ঢাকা, বাংলাদেশ   বৃহস্পতিবার ৩০ জুন ২০২২, ১৬ আষাঢ় ১৪২৯

পরীক্ষামূলক

খেলা

শ্রীলঙ্কায় শেষ ম্যাচ খেলবে আজ বাংলাদেশ

প্রকাশিত: ০৬:২৪, ৬ এপ্রিল ২০১৭

শ্রীলঙ্কায় শেষ ম্যাচ খেলবে আজ বাংলাদেশ

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ সময় কত দ্রুত ফুরিয়ে যায়। দেখতে দেখতে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে বাংলাদেশের পূর্ণাঙ্গ সিরিজ শেষ হওয়ার সময় ঘনিয়ে এসেছে। আজ শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে দুই ম্যাচের টি২০ সিরিজের দ্বিতীয় ও শেষ ম্যাচটি খেলতে নামবে বাংলাদেশ। এ ম্যাচটি শেষ হতেই বাংলাদেশের শ্রীলঙ্কা সফরও শেষ হয়ে যাবে। এবারের শ্রীলঙ্কা সফরে তাই বাংলাদেশের শেষ ম্যাচ এটি। ম্যাচটি আবার বাংলাদেশের জন্য মহাগুরুত্বপূর্ণ। প্রথম টি২০তে ৬ উইকেটে হারে বাংলাদেশ। সিরিজে ১-০ ব্যবধানে পিছিয়ে রয়েছে। আজ রাত সাড়ে সাতটায় কলম্বোর প্রেমাসাদা স্টেডিয়ামে দ্বিতীয় টি২০ ম্যাচটি শুরু হবে। টি২০ সিরিজে হোয়াইটওয়াশ এড়াতে হলে বাংলাদেশকে জিততেই হবে। হারলেই সিরিজ হারতো হবেই, সেই সঙ্গে এবারের শ্রীলঙ্কা সফরে প্রথমবারের মতো কোন সিরিজে হোয়াইটওয়াশও হবে বাংলাদেশ। টেস্ট সিরিজ ১-১ এবং ওয়ানডে সিরিজ ১-১ ড্র করার পর এখন টি২০ সিরিজও ১-১ করার চেষ্টাই করবে বাংলাদেশ। তবে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ম্যাচটি জয়ের চেয়েও বেশি অন্যদিকে মনোযোগী বাংলাদেশ দলের ক্রিকেটাররা। তারা ম্যাচটি জিততে চায়। তবে সেটি অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজার জন্য। টি২০ থেকে মাশরাফির বিদায়ী ম্যাচ এটি। এ ম্যাচটিতে তাই মাশরাফির জন্য খেলতে নামবেন ক্রিকেটাররা। আর তাকে জয় উপহার দিতেও চেষ্টার কোন ত্রুটি করবেন না। মাশরাফির বিদায়ের ঘোষণা শোনার পর মর্মাহত হয়ে পড়েন ক্রিকেটাররা। জয় দিয়েই মাশরাফিকে বিদায় দিতে চান। দলের নির্ভরযোগ্য হয়ে ওঠা অলরাউন্ডার মোসাদ্দেক হোসেন সৈকতই এমনটি জানিয়েছেন। বুধবার টিম হোটেলে সাংবাদিকদের বলেছেন, ‘জয়ের তো কোন বিকল্প নাই। আমি ব্যক্তিগতভাবে বলব, আমরা দ্বিতীয় টি২০ খেলব শুধু মাশরাফি ভাইয়ের জন্য। আমরা সবাই চাইব ওই ম্যাচ জিতে তাকে বিদায়ী উপহার দেয়ার জন্য।’ সঙ্গে যোগ করেন, ‘একটা ম্যাচ জেতার পর সবার মধ্যে যে আনন্দ থাকে, একটা ম্যাচ হারার পর সবার মধ্যে তার সমানই বেদনা থাকে। গত ম্যাচ হারের পর সবার মধ্যেই সেই বেদনা কাজ করছে। প্রথম ম্যাচ হারের পর তো বলতে পারছি না, জিতব। ড্র ছাড়া আমাদের সামনে আর কোন পথ নেই। আমাদের সামনে একটাই ম্যাচ সেটায় জিতে সিরিজ ড্র করার চেষ্টা করব। টি২০তে অনেক বেশি ইতিবাচক থাকতে হয়, অনেক বেশি আক্রমণাত্মক থাকতে হয়। আমাদের ব্যাটসম্যানদের সবাই ছন্দে আছে, সবাই রান পাচ্ছে। তারা যদি শেষ করে আসতে পারে তাহলে আমাদের জেতা সম্ভব।’ আর জয়টি মাশরাফির জন্যই পেতে চাইবেন ক্রিকেটাররা। তাতে করে টি২০ সিরিজেও বাংলাদেশ ড্র করতে পারবে। তবে দলের যে অবস্থা, তাতে সবাই ভেঙ্গে পড়েছেন। মাশরাফির বিদায়ে মর্মাহত হয়ে পড়েছেন সবাই। এমন সময় কী আর জেতার মতো শক্তি থাকে? মাশরাফির বিদায়ের ঘোষণায় বিষণœœ হয়ে পড়েছেন ক্রিকেটাররা। সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যম ফেসবুকেই তা বোঝা যাচ্ছে। বাংলাদেশ টেস্ট অধিনায়ক মুশফিকুর রহীম তার ফেসবুক পেজে লিখেছেন, ‘সব অসাধারণ জিনিসের সমাপ্তি আছে। এটি হয়তো তারই একটি। ম্যাশকে ছাড়া বাংলাদেশ দল এটা আমাদের জন্য ভাবা কঠিন। আপনি সত্যিকারের চ্যাম্পিয়ন। আপনার মতো নেতার অধীনে খেলতে পেরে নিশ্চিত আমার মতো সবাই গর্বিত... আমরা সবাই ভীষণ হতাশ, আপনি টি২০’র জার্সিটা অনেক অনুভব করবেন। ধন্যবাদ ম্যাশ।’ তামিম যেমন তার ফেসবুক ফ্যানপেজে লিখেছেন, ‘মানুষটা যখন আমাদের অধিনায়ক মাশরাফি ভাই, তাকে নিয়ে যত বলবেন, ততই যেন বলার বাকি থাকে। তার হয়তো বিশ্ব রেকর্ড নেই কিংবা অন্যান্য দেশের কিংবদন্তি বোলারদের মতো ৪০০-৫০০ উইকেট নেই। তবে সন্দেহ নেই বাংলাদেশের ক্রিকেটে তিনি বড় দাগই রেখে যাচ্ছেন। বাংলাদেশ ক্রিকেটে এখন যে বদল, সেটি তার অসাধারণ অধিনায়কত্বে সওয়ার হয়েই। আমার কাছে এটা বিশ্ব রেকর্ড কিংবা ৪০০ উইকেট নেয়ার মতোই দুর্দান্ত কিছু। ড্রেসিংরুম কিভাবে একটা পরিবার হয়, একই সময়ে কিভাবে ভাল ফল পাওয়া যায়, সেটি তিনিই আমাদের দেখিয়েছেন।’ মাহমুদুল্লাহ রিয়াদও যেন চুপ থাকতে পারলেন না, ‘আপনাকে সত্যি মিস করব, বিশেষ করে আমি। আপনি আমার ভাই, বন্ধু, যার কাছে সব বলা যায়। আপনি একজন যোদ্ধা, বড় নেতা, অধিনায়ক এবং সত্যিকারের চ্যাম্পিয়ন। খুবই খারাপ লাগছে। কিন্তু এটাই বাস্তবতা।’ তাসকিন আহমেদ ফেসবুকে আবেগঘন স্ট্যাটাস দিয়েছেন, ‘জানি না আর কতদিন এই হাতটা খেলার মাঠে আমার কাঁধে পাব। জাতীয় দলে অভিষেক হওয়ার আগ থেকেই আপনি আমার আদর্শ। গত তিন বছর ধরে একজন অভিভাবকের চেয়েও অনেক বেশি। সব সমস্যার সমাধানকারী হিসেবে বারবার আপনাকেই জ্বালাব...।’ সতীর্থদের কাছে যিনি চ্যাম্পিয়ন, সেই মাশরাফিই আজ টি২০ থেকে অবসর নিচ্ছেন। এটি এবারের শ্রীলঙ্কা সফরে বাংলাদেশের শেষ ম্যাচও।