ঢাকা, বাংলাদেশ   বৃহস্পতিবার ০২ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ২০ মাঘ ১৪২৯

monarchmart
monarchmart

সম্মেলনে ওবায়দুল কাদের 

সেফ এক্সিটের একমাত্র পথ হচ্ছে নির্বাচন

নিজস্ব সংবাদদাতা, গোপালগঞ্জ

প্রকাশিত: ১৮:১১, ১ ডিসেম্বর ২০২২

সেফ এক্সিটের একমাত্র পথ হচ্ছে নির্বাচন

গোপালগঞ্জে ত্রি-বার্ষিক সম্মেলনে বক্তব্য দেন ওবায়দুল কাদের। ছবি: জনকণ্ঠ

সরকারকে সেফ এক্সিট নিতে বিএনপি মহাসচিবের মন্তব্যের উদ্ধৃতি দিয়ে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, সেফ এক্সিট বা নিরাপদ প্রস্থানের একমাত্র পথ হচ্ছে নির্বাচন। আসুন, পরবর্তী নির্বাচনে আসুন। নির্বাচনেই প্রমাণ হবে, কারা বিজয়ী হবে, আর কাদের পতন হবে। সরকার পতনের হাঁক-ডাক দিয়ে কোন লাভ নেই। 

বৃহস্পতিবার (১ ডিসেম্বর) দুপুরে গোপালগঞ্জ শহরের পৌর পার্কে জেলা আওয়ামী লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলনে উদ্বোধকের বক্তব্যে এসব কথা বলেন তিনি।

ওবায়দুল কাদের বলেছেন, অভাবী মানুষ, সাধারণ মানুষ, স্বল্প আয়ের মানুষ কষ্টে আছে। এটা শেখ হাসিনা নিজেই স্বীকার করেন। তিনি চেষ্টা করছেন। এখনো বাংলাদেশে সোমালিয়া-সুদানের মতো দুর্ভিক্ষ হয়নি। এখনো আমরা অনেক দেশের তুলনায় ভালো আছি। শেখ হাসিনা ভালো থাকলে বাংলাদেশ ভালো থাকবে।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, ফখরুল এখন এক নাটক শুরু করেছেন। কোথাও সমাবেশ দিয়ে সাত দিন আগে থেকে মিথ্যাচার শুরু করেন। তারা বলেন, তাদের বাধা দেওয়া হচ্ছে। একদিকে তারা বলছে, সরকার বাধা দিচ্ছে অন্যদিকে তারা কাঁথা বালিশ, হাঁড়ি-পাতিল, চালের বস্তা, টাকার বস্তা, মশার কয়েল নিয়ে সমাবেশস্থলে হাজির হচ্ছেন।

বিএনপির বিভাগীয় গণসমাবেশ প্রসঙ্গে আ. লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, মুক্তিযুদ্ধের ঘোষণাস্থল, ৭ মার্চের ভাষণ, মুক্তিবাহিনীর-মিত্রবাহিনীর কাছে পাক হানাদার বাহিনীরা যেখানে আত্মসমর্পণ করে, সেই সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে ওনারা স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করছেন না। ফখরুল বলেছে, আমরা স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করি না। মুক্তিযুদ্ধকে আসলে তারা স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করে না। মুক্তিযুদ্ধ স্বাধীনতার নাম শুনলে ভেতরে-ভেতরে এদের বুকে আর অন্তরে জ্বালা করে; মুখে বলে না। ফখরুলের মুখে মধু অন্তরে বিষ।

ওবায়দুল কাদের বলেন, মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর সরকারকে সেইফ এক্সিট নিতে বলেছে। আমি বলতে চাই, সেইফ এক্সিট বা নিরাপদ প্রস্থানের একমাত্র পথ হচ্ছে নির্বাচন। নির্বাচনেই প্রমাণ হবে, কারা বিজয়ী হবে আর কাদের পতন হবে। সরকার পতনের হাঁকডাক দিয়ে কোনো লাভ নেই। তারা বাংলাদেশের কত টাকা পাচার করেছে সব শেখ হাসিনা খতিয়ে দেখছেন। এই টাকা উদ্ধার করা হবে। তারেক রহমানসহ টাকা পাচারকারী যারাই আছে প্রত্যেকের টাকা উদ্ধার করা হবে।

গোপালগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি চৌধুরী এমদাদুল হকের সভাপতিত্বে সম্মেলনে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের সভাপতি মণ্ডলীর অন্যতম সদস্য শেখ ফজলুল করিম সেলিম। বিশেষ অতিথি ছিলেন কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের সভাপতি মণ্ডলীর সদস্য মুহাম্মদ ফারুক খান, উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য কাজী আকরাম উদ্দিন আহম্মেদ, সাংগঠনিক সম্পাদক এস এম কামাল হোসেন, উপ-দপ্তর সম্পাদক সায়েম খান, কেন্দ্রীয় যুবলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নাইম। সম্মেলনে প্রধান বক্তা ছিলেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মির্জা আজম।

 

এসআর

monarchmart
monarchmart