সোমবার ১২ আশ্বিন ১৪২৭, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২০ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা
সর্বশেষ

রামেকে শ্রমিকদের মজুরির ৭০ ভাগই ঠিকাদারের পকেটে

স্টাফ রিপোর্টার, রাজশাহী ॥ নিয়মমাফিক কাজ করেও নির্ধারিত মজুরি পাচ্ছেন না রাজশাহী মেডক্যাল কলেজ হাসপাতালের দৈনিক মজুরিভিত্তিক শ্রমিকরা। রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে এদের সংখ্যা ১৭৫ জন। তারা নিয়মিত অফিসে হাজিরা দেন। তারপর হাড়ভাঙ্গা পরিশ্রম করেন। সারামাস পরিশ্রম করে তাদের কপালে জোটে মাত্র ৮০০ থেকে এক হাজার ৫০০ টাকা বেতন। অথচ তাদের মাস শেষে মজুরি পাওয়ার কথা ৪ হাজার ১৭০ টাকা। শ্রমিকদের এমন বেতন অমানবিক বলে দাবি করেছেন রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ (রামেক) হাসপাতালের দৈনিক মজুরিভিত্তিক শ্রমিকরা। নির্ধারিত মজুরি কম দেয়ার কারণে রামেক হাসপাতালের চিকিৎসাসেবা চরমভাবে ব্যাহত হচ্ছে। এছাড়া এমন অল্প বেতন নিয়ে শ্রমিকদের মধ্যে হতাশা বিরাজ করছে।

রামেক হাসপাতাল সূত্র জানায়, প্রতিদিন শ্রমিকপ্রতি ১৩৯ টাকা করে বরাদ্দ দেয়ার চুক্তিতে কাজ পান ঠিকাদার। কিন্তু শ্রমিকদের প্রতিদিনের মজুরি দেয়া হচ্ছে ৩৫ থেকে ৫০ টাকা। ঠিকাদারের মাধ্যমে এসব শ্রমিক কাজে নেয় রামেক হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ।

রামেক হাসপাতালের দৈনিক মজুরিভিত্তিক শ্রমিকরা জানান, দীর্ঘদিন ধরে তারা হাসপাতালে কাজ করে আসছে। পৃথিবীর সব জায়গায় দ্রব্যমূল্যের উর্ধগতির কারণে বেতন বাড়ে। অথচ রামেক হাসপাতালই ব্যতিক্রম যেখানে দিনে দিনে কমে যাচ্ছে মজুরি। এসব ঠিকাদারের কারসাজি বলে অভিযোগ করেন তারা। নাম প্রকাশ না করার শর্তে দৈনিক মজুরিভিত্তিক শ্রমিকরা জানান, কয়েক বছর আগে রামেক হাসপাতালের একজন দৈনিক মজুরিভিত্তিক শ্রমিক বেতন পেতেন ৩ হাজার থেকে সাড়ে ৩ হাজার টাকা। কিন্তু দিনে দিনে তা কমে ৮০০ থেকে এক হাজার ৫০০ টাকায় গিয়ে ঠেকেছে।

রামেক হাসপাতাল সূত্র জানায়, ঠিকাদারের মাধ্যমে দৈনিক মজুরিভিত্তিক শ্রমিক হাসপাতালে খাটানো হয়ে থাকে। বর্তমানে হাসপাতালে ১৭০ থেকে ১৭৫ জন দৈনিক মজুরিভিত্তিক শ্রমিক কাজ করে। ঠিকাদারের লোকজন এসব শ্রমিকের বেতন দিতে তিনটি খাতা ব্যবহার করে। ১ নম্বর খাতায় আছে অভিজ্ঞ শ্রমিকরা। এরা দীর্ঘদিন ধরে রামেক হাসপাতালে কাজ করে আসছেন। এ খাতায় তালিকাভুক্ত শ্রমিকরা বেতন পেয়ে থাকের এক হাজার ৫০০ টাকা করে। অপরদিকে ২ নম্বর খাতায় অন্তর্ভুক্ত শ্রমিকরা তুলনামূলক কম অভিজ্ঞ। তাদের মাসিক বেতন দেয়া হয় এক হাজার টাকা। আর ৩ নম্বর খাতায় শ্রমিকদের মাসিক বেতন দেয়া হয় ৮০০ টাকা।

দৈনিক মজুরিভিত্তিক শ্রমিকদের কয়েকজন অভিযোগ করেন, বেতন নিয়ে ভয়ে কেউ মুখ খোলেন না। কেউ মুখ খুললে তার চাকরি থাকে না। নানান অপবাদ দিয়ে তাদের চাকরি থেকে বের করে দেয়া হয়। বেকার হয়ে যাওয়ার ভয়ে ঠিকাদারের বিরুদ্ধে কেউ মুখ খোলার সাহস পায় না।

এ বিষয়ে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধি তারেক জানান, রামেক হাসপাতালের দৈনিক মজুরিভিত্তিক শ্রমিকদের সরবরাহ করার কাজটি পেয়েছেন কুষ্টিয়ার টিএসএস নামে একটি ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের আশরাফুদ্দৌলা নামে এক ব্যক্তি। তিনি (তারেক) স্থানীয় প্রতিনিধি হিসেবে কাজ করেন।

শীর্ষ সংবাদ:
উন্নয়নের কান্ডারি শেখ হাসিনার জন্মদিন আজ         এ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম আর নেই         শেখ হাসিনার জীবন সংগ্রামের ॥ তথ্যমন্ত্রী         স্বামীর জন্য রক্ত জোগাড়ের কথা বলে ধর্ষণ, দুজন রিমান্ডে         ডোপ টেস্টে আরও ১৪ পুলিশ শনাক্ত         চীনা ভ্যাকসিনের ঢাকা ট্রায়াল নিয়ে সংশয়         দেয়াল চাপায় সাত জনের মৃত্যু         করোনায় মৃত্যু কমলেও বেড়েছে নতুন রোগী         অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলমের মৃত্যুতে প্রধানমন্ত্রীর শোক         অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম আর নেই         উন্নয়নে প্রতিবেশীদের সঙ্গে আরও দৃঢ় সহযোগিতায় জোর প্রধানমন্ত্রীর         সিলেটের ঘটনায় সরকার কঠোর অবস্থানে আছে ॥ কাদের         ভার্চুয়াল কোর্টেকে আরো সাফল্য মন্ডিত করতে বিচারক ও আইনজীবীদের প্রশিক্ষণ প্রয়োজন ॥ আইনমন্ত্রী         নারায়ণগঞ্জে মসজিদে বিস্ফোরণ ॥ নিহত ও আহত ৩৮ পরিবারের মাঝে ৫ লাখ টাকা করে প্রধানমন্ত্রীর অনুদান বিতরণ         স্বাস্থ্যখাতের দুর্নীতি ॥ বন্ধ করতে দুদকের ২৫ সুপারিশ বাস্তবায়নে রিট         ‘অক্সফোর্ডের বাংলাদেশে পাঁচ লাখ মানুষের মৃত্যুর আশঙ্কা ভুল প্রমাণিত হয়েছে’         এমসি কলেজের ছাত্রাবাসে গণধর্ষণের শিকার গৃহবধূর আদালতে জবানবন্দি         এমসি কলেজ ছাত্রাবাসে গণধর্ষণ ॥ সাইফুরের পর অর্জুন গ্রেফতার         করোনা ভাইরাস ॥ ভারতে সংক্রমণ ৬০ লাখ ছুঁই ছুঁই         ধর্ষনের ঘটনায় ভিপি নূরসহ সকল আসামী ঢাবিতে অবাঞ্চিত