২৪ জানুয়ারী ২০২০, ১১ মাঘ ১৪২৬, শুক্রবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
 
সর্বশেষ

ভারতের নাগরিকত্ব আইনের বিষয়টি পর্যবেক্ষণ করা হচ্ছে ॥ কাদের

প্রকাশিত : ১৬ ডিসেম্বর ২০১৯

বিশেষ প্রতিনিধি ॥ ভারতের পার্লামেন্টে নাগরিকত্ব (এনআরসি) সংশোধনী আইন পাস দেশটির অভ্যন্তরীণ বিষয় উল্লেখ করে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, বিষয়টি আমরা গভীরভাবে পর্যবেক্ষণ করছি। ভারত আমাদের প্রতিবেশী দেশ। একটি সার্বভৌম দেশ, একটি স্বাধীন দেশ। ভারতের পার্লামেন্টে যে আইন পাস হয়েছে এটা তাদের অভ্যন্তরীণ বিষয়।

রবিবার বঙ্গবন্ধু এভিনিউতে আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে দলের ২১তম জাতীয় সম্মেলন সফল করতে গঠিত স্বেচ্ছাসেবক ও শৃঙ্খলা উপ-কমিটির বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি আরও বলেন, ভারতে নাগরিকত্ব আইন পাস নিয়ে আমাদের প্রতিক্রিয়া কী হতে পারে, সে বিষয়ে আমাদের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে ভারতের হাইকমিশনের মাধ্যমে তা ভারত সরকারকে পাঠানো হয়েছে। বিষয়টি পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের বিষয়, এ বিষয়ে আমার মন্তব্য করা ঠিক না। তবে ভারতের সঙ্গে আমাদের আওয়ামী লীগ সরকারের দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক ইতিবাচক, ভাল সম্পর্ক আছে। এ সম্পর্কের কোন টানাপোড়েন সৃষ্টি হলে দ্বিপাক্ষিকভাবে আলোচনা করে বিষয়টি সমাধান করতে পারব বলে আমার বিশ্বাস।

আওয়ামী লীগের জাতীয় সম্মেলন প্রসঙ্গে ওবায়দুল কাদের বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দলকে নতুনভাবে সাজাতে চান। সে লক্ষ্য নিয়ে কাজ চলছে। আওয়ামী লীগের এবারের সম্মেলনে সর্বোচ্চ জমায়েত হবে। সারা দেশ থেকে হাজার হাজার নেতাকর্মী প্রস্তুতি নিচ্ছে সম্মেলনে আসার জন্য। তাই এখনই বলা যাবে না কত নেতাকর্মী সম্মেলনে জমায়েত হবে।

তিনি জানান, বিভিন্ন রাজনৈতিক দল যারা প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সংলাপে অংশগ্রহণ করেছিলেন, সেই সব দলকে সম্মেলনে আমন্ত্রণ জানানো হবে। সম্মেলনে বিদেশী কোন অতিথিকে দাওয়াত দেয়া হবে না। তবে বাংলাদেশে বিভিন্ন দূতাবাসের কর্মকর্তাদের দাওয়াত দেয়া হবে। মুজিববর্ষের অনুষ্ঠানে বিদেশী অতিথিদের দাওয়াত দেয়া হবে। আর সম্মেলনে গঠনতন্ত্রের বড় কোন পরিবর্তন আসবে না। কার্যনির্বাহী সংসদের পরিধি যা আছে, তাই থাকবে। আগামী ১৮ ডিসেম্বর সন্ধ্যা ছয়টায় দলের কার্যনির্বাহী সংসদের সভা অনুষ্ঠিত হবে। এই সভায় সম্মেলনের সার্বিক বিষয়ে আলোচনা ও সিদ্ধান্ত হবে।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের আরও বলেন, ইতোমধ্যে নেত্রী (শেখ হাসিনা) সম্মেলনের বিষয়ে কিছু নির্দেশনা দিয়েছেন। সে অনুযায়ী সম্মেলনের প্রস্তুতি প্রায় চূড়ান্ত। সম্মেলনে প্রায় দুই হাজার স্বেচ্ছাসেবক ও শৃঙ্খলা উপ-কমিটির সদস্যরা কাজ করবে। তাদের সবাইকে দায়িত্বশীলতার সঙ্গে কাজ করতে হবে। কেননা এবারের সম্মেলনে সর্বকালের বৃহৎ উপস্থিতি থাকবে।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামালের সভাপতিত্বে এবং আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিমের সঞ্চালনায় সভায় দলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর কবির নানক বক্তব্য রাখেন। এ সময় আওয়ামী লীগের সংস্কৃতি বিষয়ক সম্পাদক অসীম কুমার উকিল, মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক সম্পাদক এ্যাডভোকেট মৃণাল কান্তি দাস, উপ-দফতর সম্পাদক ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়াসহ স্বেচ্ছাসেবক ও শৃঙ্খলা উপকমিটির সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।

প্রকাশিত : ১৬ ডিসেম্বর ২০১৯

১৬/১২/২০১৯ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

শেষের পাতা



শীর্ষ সংবাদ: