২০ অক্টোবর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট ৭ ঘন্টা পূর্বে  
Login   Register        
ADS

আজ বিশ্ব অটিজম দিবস


স্টাফ রিপোর্টার ॥ দেশে সব ধরনের প্রতিবন্ধীর সংখ্যা অর্ধকোটি ছাড়িয়ে যাবে। প্রতিবন্ধীদের উন্নয়নে ইতোমধ্যে নানা উদ্যোগ বাস্তবায়ন করছে সরকার। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, তৃণমূল থেকে জাতীয় পর্যায়ের বিভিন্ন উন্নয়নে প্রতিবন্ধীদের সম্পৃক্ত করা দরকার। একজন প্রতিবন্ধীর জীবনে বঞ্চনা ও বিচ্ছিন্নতার একটি পর্যায়ক্রমিক ধারা সৃষ্টি করে। প্রায় সব অঞ্চল ও জনগোষ্ঠীতে এমনকি সরকারী-বেসরকারী উভয় প্রতিষ্ঠানে প্রতিবন্ধী ব্যক্তিকে অবহেলা ও বিচ্ছিন্নভাবে দেখা হয়। তাদের প্রতি অসম দৃষ্টিভঙ্গি ও আচরণ প্রবলভাবে পরিলক্ষিত হয়। প্রতিবন্ধীত্ব ও প্রতিবন্ধী ব্যক্তি সম্পর্কে সমাজে এখনও সনাতন দৃষ্টিভঙ্গি প্রবল। দেশের চিকিৎসা ব্যবস্থায় প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের চিকিৎসা ব্যবস্থায় পুনর্বাসন ব্যবস্থা অন্তর্ভুক্ত করা দরকার বলে জানিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা। এমন অবস্থার মধ্য দিয়ে আজ বৃহস্পতিবার পালিত হচ্ছে বিশ্ব অটিজম দিবস। এ উপলক্ষে সরকারী ও বেসরকারী উদ্যোগে নেয়া হয়েছে নানা কর্মসূচী।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, একটি সুখী-সমৃদ্ধ ও উন্নত বাংলাদেশ গড়তে হলে উন্নয়ন কর্মকা-ে সকলের অংশগ্রহণ অপরিহার্য। দেশের অটিস্টিক ব্যক্তি ও শিশুরা আমাদের আপনজন। তাদের উপযুক্ত শিক্ষা ও প্রশিক্ষণের মাধ্যমে উন্নয়নের মূলধারার সঙ্গে সম্পৃক্ত করতে পারলে তারাও জাতীয় উন্নয়নে অবদান রাখতে সক্ষম হবেন। অটিজম মোকাবেলায় সচেতনতা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। অটিজমসহ সকল প্রকার শারীরিক, মানসিক ও বুদ্ধি প্রতিবন্ধিতা মানববৈচিত্র্যেরই অংশ।

এদিকে, ভিন্ন মানববৈচিত্র্যের এ জনগোষ্ঠীকে উন্নয়নের মূলধারায় সম্পৃক্ত করতে গত ৬ বছর ধরে সরকার ব্যাপক কর্মসূচী বাস্তবায়ন করছে। গ্লোবাল অটিজম পাবলিক হেলথ ইনিশিয়েটিভ ইন বাংলাদেশের জাতীয় উপদেষ্টা কমিটির চেয়ারম্যান সায়মা হোসেন ২০১২ সালে জাতিসংঘে অটিস্টিক শিশু ও তার পরিবারের সহায়তায় বিশ্ব সম্প্রদায়কে এগিয়ে আসার আহ্বান জানিয়ে অটিজম আক্রান্ত শিশু ও তার পরিবারের জন্য আর্থ-সামাজিক সহায়তা শীর্ষক প্রস্তাব উত্থাপন করেন। যা সাধারণ পরিষদে গৃহীত হয়। দেশে প্রতিবন্ধীদের শিক্ষা উপবৃত্তি প্রদান, বুদ্ধি প্রতিবন্ধী স্কুল স্থাপন, ঢাকার মিরপুরে জাতীয় বিশেষ শিক্ষাকেন্দ্র স্থাপন, সরকারী চাকরিতে কোটা সংরক্ষণ, ৬৪ জেলায় ৬৮টি প্রতিবন্ধী সেবা ও সাহায্য কেন্দ্র এবং অটিজম রিসোর্স সেন্টার স্থাপন করা হয়েছে। দেশব্যাপী প্রতিবন্ধিতা শনাক্তরণ জরিপের কাজ প্রায় শেষ পর্যায়ে আছে। স্বাস্থ্য, শিক্ষা, ক্রীড়া, সাংস্কৃতিকসহ সকলক্ষেত্রে প্রতিবন্ধীর সমধিকার নিশ্চিত করতে প্রতিশ্রুতি দিয়েছে সরকার। পাশাপাশি দেশী-বিদেশী সংস্থা, স্বেচ্ছাসেবী প্রতিষ্ঠান, সুশীল সমাজ ও বিত্তবানদের প্রতিবন্ধী ও অটিস্টিক জনগোষ্ঠীর কল্যাণে এগিয়ে আসার আহ্বান জানিয়েছে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, প্রতিবন্ধী প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর মধ্যে সবচেয়ে প্রান্তিক ও বঞ্চনার শিকার প্রতিবন্ধী নারী ও শিশুরা।

জাতিসংঘে সায়মার ব্যস্ত দিন ॥ অটিজম নিয়ে সামাজিক সচেতনতা সৃষ্টির লক্ষ্যে প্রতিবছর ২ এপ্রিল বিশ্ব অটিজম সচেতনতা দিবস পালন করে আসছে জাতিসংঘ। অটিজম বিষয়ক বাংলাদেশের জাতীয় উপদেষ্টা কমিটির চেয়ারপার্সন সায়মা ওয়াজেদ মানসিক স্বাস্থ্য নিয়ে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার বিশেষজ্ঞ পরামর্শক প্যানেলের সদস্য। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার মেয়ে সায়মা মানসিক স্বাস্থ্য নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রে লেখাপড়ার পর সেখানেই কর্মরত আছেন। প্রধানমন্ত্রীর প্রেস উইং থেকে জানানো হয়েছে, অষ্টম বিশ্ব অটিজম সচেতনতা দিবসের বিশেষ কর্মসূচী হিসেবে বৃহস্পতিবার জাতিসংঘে দুটি প্যানেল আলোচনা অনুষ্ঠিত হবে। ‘বিশ্ব অটিজম সম্প্রদায়ের জন্য বিজ্ঞান, সহযোগিতা ও উত্তর’ শীর্ষক আলোচনায় বক্তব্য রাখবেন সায়মা ওয়াজেদ হোসেন। ওই আলোচনায় আরও অংশ নেবেন জাতিসংঘ মহাসচিবের স্ত্রী বান সুনটেক, অটিজম স্পিকসের প্রতিষ্ঠাতা সুজান রাইট ও বব রাইট।