৩ এপ্রিল ২০২০, ২০ চৈত্র ১৪২৬, শুক্রবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
 
সর্বশেষ

খালেদার প্যারোল আবেদন করলে শর্ত বিবেচনায় ভাবা হবে ॥ কাদের

প্রকাশিত : ১৭ ফেব্রুয়ারী ২০২০

বিশেষ প্রতিনিধি ॥ বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার জামিনের জন্য প্যারোলের আবেদন করলে শর্ত বিবেচনায় বিষয়টি ভাবা হবে বলে জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। তিনি বলেন, খালেদা জিয়ার মুক্তির বিষয়টি সরকারের বিষয় নয়, এটি আদালতের বিষয়। তবে তারা (বিএনপি) প্যারোলে মুক্তির জন্য আবেদন করতে পারেন। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমে আবেদন করলে সরকারী বিধিবিধান অনুসারে বিবেচনা করা হবে।

রবিবার রাজধানীর সচিবালয়ে সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগের সম্মেলন কক্ষে সমসাময়িক বিষয় নিয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এসব কথা বলেন। তবে খালেদা জিয়ার প্যারোলে মুক্তি দেয়া নিয়ে পর্দার অন্তরালে কিছু হচ্ছে না বলেও দাবি করেন তিনি।

বেগম খালেদা জিয়ার জামিন নিয়ে বিএনপি দ্বিমুখী আচরণ করছে এমন মন্তব্য করে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেন, খালেদা জিয়ার জামিন নিয়ে বিএনপির কোন কোন নেতা বলছেন, আন্দোলন করে তাদের নেত্রীকে মুক্ত করবেন। আবার কেউ বলছেন, তার শারীরিক অবস্থা বিবেচনায় নিয়ে মানবিক দৃষ্টিভঙ্গিতে প্যারোলে মুক্তি দিতে।

খালেদা জিয়ার জামিন নিয়ে পর্দার অন্তরালে কিছু হচ্ছে না জানিয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, বিএনপি মহাসচিব তার চেয়ারপার্সনের মুক্তির বিষয়ে আলোচনা করতে ফোন করতেই পারেন, এতে লুকোচুরির কিছু নেই। মন্ত্রিসভার রদবদল প্রসঙ্গে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, মন্ত্রিসভা একটা রদবদলের মধ্য দিয়ে যাচ্ছে। সম্প্রতি একটা রদবদল হয়েছে। তাই খুব তাড়াতাড়ি মন্ত্রিসভায় আবার পরিবর্তন হওয়ার সম্ভাবনা খুব কম।

তিনি বলেন, যেহেতু রদবদলটা এই মুহূর্তে হয়েছে পারফরম্যান্স বা গতির জন্য। সেখানে নতুন করে বড় কোন পরিবর্তন বা সম্প্রসারণ এই মুহূর্তে হবে না। এটা হয়ত আরও পরে হতে পারে। কাজের গতির জন্য সম্প্রসারণটা হচ্ছে। হয়ত আমি যে স্থানে আছি, প্রধানমন্ত্রী মনে করছেন আমাকে অন্য আরেকটা স্থানে দিলে পারফরম্যান্সটা আরও ভাল হবে। এটা প্রধানমন্ত্রীর এখতিয়ার।

খালেদা জিয়ার প্যারোলে মুক্তি প্রসঙ্গে ওবায়দুল কাদের আরও বলেন, খালেদা জিয়ার বিষয়টি হচ্ছে আদালতের এখতিয়ার, এটি কোন রাজনৈতিক মামলা না। বিনা বিচারে তো ডিটেনশনে দেয়া হয়নি। দুর্নীতির মামলা আদালতের এখতিয়ার। মানবিক বিবেচনা করতে পারে একমাত্র আদালত। তাই পর্দার অন্তরালে কিছু নেই, সবকিছু ওপেন সিক্রেট। কোনটারই সিক্রেসি থাকবে না, সিক্রেসির কালচার নেই। তিনি বলেন, বিএনপি মহাসচিব আওয়ামী লীগের সেক্রেটারির সঙ্গে কথা বলতেই পারেন। খালেদা জিয়ার মুক্তির বিষয়ে আলাপ করতে পারেন এবং প্রধানমন্ত্রীকে আমি জানাব এটাই স্বাভাবিক।

তিনি বলেন, এটা রাজনৈতিক শালীনতার বিরোধী নয়। এখানে গোপনীয়তার কী আছে? মির্জা ফখরুল সাহেব আবেদন করতেই পারেন। তিনি (মির্জা ফখরুল) বলেছেন প্রধানমন্ত্রীকে জানানোর জন্য, আমি বিষয়টি প্রধানমন্ত্রীকে অবহিত করেছি। মানবিক কারণে মুক্তি চান, মুক্তি চাইবেন এটাই স্বাভাবিক। তার কোন গোপনীয়তা নেই যে ফাঁস করে দিয়ে অন্যায় করেছি।

প্রধানমন্ত্রীকে জানানোর পর তিনি কোন প্রতিক্রিয়া দিয়েছেন কি না এমন প্রশ্নের জবাবে ওবায়দুল কাদের বলেন, না আমাকে কিছু বলেননি। খালেদা জিয়ার প্যারোলে বিষয়টি স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এখতিয়ার জানিয়ে তিনি বলেন, প্যারোলে আবেদন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর কাছে করবেন, কিন্তু খোঁজ নিয়ে জেনেছি স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী এখনও লিখিত এ আবেদন পাননি। আবেদন করলে মুক্তি দেয়া হবে কি না জানতে চাইলে তিনি বলেন, আগে আবেদন করুক, প্যারোলের নিয়ম আছে। একটি যুক্তিযুক্ত কারণে মুক্তি পায়। যুক্তিযুক্ত কিনা তা তো বিবেচনা করতে হয়।

বিএনপি তাহলে কি ভুল পথে হাঁটছে- এমন প্রশ্নের জবাবে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, ভুল পথ না সঠিক পথ, আপনারাই বলুন। আমি বলছি বিএনপি কোন পথে হাঁটছে, সেই পথ তো জানা নেই। পথ মাঝে মাঝে বেঁকে যায়, কেউ বলছে অন্দোলন করে আবার কেউ মানবিক কারণে খালেদা জিয়ার মুক্তি চায়। তাদের আগে ঠিক করতে হবে কোন পথে মুক্তি চান।

বিএনপি নেতাদের বারবার কূটনীতিকদের কাছে ধর্ণা দেয়া প্রসঙ্গে ওবায়দুল কাদের বলেন, বিদেশীরা আমাদের বন্ধু। তারা আমাদের আইনের বাইরে কোন প্রকার চাপ দিতে চাইলে মেনে নেব না। এটি আমাদের অভ্যন্তরীণ বিষয়, কোন চাপ বা হস্তক্ষেপের বিষয় জানা নেই।

মহিউদ্দিন-নাছির বলয় ভাঙ্গতেই কী চট্টগ্রাম সিটিতে রেজাউল করিম চৌধুরীকে প্রার্থী করা হয়েছে কি না, এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, এখানে কোন বলয়ের বিষয় না। এখানে বিষয়টা হচ্ছে আমরা প্রার্থী পরিবর্তন করেছি, প্রার্থীর গ্রহণযোগ্যতা বিবেচনা করে নতুন প্রার্থীকে মনোনয়ন দেয়া হয়েছে। দীর্ঘদিনের এই ত্যাগী নেতাকে মনোনয়ন দেয়া হয়েছে। তার খুবই ক্লিন ইমেজ, সে কারণে তাকে মনোনয়ন দেয়া হয়েছে।

অপর এক প্রশ্নের জবাবে ওবায়দুল কাদের বলেন, বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকীর আয়োজনে যোগ দিতে ভারতের প্রধানমন্ত্রীকে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে। কানাডার প্রধানমন্ত্রীকেও আমন্ত্রণ জানানো হতে পারে। লক্ষ্মীপুর-২ আসনের সংসদ সদস্যের বিরুদ্ধে মানব পাচারের অভিযোগ গণমাধ্যমে প্রকাশিত হওয়ার বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে তিনি বলেন, দুর্নীতি দমন কমিশন রয়েছে, তারা প্রয়োজন মনে করলে বিষয়টি তদন্ত করে কোন প্রকার দুর্নীতির অভিযোগ থাকলে আইনানুগ ব্যবস্থা নিতে পারে।

প্রকাশিত : ১৭ ফেব্রুয়ারী ২০২০

১৭/০২/২০২০ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

প্রথম পাতা



শীর্ষ সংবাদ: