সোমবার ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৮, ০৬ ডিসেম্বর ২০২১ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা

কনকনে ঠাণ্ডায় কাঁপছে দেশ, ঢাকায় সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ১৪.১ ডি.সে.

স্টাফ রিপোর্টার ॥ সারাদেশের তাপমাত্রা একযোগে নেমেছে। সূর্যের মুখ দেখা যায়নি শনিবার সারাদিন। বাতাসের আর্দ্রতাও ছিল অনেক বেশি। সব মিলিয়ে প্রচণ্ড ঠাণ্ডায় কাহিল দেশবাসী। আবহাওয়া অফিস জানায়, সারাদেশে তৃতীয় দফা বৃষ্টির পর তাপমাত্রা আবার নিচে নেমে যাচ্ছে। সারাদেশে দিন-রাতের তাপমাত্রা আরও কমে যাওয়ার আভাস দেয়া হয়েছে। আজ থেকে শীত আরও বাড়তে পারে।

আবহাওয়াবিদ আরিফ হোসেন জনকণ্ঠকে বলেন, আগামী ১৪ জানুয়ারি পর্যন্ত তাপমাত্রা কমে শীত বাড়বে। চৌদ্দর পর তাপমাত্রা আবার কিছুটা বাড়তে পারে। ফের কমে শীত অনুভূত হবে। তিনি জানান, শনিবার সারাদেশে প্রচণ্ড শীত অনুভূত হলেও কোথাও শৈত্যপ্রবাহ ছিল না। দেশের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ঈশ্বরদীতে ১০.২ ডিগ্রী সেলসিয়াস রেকর্ড করা হয়েছে।

আবহাওয়াবিদরা জানান তাপমাত্রা ১০ ডিগ্রী সেলসিয়াসের নিচে নামলেই কেবল শৈত্যপ্রবাহ হিসেবে গণ্য হয়। কিন্তু শনিবার সারাদেশ কনকনে ঠা-ায় আচ্ছন্ন থাকলেও তাপমাত্রা ১০ ডিগ্রীর ওপরে ছিল। অবশ্য আবহাওয়াবিদ আরিফ হোসেন বলেন, সারাদেশে একযোগে তাপমাত্রা নেমে যাওয়ার পাশাপাশি সর্বোচ্চ ও সর্বনিম্ন তাপমাত্রার ব্যবধানও কমেছে। ফলে শীতের তীব্রতা বেড়েছে। তিনি জানান, রাজধানী ঢাকায় সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয় ১৪.১ ডিগ্রী ও সর্বোপরি ১৭ ডিগ্রী সেলসিয়াস। এই দুয়ের মধ্যে ব্যবধান মাত্র ৩ ডিগ্রীর কম। ফলে শীতের তীব্রতা অনেক বেড়ে গেছে।

আবহাওয়াবিদদের মতে তাপমাত্রা সাধারণত ১৮ ডিগ্রী সেলসিয়াসের নিচে নামলে স্বাভাবিক শীত অনুভূত হয়। শনিবার সব বিভাগে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ১৫ ডিগ্রী থেকে ১০ ডিগ্রী সেলসিয়াসের মধ্যে নেমে এসেছে। অপরদিকে সর্বোচ্চ তাপমাত্রাও বেশির ভাগ জায়গায় ২২ ডিগ্রী সেলসিয়াসের মধ্যে অবস্থান করছে। তারা জানান আজ (রবিবার) তাপমাত্রা আরও কমে যেতে পারে। সেক্ষেত্রে শীতের মাত্রা আজ আরও বাড়তে পারে। ১৪ জানুয়ারি পর্যন্ত এই অবস্থা চলতে পারে। তারা জানান ২১ তারিখের পর শীতের মাত্রা আস্তে আস্তে কমে আসবে।

শীর্ষ সংবাদ: