ঢাকা, বাংলাদেশ   মঙ্গলবার ১৬ এপ্রিল ২০২৪, ৩ বৈশাখ ১৪৩১

বসুন্ধরা কিংসের সাতে সাত জয়

স্পোর্টস রিপোর্টার

প্রকাশিত: ০০:৪৬, ২৯ জানুয়ারি ২০২৩

বসুন্ধরা কিংসের সাতে সাত জয়

কিংস অ্যারানায় শেখ রাসেল ক্রীড়াচক্রকে ৩-১ গোলে হারিয়েছে কোচ অস্কার ব্রুজেনের দল

অপ্রতিরোধ্য বসুন্ধরা কিংস বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগ ফুটবলে (বিপিএল ফুটবল) টানা সাত জয় পেয়েছে। শনিবার বিকেলে কিংস অ্যারানায় শেখ রাসেল ক্রীড়াচক্রকে ৩-১ গোলে হারিয়েছে কোচ অস্কার ব্রুজেনের দল। এর ফলে সাত ম্যাচে শতভাগ জয়ে ২১ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে বসুন্ধরা। ছয় ম্যাচে মাত্র সাত পয়েন্ট নিয়ে পঞ্চম স্থানে শেখ রাসেল। 
জয়ের ব্যবধান পরিষ্কার হলেও ম্যাচটি সহজ ছিল না কিংসের জন্য। রোমাঞ্চ ছড়ানো ম্যাচে কিংসকে কঠিন চ্যালেঞ্জ জানায় শেখ রাসেল। প্রথমার্ধে দুই দলই ছিল সমানে সমান। দ্বিতীয়ার্ধে ছড়িয়েছে রোমাঞ্চ। আট মিনিটের ব্যবধানে দুই গোল করে চালকের আসনে বসে কিংস। তবে এক গোল পরিশোধ করে ম্যাচ জমিয়ে তোলে শেখ রাসেল। শেষ পর্যন্ত ব্রাজিলিয়ানর ফরোয়ার্ড রবিনহোর জোড়া গোলে বড় জয় তুলে নেয় কিংস।

ম্যাচের পঞ্চম মিনিটে শেখ রাসেলের দুজন ডিফেন্ডারকে কাটিয়ে বক্সে ঢুকে পড়েন রবসন রবিনহো। কিন্তু লক্ষ্যে রাখতে পারেননি শট। ১১ মিনিটে রাকিবের ক্রসে দারুণভাবে হেড করেন ডরিয়েল্টন গোমেজ। কিন্তু ক্রসবারের ওপর দিয়ে চলে যায় বল। ৩২ মিনিটে সুযোগ আসে মাপুকুর সামনে। কিন্তু তা কাজে লাগাতে ব্যর্থ হন কঙ্গোর এই স্ট্রাইকার। গোলরক্ষক আশরাফুল রানার লম্বা কিক পান মাপুকু। তাকে কড়া পাহারায় রেখেছিলেন কিংস ডিফেন্ডার টুটুল হোসেন বাদশা।

বক্সের ওপর থেকে মাপুকুর শট চলে যায় ক্রসবারের ওপর দিয়ে। ম্যাচের ৪২ মিনিটে ডি বক্সের বাইরে থেকে হেমন্ত ভিনসেন্টের চেষ্টা ক্রসবারে লেগে ফিরে এলে হতাশ হতে হয় শেখ রাসেলকে। অবশেষে বিরতির পর ৬৫ মিনিটে কিংস তাঁবুতে স্বস্তি ফেরান রবসন রবিনহো। পেনাল্টি থেকে গোল করে দলকে এগিয়ে নেন ব্রাজিলিয়ান তারকা। এর আগে ডি বক্সে তাকে ফাউল করেন রাসেলের মনির আলম। তাতেই পেনাল্টির বাঁশি বাজান রেফারি নাসির উদ্দিন।

ম্যাচে লিড পেয়ে আক্রমণে মনোযোগী হয় কিংস। সুযোগও আসে কয়েকটি। ৭১ মিনিটে ডি বক্সের বাইরে থেকে আসরর গফুরভের জোরালো শট ঝাঁপিয়ে ফিরিয়ে দেন রাসেল কিপার আশরাফুল ইসলাম রানা। তবে ৭৩ মিনিটে আর আটকাতে পারেনি। ব্যবধান দ্বিগুণ করে কিংস। রাসেলের উজবেক ডিফেন্ডার তিমুর তালিপভের ভুল পাস পেয়ে পান আসরর গফুরভ। একজনকে কাটিয়ে জায়গা করে বাম পায়ের মাপা শটে দূরের পোস্টে লক্ষ্যভেদ করেন উজবেকিস্তানে মিডফিল্ডার।

৮০ মিনিটে ম্যাচের সেরা সুযোগ নষ্ট করেন ডরিয়েল্টন গোমেজ। রবিনহোর পাসে ফাঁকা পোস্ট পেয়েও লক্ষ্যভেদ করতে পারেননি এই ব্রাজিলিয়ান। তবে দুই মিনিট বাদেই পাল্টা আক্রমণে এক গোল পরিশোধ করে খেলা জমিয়ে তোলে শেখ রাসেল। চার্লস দিদিয়ের পাসে এমফন উদো দূরের পোস্টে অনায়াসে জাল খুঁজে নেন। ঝাঁপিয়েও বলের নাগাল পাননি কিংস গোলরক্ষক আনিসুর রহমান জিকো। লিগে সাত গোল নিয়ে এখন পর্যন্ত সর্বোচ্চ গোলদাতা এমফন। ম্যাচের শেষ দিকে ফ্রিকিকে নিজের দ্বিতীয় এবং বসুন্ধরার তৃতীয় গোল করেন রবিনহো। এতেই বড় জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে কিংস।

×