৬ এপ্রিল ২০২০, ২৩ চৈত্র ১৪২৬, সোমবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
 
সর্বশেষ

জিন্নাহর পথ ছেড়ে সামাজিক উন্নয়নের দিকে মনোনিবেশ করতে হবে

প্রকাশিত : ২০ জানুয়ারী ২০২০
  • ড. সিরাজুল ইসলাম বলেন

বিশ্ববিদ্যালয় রিপোর্টার ॥ বর্তমান সমাজে ধর্ষণ মহামারী আকার ধারণ করেছে উল্লেখ করে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইমেরিটাস অধ্যাপক ড. সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী বলেছেন, ধর্ষক এবং গোটা সমাজ ও রাষ্ট্রই পাষন্ড, যেখানে নারী ও শিশুদের ধর্ষিত হতে হয়। এসব অমানবিকতা দূর করতে হবে। এই জায়গাগুলো নিয়ে আমাদের ভাবতে হবে। সামাজিকতা ও জবাবদিহির কথা ভাবতে হবে এবং রাষ্ট্রীয় সমীকরণটি অবশ্যই সম্ভব করতে হবে। সেটি না করতে পারলে আমরা ক্রমাগত অন্ধকারের দিকে এগোবো।

রবিবার সকালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বাণিজ্য অনুষদে এ্যাকাউন্টিং এ্যান্ড ইনফরমেশন সিস্টেমস বিভাগের সপ্তাহব্যাপী ‘এ্যাকাউন্টিং উইক-২০২০’ এর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. রিয়াজুর রহমান চৌধুরীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, বাণিজ্য অনুষদের ডিন অধ্যাপক শিবলী রুবাইয়াতুল ইসলাম ও ডিবেট ফর ডেমোক্রেসির চেয়ারম্যান হাসান আহমেদ চৌধুরী কিরণ। স্বাগত বক্তব্য রাখেন, আয়োজনের আহ্বায়ক এবং বিভাগের সাবেক চেয়ারম্যান অধ্যাপক মমতাজ উদ্দিন আহমেদ ও এ্যাকাউন্টিং এ্যান্ড ইনফরমেশন সিস্টেমস এ্যালামনাই এ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি স্বদেশ রঞ্জন সাহা।

শিক্ষার্থীদের মোহাম্মদ আলী জিন্নাহ প্রদর্শিত ‘ব্যক্তি মালিকানার’ পথ পরিত্যাগ করে সামাজিক উন্নতির দিকে মনোনিবেশ করা উচিত বলে মনে করেন অধ্যাপক ড. সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী। তিনি বলেন, এবার করতে হবে সমাজ বদল। শিক্ষার্থীদের ব্যক্তি মালিকানার পথ পরিত্যাগ করে মনোনিবেশ করতে হবে সামাজিক মালিকানায়। কায়েদ-এ-আযম মোহাম্মদ আলী জিন্নাহ প্রদর্শিত ব্যক্তি মালিকানার পথ পরিত্যাগ করে যেতে হবে সামাজিক উন্নতির দিকে। সকলের উন্নতির মধ্যে ব্যক্তিগত উন্নতি নিহিত, সকলের মুক্তির মধ্যে আমার মুক্তি নিহিত- দরকার এই বোধ।

তিনি বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের বাসে করে বান্ধবীর বাসায় যাওয়ার পথে একজন ছাত্রীকে এক মাদকাসক্ত ও ভবঘুরে সিরিয়াল রেপিস্ট ধর্ষণ করল। এই ধর্ষণ আমাদের উন্নতির নিচে যে ক্রন্দন আছে, তারই প্রতিচ্ছবি। জিন্নাহ সাহেব যেমন বলেছিলেন, ‘তোমার উন্নতি করো, সুযোগ এসেছে, তুমি নিয়ে নাও, জবাবদিহির কোন প্রয়োজন নেই, কারও দিকে তাকাবে না’- সেই উন্নতিই এখন চলছে। এটি আমাদের বদলাতে হবে।

প্রকাশিত : ২০ জানুয়ারী ২০২০

২০/০১/২০২০ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

শেষের পাতা



শীর্ষ সংবাদ: