে বিচারপতি মানিক বলেন, আপনার এ আইনগত ভিত্তিহীন ফরমান কার্যকর হলে অবসরে যাওয়ার কয়েক মাস আগে থেকেই সকল বিচারপতিকে বিচারিক কার্যক্রম থেকে বিরত থাকতে হবে। এ ধরনের সিদ্ধান্ত যেহেতু প্রচলিত প্রথা এবং আইনবিরোধী, সেহেতু তা আপনি প্রশাসনিক নির্দেশ বলে নিতে পারেন না। এ ধরনের জন্য আদালতের বিচারিক সিদ্ধান্ত প্রয়োজন। চিঠিতে তিনি আরও বলেন, ভারতীয় কোন রায়েই বলা হয়নি অবসরপ্রাপ্ত বিচারপতিগণ রায়ে স্বাক্ষর দিতে পারবেন না। যদি ভারতের কোন রায়ে বলা হয়েও থাকে তাহলেও এটা আমাদের জন্য প্রযোজ্য নয়। আমাদের আদালতে সব সময়ই অবসরপ্রাপ্ত বিচারপতিরা রায়ে স্বাক্ষর করেছেন।

শীর্ষ সংবাদ:
ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে আত্মসমর্পণ করা যাবে : সুপ্রিম কোর্ট         ৬ মাসে ১০৬ নৌ দুর্ঘটনায়, ১৫৩ জন নিহত, আহত ৮৪         ভুতুড়ে বিলের ঘটনায় ডিপিডিসির ৫ জন বরখাস্ত         বাংলাদেশকে ৫ কোটি ডলার ঋণ দেবে দ. কোরিয়া         প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে ডেল্টা প্ল্যান বাস্তবায়ন কমিটি         রেলে অতিরিক্ত যাত্রী পরিবহন করা হবে না : রেলমন্ত্রী         আগামী ১৪ জুলাই বগুড়া-১, যশোর-৬ আসনে উপ-নির্বাচন         রাজধানীতে ৮ প্রতিষ্ঠানকে ভোক্তা অধিকারের জরিমানা         জমি ও ফ্ল্যাটের রেজিস্ট্রেশন ফি কমিয়েছে সরকার         ডোনাল্ড ট্রাম্পকে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর শুভেচ্ছা         দেশে করোনা ভাইরাসে মৃত্যু ২ হাজার ছুঁইছুঁই, নতুন আক্রান্ত ৩২৮৮         ঈদের আগেই শ্রমিকের বেতন-ভাতা পরিশোধের আহ্বান কাদেরের         এক কোটি ৬৮ লাখ পরিবারকে খাদ্য সহায়তা দিয়েছে সরকার         বিএসএমএমইউতে করোনা ভাইরাসের রোগী ভর্তি শুরু         ওয়ারীতে লকডাউন কার্যকর         করোনা ভাইরাস ॥ চবি ক্যাম্পাস লকডাউন         মুগদা হাসপাতালে মারধরের ঘটনায় দুই আনসার প্রত্যাহার         বিমানের সিঙ্গাপুর-মালয়েশিয়া ফ্লাইট ৩১ আগস্ট পর্যন্ত স্থগিত         ফ্রান্সের নতুন প্রধানমন্ত্রী জ্যঁ ক্যাস্টেক্স         গাজীপুরে সড়ক দুর্ঘটনায় গার্মেন্টসের দুই নারী শ্রমিক নিহত        
//--BID Records