ঢাকা, বাংলাদেশ   শুক্রবার ২৪ মে ২০২৪, ৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১

কাপড়ের ব্যবসার আড়ালে সুমন সূত্রধরের টার্গেট মুসলিম প্রবাসীদের স্ত্রীরা

প্রকাশিত: ১২:৩৪, ১৬ এপ্রিল ২০২৪

কাপড়ের ব্যবসার আড়ালে সুমন সূত্রধরের টার্গেট মুসলিম প্রবাসীদের স্ত্রীরা

অভিযুক্ত সুমন সূত্রধর। 

কিশোরগঞ্জ জেলার ভৈরব পৌর নিউ মার্কেটের ফ্যাশন রুম নামে একটি কাপড়ের দোকানের মালিক সুমন সূত্রধর। এর আগে তিনি বিভিন্ন কাপড়ের দোকানের কর্মচারী ছিলেন। ভৈরব বাজারের টিনপট্রি এলাকার বাসিন্দা তিনি।

সুমন কাপড়ের ব্যবসার আড়ালে নিজের নাম ও ধর্মের কথা গোপন করে মুসলিম সম্ভ্রান্ত পরিবার ও প্রবাসীদের স্ত্রীদের টার্গেট করে সম্পর্ক করত। এতে বিভিন্ন নারীদের ফাঁদে ফেলে ভোগ ও হয়রানির অভিযোগ উঠেছে ওই কাপড় ব্যবসায়ীর বিরুদ্ধে।

ভৈরব বাজারের ১২-১৫ হিন্দু যুবক ব্যবসার আড়ালে প্রবাসীর স্ত্রী ও ভালো ফ্যামেলির নারী কাস্টমারদের টার্গেট করে দীর্ঘদিন ধরে এসব অপকর্মে জড়িতের অভিযোগ রয়েছে। ওই হিন্দু ধর্মাবলম্বী যুবকদের সঙ্গে কিছু মুসলিম যুবকদের যোগসূত্র আছে বলে ভৈরব বাজারের বিভিন্ন ব্যবসায়ীর সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে। এ বিষয়ে ভৈরব বাজারে আসা নারীদের সতর্ক থাকারও পরামর্শ দেন সাধারণ ব্যবসায়ীরা।

রবিবার (১৪ এপ্রিল) বিকেলে নরসিংদীর গাবতলী এলাকায় তিন সন্তানের জননীর সঙ্গে নারী কেলেংকারীর ঘটনায় স্থানীয় লোকজনের হাতে আটক হন ব্যবসায়ী সুমন সূত্রধর। আটকের পর তাকে কয়েক ঘণ্টা আটকিয়ে রাখেন স্থানীয়রা। আটক অবস্থায় ফ্যাশনরুম সুমন নামে তার নিজ ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের ফেসবুক আইডি থেকে নিজের অপকর্মের কথা অকপটে স্বীকার করে পোস্ট দেন। ওই পোস্ট মুহূর্তেই ছড়িয়ে পড়ে নেটিজেনসহ ভৈরবের সাধারণ মানুষের মাঝে।

ফেসবুক আইডিতে ছড়িয়ে পড়া পোস্টে জানা যায়, ওই নারীর নাম অনু। তিন সন্তানের জননী সে। চার বছর আগে ভৈরব নিউ মার্কেটে অভিযুক্ত সুমনের কাপড়ের দোকানে কাপড় কিনতে আসার সুবাদে পরিচয় হয়। ওই পরিচয়ের সূত্র ধরে প্রায়ই নরসিংদী গিয়ে রেস্টুরেন্টে দেখা করত। ওই ভুক্তভোগী নারী সুমনকে মানা করার পরও সে তাকে নিয়মিত ডিস্টার্ব করত।

পহেলা বৈশাখের দিন রবিবার বিকেলে আধা ঘণ্টা জিম করে ওই নারীর বাড়িতে যায় দেখা করতে। এ সময় স্থানীয়রা অভিযুক্ত সুমন সূত্রধরকে আটক করে। সুমন হিন্দু সম্প্রদায়ের হলেও নিজের নামের পর কৌশলগত কারণে সূত্রধর ট্যাগ ব্যবহার করত না। মুসলমান ও প্রবাসীদের স্ত্রীরাই ছিল তার মূল টার্গেট। 

স্থানীয়দের হাতে আটকের পর তাদের জিজ্ঞাসাবাদে এসব ঘটনা স্বীকার করে সে। এ সময় সুমন ওই নারীকে বিয়ে করতে বলায় ভুক্তভোগী নারী সুমনের গলার কলার ধরে টানতে থাকে। তিনি বলেন, সুমন তাকে আপা বলে ডাকতেন এবং তার মেয়েকে ভাগিনী বলে ডাকত। নারী তখন বলেন, আমাকে বিয়ে করতে বললি কেন?

এ ঘটনাটিতে ভৈরব বাজারের সাধারণ ব্যাবসায়ী, ক্রেতা ও সাধারণ মানুষের মাঝে তোলপাড় সৃষ্টি হয়েছে। অভিযুক্ত সুমনসহ নারী লোভী কতিপয় ব্যবসায়ীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানিয়েছেন সাধারণ মানুষজন।

এ বিষয়ে অভিযুক্ত সুমন সূত্রধর আটক থাকায় তার সঙ্গে যোগাযোগ করা যায়নি।

এবি 

×