ঢাকা, বাংলাদেশ   মঙ্গলবার ০৯ আগস্ট ২০২২, ২৫ শ্রাবণ ১৪২৯

পরীক্ষামূলক

সাফ মহিলা ফুটবল চ্যাম্পিয়নশিপ, প্রতিপক্ষ আফগানিস্তান

আজ জিতলেই সেমিতে বাংলাদেশ

প্রকাশিত: ০৬:২০, ২৯ ডিসেম্বর ২০১৬

আজ জিতলেই সেমিতে বাংলাদেশ

রুমেল খান ॥ প্রাথমিক লক্ষ্য হচ্ছে শেষ চারে নাম লেখানো। অভিষ্ট লক্ষ্যে উপনীত হওয়ার পথে আজ যে বাধাটি আছে, সেই বাধার নাম হচ্ছে আফগানিস্তান। কাবুলিওয়ালার দেশের সঙ্গে আজ ফুটবল দ্বৈরথে অবতীর্ণ হবে বাংলাদেশ। সাফ অঞ্চলে মহিলা ফুটবলের বিশ^কাপের যে অলিখিত নাম ‘সাফ মহিলা চ্যাম্পিয়নশিপ’ (চতুর্থ আসর), সেই আসরে আজ নিজেদের প্রথম গ্রুপ ম্যাচে (‘বি’ গ্রুপ) গোলাম রব্বানী ছোটনের শিষ্যরা খেলতে নামবে বাংলাদেশ সময় সন্ধ্যা সাড়ে ৬টায়। খেলাটি অনুষ্ঠিত হবে ভারতের শিলিগুড়ির কাঞ্চনজঙ্ঘা স্টেডিয়ামে। ‘বি’ গ্রুপে একটি দল কম (৩টি)। কাজেই প্রতিটি দল খেলবে মাত্র দুটি করে ম্যাচ। একটি ম্যাচ জিততে পারলেই কেল্লাফতে, পৌঁছানো যাবে কাক্সিক্ষত সেমিফাইনালে, যেটা বাংলাদেশ দলের আপাতত প্রাথমিক লক্ষ্য। ইতোমধ্যেই স্বাগতিক ভারত তাদের প্রথম ম্যাচে ৫-১ গোলে আফগানিস্তানকে বিধ্বস্ত করে সেমির টিকেট পাওয়ার পথে একধাপ এগিয়ে গেছে। আজ যদি সাবিনা-কৃষ্ণা-সানজিদারা আফগান মেয়েদের পরাভূত করতে পারে, সেক্ষেত্রে রিক্তহস্তে আসর থেকে বিদায় ঘটবে আফগান দলের এবং ভারত-বাংলাদেশ উভয় দলই সেমিতে খেলাতে নিশ্চিত করে ফেলবে। তবে আজ যদি বাংলাদেশ জিতে যায়, তাহলে তো কোন কথাই নেই, সেমিতে যাওয়া পাকা। তবে যদি ড্র করে, তাহলে সেমিতে নাম লেখানো পিছিয়ে যাবে। সেক্ষেত্রে নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচে তাদের অবশ্যই পয়েন্ট পেতে হবে স্বাগতিক-শক্তিশালী ভারতের বিরুদ্ধে। পয়েন্ট মানে জয় বা কমপক্ষে ড্র। ১২১ ফিফা র‌্যাঙ্কধারী বাংলাদেশ দল অবশ্য আফগানদের বিরুদ্ধে জয়ের বিকল্প ছাড়া আর কিছুই ভাবছে না। তার কারণ হেড টু হেড পরিসংখ্যান। এই আসরে বাংলাদেশ আফগানিস্তানের বিরুদ্ধে একটিই ম্যাচ খেলেছে এবং জিতেছেও বিপুল ব্যবধানে। ২০১৪ আসরে বাংলাদেশ ৬-১ গোলে জিতেছিল (গ্রুপ পর্বে)। খেলাটা হয়েছিল বিদেশের মাটিতে। পাকিস্তানের ইসলামাবাদের জিন্নাহ স্টেডিয়াম (২০১০ এবং ২০১২ আসরে দু’দল খেললেও পরস্পর মুখোমুখি হয়নি)। এবার আবারও বিদেশের মাটিতে আরেকটি আফগান-বধের অপেক্ষায় ছোটনের শিষ্যরা। এই আসরে অংশ নিতে সোমবার সকালে ভারত পৌঁছে বাংলাদেশ জাতীয় মহিলা ফুটবল দল বিমানযোগে। সোমবার থেকেই আসর মাঠে গড়িয়েছে অথচ সোমবারই শিলিগুড়ির উদ্দেশে রওনা হয় বাংলাদেশ দল! নিজেদের প্রথম ম্যাচ বৃহস্পতিবার হলেও কন্ডিশনের সঙ্গে খাপ খাওয়াতে আরও আগেই দল পাঠানো উচিত ছিল বলে মনে করেন ফুটবল সংশ্লিষ্টরা। ৪ জানুয়ারি পর্যন্ত ভারতের শিলিগুড়ির কাঞ্চনজঙ্ঘা স্টেডিয়ামে এবারের আসরের ম্যাচগুলো অনুষ্ঠিত হবে। এই আসরকে সামনে রেখে কোচ গোলাম রব্বানী ছোটন শনিবার দল ঘোষণা করেন। ঢাকা ছাড়ার আগে কোচ ছোটন ও অধিনায়ক সাবিনা খাতুন দু’জনই ভাল করার আশাবাদ ব্যক্ত করেন। সাফ ফুটবলে বাংলাদেশ খেলছে ‘বি’ গ্রুপে। এই গ্রুপে বাংলাদেশের সঙ্গে আছে বর্তমান চ্যাম্পিয়ন এবং স্বাগতিক ভারত ও শক্তিশালী আফগানিস্তান। আগামী ৩১ ডিসেম্বর বাংলাদেশ খেলবে স্বাগতিক ভারতের বিরুদ্ধে। গ্রুপে তিন দল হওয়ায় দুই ম্যাচের একটি জিতলেই সেমিফাইনাল মোটামুটি নিশ্চিত বাংলাদেশের। বাফুফে এবারের মহিলা সাফটাকে তারা নিয়েছে বিশ্বকাপ বাছাইয়ের প্রস্তুতি হিসেবে। আগামী বছর সেপ্টেম্বরে থাইল্যান্ডে অনুর্ধ-১৬ দলের মেয়েরা খেলবে এএফসি অনুর্ধ্ব-১৬ চ্যাম্পিয়নশিপের মূলপর্বে। সেখানে শীর্ষ তিন দলের মধ্যে থাকতে পারলে উরুগুয়েতে অনুষ্ঠিতব্য ২০১৮ সালের ফিফা অনুর্ধ-১৭ মহিলা বিশ্বকাপের মূলপর্বে খেলতে পারবে বাংলাদেশের মেয়েরা। গত এক বছরে অনুর্ধ-১৪ দল দুটি (নেপাল ও তাজিকিস্তানে অনুষ্ঠিত) এবং অনুর্ধ-১৬ দল একটি (ঢাকায় অনুষ্ঠিত) শিরোপা জিতেছে কোচ গোলাম রব্বানী ছোটনের অধীনে। তাই সাফে জাতীয় দলে আছে অনুর্ধ-১৬ দলের ফুটবলারদের প্রাধান্য। তবে বাংলাদেশ দলে সিনিয়র কিছু ফুটবলারও (৫ জন : সাবিনা খাতুন, সাবিনা আক্তার, মুনমুন, মাইনু ও রতœা) নেয়া হয়েছে। চার বছর পর যখন এই মেয়েদের বয়স ২০ হবে, তখন লক্ষ্য হবে সাফের শিরোপা জেতা। উল্লেখ্য, ২০১০ সাল থেকে দুই বছর অন্তর অনুষ্ঠিত হয়ে আসছে সাফ চ্যাম্পিয়নশিপ। টানা তিন আসরেই চ্যাম্পিয়ন হয় ভারত। মজার ব্যাপারÑ প্রতিবারই রানার্সআপ হয় নেপাল এবং নেপালের কাছে দুবারই সেমিফাইনালে হেরে যায় বাংলাদেশ! বাংলাদেশ তৃতীয় হয় ২০১০ এবং ২০১৪ আসরে। এখন দেখার বিষয়, এবার তারা কেমন ফল করে। বাংলাদেশ দল ॥ সাবিনা আক্তার, শিউলি আজিম, শামসুন্নাহার, নার্গিস খাতুন, মাসুরা পারভীন, সানজিদা আক্তার, মাইনু মারমা, মিশরাত জাহান মৌসুমী, সিরাত জাহান স্বপ্না, সাবিনা খাতুন, মারজিয়া, কৃষ্ণা রানী সরকার, নিলুফা ইয়াসমিন নীলা, মারিয়া মান্ডা, আনাই মগিনি, ইশরাত জাহান রতœা, আনুচিং মগিনি, রওশন আরা, মুনমুন আক্তার ও মাহমুদা আক্তার; কোচ : গোলাম রব্বানী ছোটন, সহকারী কোচ : মাহবুবুর রহমান লিটু।
ডিজিটাল বাংলাদেশ পুরস্কার ২০২২
ডিজিটাল বাংলাদেশ পুরস্কার ২০২২