শুক্রবার ১০ আশ্বিন ১৪২৭, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২০ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা
সর্বশেষ

পরিবেশ বিপর্যয় ॥ হুমকিতে আদিবাসীদের অস্তিত্ব

  • শেরপুরের গারো পাহাড়

নিজস্ব সংবাদদাতা, শেরপুর, ২৩ জুলাই ॥ বালু উত্তোলন, পরিবেশ বিপর্যয়কারী বৃক্ষরোপণ ও নদ-নদীর ড্রেজিং না করাসহ নানা কারণে শেরপুরের গারো পাহাড়ে ক্রমেই ঘটছে পরিবেশ বিপর্যয়। এতে অস্তিত্ব হুমকির সম্মুখীন হয়ে পড়েছে আদিবাসী পরিবারগুলো। নিষ্পেষিত হচ্ছে আদিবাসী জনগোষ্ঠীসহ উপজেলার ২০-২৫টি গ্রামের প্রায় অর্ধ লাখ মানুষের জীবন-জীবিকা। এভাবে চলতে থাকলে হয়ত অচিরেই ওইসব জনগোষ্ঠীর ওপর নেমে আসবে ভয়ঙ্কর পরিণতি। এলাকাবাসী, জনপ্রতিনিধি, স্থানীয় প্রশাসনসহ বিভিন্ন সূত্রে পাওয়া গেছে ওইসব তথ্য।

শেরপুরের নালিতাবাড়ী, ঝিনাইগাতী ও শ্রীবরদী উপজেলার গারো পাহাড়জুড়ে গারো, হাজং, কোচ, বানাই, বর্মণ অদিবাসীদের বসবাস। মেঘালয় ঘেঁষা গারো পাহাড়ের আদিবাসীদের বেঁচে থাকার সংগ্রাম দীর্ঘ বেদনার ঘন অধ্যায়। পরিবেশ বিপর্যয়কারী বৃক্ষের বনায়ন, বালু উত্তোলন, নদ-নদী ড্রেজিং না করা, বৃক্ষনিধনে অর্থনৈতিক, সাংস্কৃতিক বিপর্যয়সহ পরিবেশের বিপর্যয় ঘটছে মারাত্মকভাবে। প্রাকৃতিকভাবে গড়ে ওঠা শাল, গজারি ও ওষধি গাছপালা অনেকাংশেই নিশ্চিহ্ন হয়ে পড়েছে। দেখা দিয়েছে বিরূপ প্রভাব। বর্ষা না যেতেই শুকিয়ে যায় জলাধার ও ঝরনাগুলো। দেখা দেয় অকাল বন্যা। আবাদি জমিসহ ঘরবাড়ি ডুবে যায় বন্যার পানিতে। ক্ষতিগ্রস্ত হয় অর্ধ লাখ মানুষ। পরিবেশ বিপর্যয়কারী বৃক্ষের বাগান গড়ে উঠায় হারিয়ে গেছে প্রাণী বৈচিত্র্যের পাহাড়ী সম্পদ। ভেষজ গাছ এখন খুঁজে পাওয়া যায় না। নেই ফসলের বৈচিত্র্য। জলাশয়ে নানা প্রকারের মাছ আর জলজ প্রাণীও হারিয়ে গেছে কালের বির্বতনে। বালিজুরি রেঞ্জের বালিজুরি, মালাকোচা, কর্ণঝোরা ও ডমুরতলা বিটের একাশি, ইউক্যালিপটাস, মেহগনি, সেগুনসহ বিভিন্ন জাতের গাছের বাগানে বসবাসকারীরা পড়েছে হুমকির মুখে। এতে আদিবাসীদের জুম ফসল, স্থানীয় জাতের ধান, শাকপাতা ও ফলমূলসহ নানা জাতের গাছের বিলুপ্তি ঘটেছে। হারিয়ে গেছে বনের বক, কবুতর, বনমোরগ, হরিণ, শুকুর, সরগা, ঘুঘু, চিলহাসসহ নানা ধরনের বন্যপ্রাণী। মেঘাদল এলাকার পাগলা নদীর বুক চিরে প্রতিদিনই উত্তোলন করা হচ্ছে শতশত ট্রলি বালু। এতে নদীর দু’পাড় ভেঙ্গে ফসলী জমি ও ঘরবাড়ি হচ্ছে বিলীন।

বৃহস্পতিবার সরেজমিনে গেলে বালিজুরি এলাকার ব্রতিন মারাক জানান, পরিবেশ বিপর্যয়ের কারণে এখন বনে তেমন পশুপাখি নেই। আদিবাসীরাও অস্তিত্ব সঙ্কটের মুখে। আদিবাসী নারী প্রমেলা মারাক জানান, পরিবেশের ভারসাম্যহীনতায় এখন পাহাড়েও ওষধি গাছ খুঁজে পাওয়া যায় না। সামান্য অসুখ হলেই যেতে হচ্ছে হাসপাতালে। আদিবাসী নেতা ও উপজেলা টাইবাল ওয়েলফেয়ার এ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক প্রাঞ্জল এম সাংমা বলেন, গারো পাহাড়ের ঐতিহ্য ফিরিয়ে আনতে প্রশাসন ও স্থানীয় দায়িত্বশীল মহলের আন্তরিকতাসহ এলাকাবাসীর সহায়তার কোন বিকল্প নেই। এজন্য বিভিন্ন এনজিওগুলোও এগিয়ে আসতে পারে।

শীর্ষ সংবাদ:
অবৈধপথে ক্ষমতা দখলে ষড়যন্ত্রের গলি খুঁজছে বিএনপি ॥ কাদের         ইয়েমেনে পরাজিত সৌদি রাজা সালমান প্রলাপ বকছেন: ইরান         মার্কিন বিমানবাহী রণতরী পর্যবেক্ষণের ভিডিও ফুটেজ প্রকাশ করল আইআরজিসি         একসঙ্গে দুটি বিরল রোগে আক্রান্ত নবজাতক         করোনায় আরও ২১ জনের মৃত্য ॥ নতুন আক্রান্ত ১৩৮৩         জলবায়ু পরিবর্তন ॥ পৃথিবী রক্ষায় প্রধানমন্ত্রীর ৫ প্রস্তাব         সার্কভুক্ত দেশগুলোকে নিবিড় সহযোগিতার আহ্বান পররাষ্ট্রমন্ত্রীর         লন্ডনে থানার ভেতর পুলিশ কর্মকর্তাকে গুলি করে হত্যা         বাংলাদেশ-ভারত সহযোগিতা নিছক দেনাপাওনার ঊর্ধ্বে ॥ রীভা গাঙ্গুলি         নিয়মতান্ত্রিকভাবেই ক্ষমতা হস্তান্তর করা হবে ॥ প্রতিশ্রুতি রিপাবলিকানদের         মহামারিতে বিশৃঙ্খলায় বিশ্ব ॥ নিরাপত্তা পরিষদে উত্তপ্ত বাক্যবিনিময়         হাতিয়ায় মাছধরা ট্রলার ডুবি, ২ জেলের মৃতদেহ         করোনা ভাইরাস ॥ যুক্তরাষ্ট্রে আক্রান্ত ৭০ লাখ ছাড়ালো         ভারত ছাড়ল হার্লে ডেভিডসন         সিংহের লেজ নিয়ে নাড়াচাড়া করবেন না ॥ ট্রাম্পকে ইরান         ১৩ ঘণ্টা পর নারায়ণগঞ্জের ট্রেন চালু         অর্থনীতি দ্রুত পুনরুদ্ধারই চ্যালেঞ্জ ॥ করোনার দ্বিতীয় ঢেউ মোকাবেলায় লকডাউন নয়         সরকারের সর্বাত্মক প্রচেষ্টায় সঙ্কট কাটল সৌদি প্রবাসীদের         একক নিয়ন্ত্রণের কোন কমিটি অনুমোদন নয়         দ্বিচারিতা আর ষড়যন্ত্রই বিএনপির রাজনৈতিক দর্শন ॥ কাদের