ঢাকা, বাংলাদেশ   শনিবার ২০ আগস্ট ২০২২, ৫ ভাদ্র ১৪২৯

পরীক্ষামূলক

নাসিক নির্বাচন

না’গঞ্জবাসী সঠিক সিদ্ধান্ত নেবে- আইভী ॥ উন্নয়নের প্রতিশ্রুতি সাখাওয়াতের

প্রকাশিত: ০৫:৪৩, ২ ডিসেম্বর ২০১৬

না’গঞ্জবাসী সঠিক সিদ্ধান্ত নেবে- আইভী ॥ উন্নয়নের প্রতিশ্রুতি সাখাওয়াতের

নিজস্ব সংবাদদাতা, নারায়ণগঞ্জ, ১ ডিসেম্বর ॥ নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন (নাসিক) নির্বাচনে প্রতীক বরাদ্দের আগ থেকেই নানা কৌশলে ও বিভিন্ন অনুষ্ঠানের নামে প্রচারে ব্যস্ত সময় পার করছেন মেয়র ও কাউন্সিলর প্রার্থীরা। বৃহস্পতিবার বিকেলে আওয়ামী লীগের প্রার্থী ডাঃ সেলিনা হায়াত আইভী সিদ্ধিরগঞ্জে মুক্তিযোদ্ধাদের একটি অনুষ্ঠানে অংশ নিয়েছেন। সেখানে তিনি মুক্তিযোদ্ধা, এলাকার লোকজনের সঙ্গে কুশল বিনিময় করেন। আইভী বলেন, নারায়ণগঞ্জবাসী সঠিক সময়ে সঠিক সিদ্ধান্ত নেবে। তিনি ৫ ডিসেম্বর থেকে প্রচারে নামবেন বলে জানান। অন্যদিকে বিএনপির মেয়র প্রার্থী এ্যাডভোকেট সাখাওয়াত হোসেন নগরীর বিভিন্ন এলাকায় প্রচার ও গণসংযোগ করেছেন। এ সময় তিনি নারায়ণগঞ্জের উন্নয়নসহ বিভিন্ন বিষয়ে ভোটারদের নানা প্রতিশ্রুতি দেন। তিনি সাবেক মেয়র আইভীর সমালোচনা করে বলেন, বিগত দিনে আইভী নারায়ণগঞ্জবাসীকে ঐক্যবদ্ধ করতে পারেননি। এদিকে ২৭টি ওয়ার্ডে সাধারণ কাউন্সিলর ও নয়টি সংরক্ষিত মহিলা ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থীরা নানাভাবে প্রচারে ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন। তবে আগামী ৫ ডিসেম্বর প্রতীক বরাদ্দের পর শুরু হবে ব্যাপক প্রচার। মেয়র প্রার্থীরা নাসিকের তিনটি আঞ্চলিক এলাকা নারায়ণগঞ্জ, সিদ্ধিরগঞ্জ ও বন্দরের কদম রসুলে গিয়েও কৌশলে প্রচার চালিয়ে যাচ্ছেন। বৃহস্পতিবার বিকেলে মুক্তিযোদ্ধা দিবস উপলক্ষে নগরীর সিদ্ধিরগঞ্জে ৮নং ওয়ার্ডে সদর উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ড কার্যালয়ে শহীদ মুক্তিযোদ্ধাদের স্মরণে মিলাদ ও দোয়া অনুষ্ঠানে অংশ নিয়েছেন আইভী। প্রধান অতিথি হিসেবে অংশ নেয়া ওই অনুষ্ঠানে আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী সেলিনা হায়াত আইভী বলেন, উন্নয়ন করেছি জনগণের জন্য। কথা বলেছি নারায়ণগঞ্জবাসীর জন্য। তাই নারায়ণগঞ্জবাসীর প্রতি আমাদের আস্থা রয়েছে, তারা সঠিক সময় সঠিক সিদ্ধান্ত নেবে। তিনি আরও বলেন, প্রতীক পাওয়ার পর নির্বাচনী প্রচার শুরু করব। সুষ্ঠু নির্বাচনের স্বার্থে নির্বাচন কমিশন প্রয়োজনীয় সকল ব্যবস্থা নেবে বলে তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন। সদর উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার বীর মুক্তিযোদ্ধা শাহজাহান ভূঁইয়া জুলহাসের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন মুক্তিযোদ্ধা এহসান কবীর রমজান, মুক্তিযোদ্ধা নুর হোসেন মোল্লা, মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল মতিন, মুক্তিযোদ্ধা মজিদ সাউদ, মুক্তিযোদ্ধা মহি মোল্লা প্রমুখ। এ সময় মেয়র প্রার্থী আইভী বলেন, নির্বাচন করতে হয় সকলকে নিয়ে। আমিও সকলকে নিয়ে নির্বাচন করব। আওয়ামী লীগের সকল নেতাকর্মী আমার পাশে আছে। তারা সবাই মিলে নৌকার জন্য কাজ করবে। নারায়ণগঞ্জে আওয়ামী লীগে মধ্যে কোন বিভেদ নাই। তিনি আরও বলেন, উন্নয়ন দিয়ে জনগণের পাশে যাওয়া যায়, তাদের সুখে দুঃখের কথা শোনা যায়। তার পরই উন্নয়নের রূপরেখা তৈরি করা হয়। আমি পাঁচ বছর সে কাজটি করেছি। এখন পরীক্ষার পালা এসেছে, দেখি সিটিবাসীর ভালবাসা নিয়ে সে পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হতে পারি কিনা। সাখাওয়াত ॥ এদিকে বৃহস্পতিবার সকালে বিভিন্ন স্কুলে গিয়ে অভিভাবকদের সঙ্গে মতবিনিময় করেছেন বিএনপির মেয়র প্রার্থী এ্যাডভোকেট সাখাওয়াত হোসেন। এরপর দুপুর সাড়ে ১২টায় নগরীর কেন্দ্রীয় বাসস্ট্যান্ড এলাকায় পরিবহন শ্রমিকদের সঙ্গে, দুপুর একটায় জামতলা এলাকায় ইসলামী ঐক্যজোট নেতৃবৃন্দের সঙ্গে মতবিনিময় করেন। বিকেলে সাকিম আলী মসজিদে নামাজ পরে দলীয় নেতাকর্মীদের সঙ্গে কুশল বিনিময়, সন্ধ্যায় ১৬নং ওয়ার্ডের পাক্কা রোডে মাগরিব নামাজের পর উঠোন বৈঠক করেন এবং রাতে আমলাপাড়া এলাকায় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গের সঙ্গে মতবিনিময় করেন। এ সময় তিনি ভোটারদের সঙ্গে কুশল বিনিময় করেন। সাখাওয়াত হোসেন খান বলেন, গত পাঁচ বছর সাবেক মেয়র নারায়ণগঞ্জবাসীর কাক্সিক্ষত উন্নয়ন করতে পারেননি। তিনি নারায়ণগঞ্জবাসীকে ঐক্যবদ্ধ করতে পারেননি। তার দলের নেতাকর্মীদের ঐক্যবদ্ধ করতে পারেননি। তাই আমি নির্বাচিত হলে নারায়ণগঞ্জবাসীকে ঐক্যবদ্ধ করে নগরীকে সন্ত্রাস ও মাদকমুক্ত করব। সিটি কর্পোরেশন এলাকায় হোল্ডিং ট্যাক্স কমিয়ে আনার ব্যবস্থা করব। ট্রেড লাইসেন্সের ফির পরিমাণ কমিয়ে আনব, নগরীর যেসব এলাকায় জলাবদ্ধতা আছে, তা দূরীকরণে কাজ করব। এছাড়া যানজটসহ অন্য যেসব সমস্যা রয়েছে, তা সবাইকে নিয়ে সমাধান করব। কাউন্সিলর প্রার্থীরাও প্রচারে ব্যস্ত ॥ ২৭টি সাধারণ ওয়ার্ডে ১৬৯ কাউন্সিলর প্রার্থী ও সংরক্ষিত ৯ মহিলা ওয়ার্ডে ৩৮ কাউন্সিলর প্রার্থী নানাভাবে প্রচারে ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন। এদের মধ্যে ছয়জন কাউন্সিলর প্রার্থীর মনোনয়ন আপীল বিভাগে বৈধ হওয়ার পর থেকেই প্রচার চালাচ্ছেন। সকাল থেকে রাত পর্যন্ত রাস্তাঘাট, চায়ের দোকান, আড্ডাস্থলে গিয়েও ভোটারদের সঙ্গে কুশল বিনিময় করছেন তারা। দিচ্ছেন নানামুখী উন্নয়নের প্রতিশ্রুতি। বসে নিয়ে সংরক্ষিত মহিলা ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থীরা। তারাও দিন-রাত নানাভাবে প্রচারে ব্যস্ত সময় পার করছেন। তারা বাড়ি বাড়ি গিয়ে মহিলা ভোটারদের মনোযোগ আকর্ষণ করতে ব্যস্ত হয়ে পড়েছেন। তবে তারাও ৫ ডিসেম্বর প্রতীক পাওয়ার আনুষ্ঠানিকভাবে প্রচার চালাবেন।