মঙ্গলবার ১৪ আশ্বিন ১৪২৭, ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২০ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা
সর্বশেষ

করোনায় কেনাকাটা অর্ধেক কমে গেছে

অর্থনৈতিক রিপোর্টার ॥ দেশে নতুন করে করোনাভাইরাস আক্রান্ত রোগী না পাওয়া গেলেও জনমনে আতঙ্ক যেন কাটছে না। এর প্রভাবে কমে গেছে জনসমাগম, গণপরিবহনে যাত্রী চলাচল। প্রায় শূন্যের কোঠায় চলে এসেছে অভিবাদন জানানোর অন্যতম মাধ্যম হ্যান্ডশেক করা।

বাইরে চলাচলকারীর অধিকাংশই এখন মাস্ক ব্যবহার করছেন। কমিয়ে দিয়েছেন ফুটপাথে সিগারেট বা চা পান করা। করোনাভাইরাসের প্রভাব পড়েছে শপিংমলগুলোতেও। বিক্রেতারা বলছেন, গণমাধ্যমে দেশে করোনাভাইরাস আক্রান্ত রোগীর নিউজ প্রকাশের পর অর্ধেকে কমেছে বেচাকেনা। তবে শপিংমলে বিক্রি কমলেও ফুটপাথগুলোতে কিছুটা বেচাকেনা হচ্ছে। তবে বিক্রি তুলনামূলক কম হচ্ছে বলে জানান বিক্রেতারা।

রাজধানীর মিরপুর শপিং সেন্টার, শাহ আলী মার্কেট, মুক্তবাংলা মার্কেট, কো-অপারেটিভ মার্কেট, ফরচুন শপিংমল, মৌচাক মার্কেট, আনারকলি মার্কেট, ইস্টার্ন প্লাজা, গাজী ভবন শপিং সেন্টার, পাওয়েল মার্কেট ঘুরে এসব চিত্র উঠে এসেছে।

এসব মার্কেট ঘুরে দেখা যায়, এক মাস আগে মার্কেটগুলোতে যেমন জনসমাগম থাকত, বিক্রেতারার ব্যস্ত থাকতেন পণ্য বিক্রিতে; এখন তার উল্টো চিত্র, মার্কেটে ক্রেতার উপস্থিতি নেই বললেই চলে। অর্ধেকের কমে নেমে এসেছে বেচাকেনা। অলস সময় কাটাতে দেখা গেছে দোকান মালিক ও কর্মচারীদের।

দোকানিরা বলছেন, এখন ঈদের সিজন না হলেও দিনে ৩০ থেকে ৩৫ হাজার টাকা পণ্য বিক্রি হয়। কোথাও আবার ৫০ থেকে লক্ষাধিক টাকার পণ্য বিক্রি হয়। তবে দেশের মধ্যে তিনজন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগী পাওয়া পর পরই বেচাকেনা কমেছে অর্ধেক। কোন কোন দোকানে আবার অর্ধেকের কম বিক্রি হচ্ছে।

মিরপুর শপিং সেন্টারে আফসার আলী নান্টুর দুটি দোকান রয়েছে। তার দুটি দোকান থেকে দিনে ৭০ হাজার থেকে লক্ষাধিক টাকার বিক্রি হতো। এখন তার দিনে বেচাকেনার পরিমাণ ৩০ হাজার টাকার কম।

তিনি বলেন, করোনাভাইরাস আক্রান্ত রোগী দেশের মধ্যে পাওয়া এবং গণমাধ্যমে খবর প্রকাশের পর থেকে ক্রেতারা আর মার্কেটেও আসছেন না। শুক্রবার দুপুর পর্যন্ত দুটি দোকানে তিন হাজার ৫০০ টাকার বিক্রি হয়েছে। অথচ ভ্যাট বাদেই দুটি দোকানে দিনে খরচ চার হাজার টাকা। এমন চলতে থাকলে খরচ যোগান দেয়া কষ্টকর হয়ে পড়বে।

একই কথা জানান মৌচাক মার্কেটের বিক্রেতা হাজী ইকবাল হোসেন। তিনি বলেন, এর আগে বাচ্চারা দোকানে এলে আমরা আদর করে পছন্দের পোশাক কিনতে সহযোগিতা করতাম। এখন ক্রেতা নেই, আবার বাচ্চার শরীরে হাত দিলে অভিভাবক রাগ করছেন। করোনাভাইরাসের সংক্রমণের পর থেকেই এমন হচ্ছে।

তাদের মতো একই অবস্থা রয়েছে ঢাকার অন্য সব মার্কেটে। তবে ভিন্নতা লক্ষ্য করা গেছে ফুটপাথ মার্কেটে। সেখানে বিক্রির পরিমাণ সামান্য কমেছে। বিক্রেতারা বলছেন, মাসের শুরুতে বিক্রি ভাল হয়, মাঝামাঝি সময়ে বিক্রি কিছুটা কমে আসে। এটা করোনাভাইরাসের কারণে নয় বলে জানান তারা।

পল্টন বায়তুল মোকাররম এলাকার ফুটপাথ ব্যবসায়ী কালু বলেন, আমাদের বিক্রি ভাল ধরা যায়, এমনিতেই মাসের মাঝামাঝি সময়ে বিক্রি কম থাকে শুরুতে বিক্রি ভাল থাকে। এটা করোনাভাইরাসের কারণে নয়।

শীর্ষ সংবাদ:
সাহেদের যাবজ্জীবন ॥ আড়াই মাসেই অস্ত্র মামলায় রায়         আনুষ্ঠানিকতা ছাড়াই শেখ হাসিনার জন্মদিন পালন         বেসরকারী মেডিক্যাল ও ডেন্টাল কলেজ আইনের খসড়া অনুমোদন         এ পর্যন্ত ৭ জন গ্রেফতার ৩ জন রিমান্ডে বিক্ষোভ, সমাবেশ         বিদেশী ঋণে জর্জরিত ঢাকা ওয়াসা         সুপ্রীমকোর্ট প্রাঙ্গণে মাহবুবে আলমকে শেষ শ্রদ্ধা         দেশে করোনা রোগী শনাক্তের হার বেড়েছে         দুর্ভোগ পিছু ছাড়ছে না সৌদি প্রবাসীদের         মুজিববর্ষে গৃহহীনদের ৯ লাখ ঘর দেবে সরকার         তদারকির অভাব নৌ যোগাযোগ খাতে         আজন্ম উন্নয়ন যোদ্ধার অপর নাম শেখ হাসিনা ॥ কাদের         অসময়ের বন্যায় ব্যাপক ক্ষতির মুখে কৃষক         মৌজা ও প্লটভিত্তিক ডিজিটাল ভূমি জোনিং ম্যাপ হচ্ছে         শেখ হাসিনার জন্মদিনে স্মারক ডাকটিকিট অবমুক্ত         নবেম্বরে আসতে পারে করোনা ভাইরাসের ভ্যাকসিন ॥ স্বাস্থ্যমন্ত্রী         শেখ হাসিনার হাত শক্তিশালী করুন ॥ স্পিকার         কর্মের মধ্য দিয়ে দলের চেয়ে অধিক জনপ্রিয় শেখ হাসিনা ॥ কাদের         এমসি কলেজে ধর্ষণ ॥ সাইফুর, অর্জুন ও রবিউল রিমান্ডে         ঢাকা-১৮ ও সিরাজগঞ্জ-১ উপনির্বাচন ১২ নবেম্বর         শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলতে চাইলে মত দেবে মন্ত্রিসভা