মঙ্গলবার ৩০ আষাঢ় ১৪২৭, ১৪ জুলাই ২০২০ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা
সর্বশেষ

বেলুন বিক্রেতা সাইদ

পথে-প্রান্তে, মাঠে ও মেলাসহ নানান জায়গায় ঘুরে ঘুরে বিভিন্ন আকৃতির বেলুন বিক্রি করে জীবন ধারণ করছেন চল্লিশোর্ধ সাইদ উল্ল্যাহ। বেলুন হালকা হলেও বহন করা কষ্টের। কারণ বাতাসের সঙ্গে সঙ্গে দোল খায় বেলুন। গ্যাস ভরে ফুলিয়ে বিক্রি করতে হয় এ ধরনের বেলুন। নানান রঙ-বেরঙের বেলুন দেখেই আকৃষ্ট হয় শিশুরা। আবার অনেক সময় অভিভাবকরাও শিশুদের আনন্দ দিতে বেলুন কিনে নিয়ে যান। সব শ্রেণীর শিশুদের বেলুন খেলনা খুবই প্রিয়। আর যদি বেলুনের আকৃতি হয় উড়োজাহাজ কিংবা ডলফিন মাছ, তা হলে তো কথাই নেই। এছাড়া রয়েছে ঘোড়া, গরু ও জেব্রাসহ নানা ধরনের পশু পাখি ও জলজ প্রাণীর আকৃতি বেলুন। গ্যাস দিয়ে ফুলিয়ে-ফাঁপিয়ে বেলুনকে পশু-পাখি ও জলজ প্রাণীর মতো নানা আকৃতিতে পরিণত করা হয়। ফুলানো বেলুন বাতাসের সঙ্গে দুলতেও দেখা যায়। বেলুনের এক মাথায় সুতো দিয়ে বেঁধে রাখা হয়। রঙ-বেরঙের বেলুন নিয়ে ছুটে বেরিয়ে পড়েন সাইদুল উল্ল্যাহ। কিছুদিন আগে বেলুন বিক্রেতা সাইদ উল্ল্যাহর সঙ্গে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলার শিমরাইলে কথা হয় এ প্রতিবেদকের। এ সময় জানান তার আশা-আকাক্সক্ষা ও বেলুন বিক্রির নানা কাহিনী।

সাইদ উল্ল্যাহ। বাবা শহির উদ্দিন। ময়মনসিংহ জেলার শ্রীবরদী থানার শংকর ঘোষ গ্রাম থেকে বিশ বছর আগে জীবিকার তাগিদে ছুটে আসেন প্রাচ্যের ডান্ডি খ্যাত নারায়ণগঞ্জে। বর্তমানে ২০০০ টাকায় ভাড়া থাকেন নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের ৮নং ওয়ার্ডের ২নং ঢাকেশ্বরী এলাকায়। বেছে নেন দিন-মজুরের কাজ। নির্মম পাঁজর ভাঙ্গা খাটুনি দিতে হয় দিন মুজুরের কাজে। প্রতিদিন ভোর থেকে দুপুর পর্যন্ত এক স্থান থেকে অন্য স্থানে নিয়ে যেতে হয় ইট বালু। বিনিময়ে ৪শ’-৫শ’ টাকা আয় হয়। কিন্তু প্রতিদিন দিনমজুরের কাজে যাওয়া সম্ভব হয় না। কারণ ইট বালু টানার কাজ করলে সারা শরীর ব্যথা হয়ে যায়। ফলে সাইদ উল্ল্যাহ খুঁজতে থাকেন সহজ পরিশ্রমের কাজ। অবশেষে খুঁজে নেন হেঁটে বেলুন বিক্রির ব্যতিক্রম পেশা। পাইকারী বেলুন কিনে ফেরি করে বিক্রি করছেন। প্রতিদিন ৪০-৫০টি বেলুন গ্যাস দিয়ে ফুলিয়ে ছুটে যান বিভিন্ন স্থানে।

কিন্তু সড়ক-মহাসড়কের বাসস্ট্যান্ডগুলোতে বেলুন বিক্রি হয় বেশি। শিশুরা বেলুনের পাশ দিয়ে যাওয়ার সময় বায়না ধরেন বেলুনের কিনতে। ফলে তাদের অভিভাবকরা শিশুদের কিনে দিতে বাধ্য হন বেলুন। প্রতিটি বেলুন ৫০-৬০ টাকায় বিক্রি হয়। কোন কোন দিন বেলুন বিক্রি করে ৪শ’/৫শ’ টাকা আয় হয়। সাইদ উল্ল্যাহর স্ত্রী বানু আদমজী ইপিজেডে কাজ করেন। স্বামী-স্ত্রীর আয় দিয়েই চলছে তাদের সংসার। তাদের গ্রামের বাড়িতে বাবার কিছু চিহ্ন ছাড়া আর কোন সহায়-সম্বল বলতে কিছুই নেই তার। তাদের একমাত্র শিশু পুত্র সায়েম। সাইদ উল্ল্যাহ গরিব বাবার সন্তান হওয়ায় ইচ্ছে থাকা সত্ত্বেও স্কুলের গ-িতে পা রাখতে পারেননি। তাই কার জীবনে পূর্ণতা পাননি বলে মনে করেন তিনি।

-মোঃ খলিলুর রহমান, নারায়ণগঞ্জ থেকে

শীর্ষ সংবাদ:
করোনা ভাইরাসে সুস্থের সংখ্যা লাখ ছাড়াল, মৃত্যু আরও ৩৩ জনের         করোনা ভাইরাসের নমুনা পরীক্ষায় অনিয়ম সহ্য করা হবে না         ভার্চুয়ালেই চলবে সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগ         বগুড়া-১ ও যশোর-৬ সংসদীয় আসনে ভোটগ্রহণ চলছে         ডিবি কার্যালয়ে ডা. সাবরিনা         বিশেষ ফ্লাইটে ওমান থেকে ফিরলেন ২৫৪ বাংলাদেশি         বেসরকারি চাকরিজীবীদেরও ঈদে কর্মস্থলে থাকতে হবে         অপুষ্টির বিচারে আফ্রিকার চেয়েও খারাপ অবস্থা এশিয়ার         করোনা ভাইরাসে কমপক্ষে ৩ হাজার স্বাস্থ্যকর্মীর মৃত্যু হয়েছে ॥ অ্যামনেস্টি         করোনা ভাইরাসের বিরুদ্ধে মানুষের প্রতিরোধ ক্ষমতা স্বল্পস্থায়ী ॥ গবেষণা         এবার ট্রাম্প প্রশাসনের 'টার্গেট' ফাউচি         যুক্তরাষ্ট্রে ফাস্ট ট্র্যাক মর্যাদা পেলো করোনা ভাইরাসের দুই ভ্যাকসিন         হংকংয়ে গণপরিবহনে মাস্ক না পরলে ৫ হাজার হংকং ডলার জরিমানা         সুনামগঞ্জের সার্বিক বন্যা পরিস্থিতি অপরিবর্তিত         আফগান গোয়েন্দা কার্যালয়ে গাড়ি বোমা হামলায় নিহত ১১         কোয়ারেন্টাইনে বিরক্ত ব্রাজিলের প্রেসিডেন্ট         হায়া সোফিয়া ইস্যুতে এরদোয়ানের পক্ষে রাশিয়া         দক্ষিণ চীন সাগরে বেইজিংয়ের প্রকল্প অবৈধ ॥ যুক্তরাষ্ট্র         দোকানে মাস্ক না রাখলে জরিমানা        
//--BID Records