ঢাকা, বাংলাদেশ   রোববার ১৪ এপ্রিল ২০২৪, ১ বৈশাখ ১৪৩১

সাফ অনূর্ধ্ব-১৭ নারী ফুটবলে স্বাগতিক বাংলাদেশের হার ৩-০ গোলে

কমলাপুরে রাশিয়ান মেয়েদের উল্লাস

স্পোর্টস রিপোর্টার

প্রকাশিত: ০০:০৮, ২৩ মার্চ ২০২৩

কমলাপুরে রাশিয়ান মেয়েদের উল্লাস

কমলাপুর স্টেডিয়ামে বুধবার বাংলাদেশকে হারিয়ে রাশিয়ার মেয়েদের উল্লাস

সিনিয়র পর্যায়ের ফিফা র‌্যাঙ্কিং, উচ্চতায়, শারীরিক গড়ন, গতি... সবকিছুতেই পিছিয়ে। কাজেই লড়াইয়ের ফল কি হতে পারে, সেটা সহজেই অনুমেয়। বুধবার সেটাই হয়েছে। সাফ অনূর্ধ্ব-১৭ নারী চ্যাম্পিয়নশিপে নিজেদের প্রথম ম্যাচে সহজেই জিতে শুভসূচনা করেছিল বাংলাদেশ। কিন্তু দ্বিতীয় ম্যাচেই মুদ্রার উল্টো পিঠটিও দেখে ফেললো তারা। ঢাকার কমলাপুরের বীরশ্রেষ্ঠ শহীদ সিপাহী মো. মোস্তফা কামাল স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত দিনের প্রথম ম্যাচে তারা হেরেছে রাশিয়ার কাছে, ৩-০ গোলে।

খেলার প্রথমার্ধের স্কোরলাইন ছিল ২-০। রাশিয়ার এলেনা গোলিক জোড়া গোল করেন। অপর গোলটি আনাস্তাসিয়া কারাতায়েভার। পাঁচ দেশের অংশগ্রহণে এই আসর অনুষ্ঠিত হচ্ছে লিগ ভিত্তিতে। সর্বোচ্চ পয়েন্ট সংগ্রাহক দলকে চ্যাম্পিয়ন হিসেবে ঘোষণা করা হবে। বাংলাদেশের পরের ম্যাচ কাল শুক্রবার, সন্ধ্যা সোয়া ৭টায়। প্রতিপক্ষ ভারত। একইদিনে রাশিয়া মুখোমুখি হবে ভুটানের বিরুদ্ধে, বিকেল সোয়া ৩টায়। 
সিনিয়র পর্যায়ের র‌্যাঙ্কিংয়ে রাশিয়া ২৬, আর বাংলাদেশ ১৪০। তার মানে বাংলাদেশ ১১৪ ধাপ পিছিয়ে। সবচেয়ে বড় কথা, বাংলাদেশের মেয়েরা এই প্রথম ইউরোপিয়ান কোন দলের বিরুদ্ধে খেললো। স্বভাবতই ম্যাচের আগে এ নিয়ে গোলাম রব্বানী ছোটনের শিষ্যারা যেমন রোমাঞ্চিত ছিল, তেমনি বেশ উদ্বেগেও ছিল। এ কারণেই ম্যাচ শুরু হতেই বেশ ছন্নছাড়া ফুটবল খেলে তারা। প্রথম দুটি গোল বলতে গেলে প্রতিপক্ষকে উপহারই দেয় তারা! লাল-সবুজ দলে এদিন একাদশে নতুন মুখ ছিলেন কানম আক্তার এবং থুইনুই মারমা। 
৫ মিনিটেই প্রথম গোলটি হজম করে বাংলাদেশ। বাংলাদেশের সীমানার ডান প্রান্ত থেকে রাশিয়ার ভাসিলিসা আভদিনকো লম্বা-উঁচু লব ফেলেন বাংলাদেশের বক্সের ভেতরে। সেখানে অরক্ষিত রুশ ফরোয়ার্ড-অধিনায়ক এলেনা গোলিক বল পেয়ে যান। সামনে তখন গোলরক্ষক সঙ্গীতা একেবারেই একা। দেরি না করে এলেনা ডান পায়ের গড়ানো প্লেসিং শটে জাল কাঁপান এলেনা, এগিয়ে যায় রাশিয়া (১-০)।
৪৩ মিনিটে সমতায় ফেরার চমৎকার একটি সুযোগ নষ্ট করে বাংলাদেশ। কাউন্টার অ্যাটাক করে তারা। মাঝমাঠ থেকে বদলি ফরোয়ার্ড সাগরিকার কাছ থেকে বল পান সুরভী। এক রুশ ডিফেন্ডারকে কাটিয়ে বিপজ্জনকভাবে বক্সের ভেতরে ঢুকে পড়েন ডান পায়ের জোরালো শট নেন সুরভী। সেই বল রুশ গোলরক্ষক উলিয়ানা ঝাঁপিয়ে ধরলেও তা ফস্কে যায়। তবে কোনো বিপদ হয়নি। ৪৫ মিনিট পরিকল্পিত আক্রমণ থেকে ব্যবধান দ্বিগুণ করে রাশিয়া।

বাংলাদেশ গোলরক্ষক সঙ্গীতার গোলকিকের বল পেয়ে ভাসিলিসা হেড করেন। সেই বল পান সতীর্থ আনাস্তাসিয়া। তিনি থ্রু পাস বাড়ান আনার উদ্দেশ্যে। বক্সের ভেতরে ঢুকে বা প্রান্ত দিয়ে আনা রুমাকে কাটিয়ে গড়ানো ক্রস করেন। আর তা থেকে চমৎকারভাবে ফিনিশ করেন আবারও সেই এলেনা (২-০)।  
বিরতির পর ৪৮ মিনিটে বাংলাদেশের বক্সে ঢুকে রাশিয়ার আনাস্তাসিয়ার ডান পায়ের উঁচু-তীব্র শট বাংলাদেশের পোস্টে লেগে ফিরে আসে। 
৬২ মিনিটে রাশিয়া আক্রমণ করে। দারিকার কাছ থেকে বল পান এলেনা। তিনি বলটি চিপ করেন বক্সের ভেতরে ঢুকে পড়া আনাস্তাসিয়ার উদ্দেশ্যে। বুক দিয়ে রিসিভ করে আনাস্তাসিয়া বল নিয়ে বাংলাদেশের দুই ডিফেন্ডারকে ডজ দিয়ে ঠা-া মাথায় বা পায়ের প্লেসিং শটে গোল করেন। বাংলাদেশ গোলরক্ষক সঙ্গীতা ঝাঁপিয়ে পড়েও কিছুই করতে পারেননি (৩-০)। বাকি সময়টায় রাশিয়া আরও কিছু আক্রমণ করে। তাদের একটি গোল অফসাইডে বাতিল হয়। শেষ পর্যন্ত রেফারি রাই অঞ্জনা খেলা শেষের বাঁশি বাজালে পূর্ণ পয়েন্ট নিয়ে মাঠ ছাড়ে এলেনা মেদভেদের শিষ্যারা।

×