শুক্রবার ১৬ আশ্বিন ১৪২৭, ০২ অক্টোবর ২০২০ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা
সর্বশেষ

অসাধু ব্যবসায়ীদের কারসাজিতে চালের দাম বাড়ছে

অসাধু ব্যবসায়ীদের কারসাজিতে চালের দাম বাড়ছে
  • সরকার কঠোর হলেও কৌশল বদলাচ্ছেন

তপন বিশ্বাস ॥ কোনভাবেই চাল ব্যবসায়ীদের নিয়ন্ত্রণ করা যাচ্ছে না। একের পর এক চালের দাম বাড়িয়ে চলেছেন তারা। কোন কারণ না থাকলেও অসাধু ব্যবসায়ীদের কারসাজিতে দাম বাড়ছে। সরকার যতই কঠোর হচ্ছে, ততই কৌশল বদলাচ্ছেন ব্যবসায়ীরা। এবার সরকারের ঘাড়ে দোষ চাপিয়ে চালের মূল্য বাড়িয়ে দিচ্ছেন তারা। ব্যবসায়ীদের বক্তব্য ত্রাণ বিতরণে সরকার মোটা চাল ব্যবহার করছে। এতে চাহিদা বেড়েছে। তাই এই চালের দাম বেড়ে যাচ্ছে। আবার কোথাও কোথাও অপরিবর্তীত রয়েছে চালের দাম। দাম কমার নজিরও রয়েছে কোথাও কোথাও। রাজধানীর বাজারে কোথাও দাম বাড়ছে, আবার কোথাও কমছে। এ নিয়ে ব্যবসায়ীরাও ভিন্ন মত পোষণ করছেন। এতে স্পষ্ট যে, চালের দাম বাড়ানো অসাধু ব্যবসায়ীদের কারসাজি মাত্র।

সম্প্রতি বাজারে মোটা চালের দাম বেড়েই চলেছে। কয়েক দফায় দাম বেড়ে বর্তমানে ৩২ টাকার গুটি (মোটা) চাল বিক্রি হচ্ছে ৪২ থেকে ৪৪ টাকা পর্যন্ত। বেড়েছে স্বর্ণা, পাইজামসহ অন্যান্য মোটা চালের দামও। তবে বাজারে মোটা চালের খুচরা দাম বাড়লেও চিকন চালের দাম রয়েছে আগের মতোই।

চালের দাম নিয়ে খোদ ব্যবসায়ীদের মধ্যেই রয়েছে ভিন্নমত। বড় ব্যবসায়ীরা বলছেন, সরকারীভাবে মোটা চাল কেনায় কিছুটা সঙ্কট রয়েছে মোটা চালের। তবে এরপরও বাজারে পর্যাপ্ত চালের মজুদ আছে, তাই দাম বাড়ার কোন কারণ নেই। তবে দেশের উত্তর ও পূর্বাঞ্চলে শুরু হওয়া বন্যা কতদিন থাকে বা এরপর কী হবে সেটা বলা যাচ্ছে না।

অন্যদিকে ছোট পাইকার ও খুচরা ব্যবসায়ীরা বলছেন, বাজারে মোটা চালের সঙ্কট চরমে, পাওয়া যাচ্ছে খুবই কম। তাছাড়া দামে কম হওয়ায় ত্রাণ বিতরণের সময় সবার চাহিদা থাকে মোটা চালের প্রতি। এজন্য চাহিদার তুলনায় সরবরাহ কম হওয়ায় দাম বেড়েছে মোটা চালের।

রামপুরা, মালিবাগ, খিলগাঁও ও কারওয়ান বাজারে প্রতিকেজি গুটি চাল বিক্রি হচ্ছে ৪২ থেকে ৪৪ টাকায়। তিন-চার দিন আগে বিক্রি হয়েছিল ৩৯ থেকে ৪০ টাকায়। আর দুই-তিন সপ্তাহ আগে এসব চাল বিক্রি হয়েছিল ৩২ থেকে ৩৪ টাকা কেজি দরে। বর্তমানে দাম বেড়ে প্রতিকেজি পাইজাম চাল বিক্রি হচ্ছে ৪৬ টাকায়, স্বর্ণা ৪২ থেকে ৪৪ টাকা কেজি দরে। দুই-তিন সপ্তাহ আগে এসব চাল বিক্রি হয়েছিল ৩৬ থেকে ৩৮ টাকা কেজি দরে। দাম বেড়ে আটাশ চাল বিক্রি হচ্ছে ৪৬ থেকে ৪৮ টাকা কেজি দরে, আতপ চাল ৬৫ থেকে ৬৬ টাকা, সরকারী মোটা চাল বিক্রি হচ্ছে ৪২ টাকা কেজি দরে।

তবে আগের দামে বিক্রি হচ্ছে চিকন চাল। এসব বাজারে খুচরা দামে প্রতিকেজি পোলাও চাল বিক্রি হচ্ছে ১০৫ থেকে ১১০ টাকা, নাজির ৬৫ থেকে ৬৬ টাকা, মিনিকেট ৫৬ থেকে ৬০ টাকা।

বাজারের পাইকারি দোকানগুলোতে প্রতি ৫০ কেজির বস্তা আটাশ চাল বর্তমানে বিক্রি হচ্ছে ২৩০০ টাকায়, পাইজাম ২২৫০, মোটা গুটি চাল ২০০০ টাকা, নাজির ২৫ কেজি বস্তা ১৪২০ থেকে ১৫০০ টাকা, বাঁশফুল ২৭০০ টাকা বস্তা।

কারওয়ান বাজারের খুচরা চাল ব্যবসায়ী ও জব্বার স্টোরের মালিক জব্বার বলেন, মোটা চাল দিয়ে সাহায্য (ত্রাণ) দেয়ায় এখন বাজারের মোটা চালের সঙ্কট তৈরি হয়েছে, পাওয়া যাচ্ছে না। তাই বেশি দাম রাখছেন পাইকাররা।

এ বাজারের পাইকারি চাল ব্যবসায়ী ও শাপলা রাইসের ম্যানেজার নোমান জানান, গত কিছুদিন ধরে মোটা চালের সঙ্কট রয়েছে। দামে কম হওয়ায় ত্রাণ বিতরণের জন্য মোটা চালের চাহিদা বেড়েছে। বাজারে চাহিদার তুলনায় মোটা চালের সরবরাহ কম হওয়ায় দাম বেড়েছে, সরবরাহ বাড়লে দাম কমে আসবে। তবে চিকন সব চাল আগের দামেই বিক্রি হচ্ছে বলে জানান তিনি।

অন্যদিকে রাজধানীর বাবুবাজার, কদমতলি, কৃষি মার্কেটে মোটা কিংবা চিকন কোন চালের দাম বাড়েনি। এর পরিবর্তে গত দু’দিন ধরে কিছুটা দাম কমেছে সব ধরনের চালের। তবে দেশের উত্তর ও পূর্বাঞ্চলে শুরু হওয়া বন্যা কতদিন থাকে সেটা নিয়ে সংশয় প্রকাশ করেছেন ব্যবসায়ীরা। তাদের মতে, চলমান বন্যায় ফসলের ব্যাপক ক্ষতি হলে পরবর্তীতে দাম বাড়তে পারে চালের। এটা ক্ষতির ওপর নির্ভর করছে, কিন্তু এখনই বাড়বে না চালের বাজার।

এ বিষয়ে বাবুবাজার ও কদমতলি বাজার চাল ব্যবসায়ী সমিতির সাধারণ সম্পাদক মোঃ নিজাম উদ্দিন বলেন, এখন কেন চালের দাম বাড়বে? এখন দাম বাড়ার পরিবেশ হয়নি বরং দাম কমেছে। গত কয়েকদিন ধরে সব ধরনের চালে এক টাকা পর্যন্ত দাম কমেছে। মোটা চালের চাহিদা কম, তাছাড়া অন্য চালের ক্রেতাও খুব বেশি নেই। তাই দাম বাড়ার প্রশ্নই ওঠে না।

তিনি বলেন, সরকারীভাবে এখন চাল সংগ্রহ হচ্ছে, তাই মোটা চালের সঙ্কট কিছুটা তৈরি হয়েছে। তবে বাজারে যে চাল মজুদ আছে সে তুলনায় ক্রেতা নেই। বাজারে ক্রেতা নেই তাহলে কেন দাম বাড়বে? যারা দাম বাড়াচ্ছেন তারা কেন চালের দাম বাড়াচ্ছেন জানি না।

বন্যা পরিস্থিতি নিয়ে নিজাম উদ্দিন বলেন, চালের মজুদ দেখে বোঝা যায় আগামী এক মাসে দাম বাড়বে না চালের বাজারে। বাজারে যে চাল আছে ক্রেতা না থাকায় আরও দাম কমবে। আমাদের চিন্তার বিষয় এখন চলমান বন্যা নিয়ে। দেখতে হবে এটা কতদিন থাকে, কী পরিস্থিতি হয় ফসলের। যদি ফসলের ব্যাপক ক্ষতি হয় তবে বাজারের পরিবেশ আগামীতে কী হবে তা বলতে পারব না।

করোনাভাইরাস আপডেট
বিশ্বব্যাপী
বাংলাদেশ
আক্রান্ত
৩৪১৮৭১৫৪
আক্রান্ত
৩৬৪৯৮৭
সুস্থ
২৫৪৪৮৩৩৬
সুস্থ
২৭৭০৭৮
শীর্ষ সংবাদ:
প্রাচ্যের সঙ্গে সংযোগের আদর্শ স্থান হতে পারে দেশ         থামছেই না ধর্ষণ ॥ সামাজিক ব্যাধিতে রূপ নিয়েছে         শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ছুটি ৩১ অক্টোবর পর্যন্ত বাড়ল         দলিত তরুণীর বাড়িতে যাওয়ার পথে রাহুল-প্রিয়াঙ্কা আটক         টিআইবির প্রতিবেদন তথ্যভিত্তিক ও সঠিক নয় ॥ কাদের         ঢাকায় গৃহকর্মীকে ধর্ষণ, ছাত্রলীগ নেতা রিমান্ডে         সরবরাহ বাড়লেও পেঁয়াজের দাম কমছে না         দেশে করোনায় মৃত্যু কমেছে         এক বছরের মধ্যে সব ঝুলন্ত তার অপসারণ         মহামারীর মধ্যেই হবে একুশে গ্রন্থমেলা         বিচার বিভাগীয় তদন্ত দলের ঘটনাস্থল পরিদর্শন         ৪ অক্টোবর থেকে ভিটামিন ‘এ’ প্লাস ক্যাম্পেন         মাদকাসক্ত পুলিশ ও কারবারিদের তালিকা হচ্ছে ৬৪ জেলায়         ফ্লাইটে সর্বোচ্চ ২৬০ ও মাঝারি এয়ারক্রাফটে ১৪০ যাত্রী নেয়া যাবে         এমসি কলেজে ধর্ষণ : জড়িতদের ছাড় দেয়া হবে না : পররাষ্ট্রমন্ত্রী         চিনিশিল্পকে নতুন করে সাজানোর উদ্যোগ নিয়েছে এই সরকার : শিল্পমন্ত্রী         করোনায় প্রাণ গেল বিএসএমএমইউ অধ্যাপকের         করোনায় কেউ না খেয়ে মারা না গেলেও থালায় ভাতের পরিমাণ কমে যাচ্ছে ॥ মেনন         নতুন জলাধার সৃষ্টি ও বিদ্যমানগুলোর ধারণক্ষমতা বাড়ানোর তাগিদ প্রধানমন্ত্রীর         করোনা ভাইরাসে আরও ২১ জনের মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ১৫০৮