বুধবার ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৮, ০৮ ডিসেম্বর ২০২১ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা
সর্বশেষ

এলএনজি সরবরাহে ১৪ কোম্পানির প্রস্তাব সতর্কতার সঙ্গে পর্যালোচনা হচ্ছে

অর্থনৈতিক রিপোর্টার ॥ সাড়ে তিন হাজার মিলিয়ন ঘনফুট লিকুইড ন্যাচারাল গ্যাস (এলএনজি) সরবরাহ দিতে দেশী-বিদেশী ১৪টি কোম্পানির প্রস্তাব বিদ্যুত, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয়ে জমা পড়েছে। এসব প্রস্তাব বিবেচনা করছে সরকার। অত্যন্ত সতর্কতার সঙ্গে প্রস্তাবগুলো পর্যালোচনার করা হচ্ছে।

সূত্র জানায়, এসব প্রস্তাবের মধ্যে ভারত, সিঙ্গাপুর ও চীনের একাধিক কোম্পানি রয়েছে। জ্বালানি মন্ত্রণালয়ের একাধিক কর্মকর্তা জানিয়েছেন, জ্বালানি বিভাগ এলএনজি টার্মিনাল নির্মাণের প্রস্তাবগুলো যাচাই-বাছাই করছে। যেগুলো বাস্তবসম্মত, সেগুলো বিবেচনা করা হবে। পরে এসব প্রস্তাব প্রধানমন্ত্রীর কাছে পাঠানো হবে। প্রধানমন্ত্রী প্রস্তাবগুলোর বিষয়ে নীতিগত অনুমোদন দিলে কোম্পানিগুলোর সঙ্গে নেগোসিয়েশন করে সমঝোতা চুক্তি (এমওইউ) স্বাক্ষর করা হবে। উল্লেখ্য, ভবিষ্যতে বিদ্যুত কেন্দ্র এবং শিল্প-কারখানায় ব্যবহারের জন্য গ্যাসের চাহিদা মেটাতে সাড়ে তিন হাজার ঘনফুট এলএনজি গ্যাস আমদানির উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। জ্বালানি বিভাগ সূত্রে জানা যায়, দেশের অভ্যন্তরীণ উত্তোলিত গ্যাস ক্রমবর্ধমান চাহিদা পূরণ করতে না পারায় সরকার এলএনজি আমদানির উদ্যোগ নেয়। দেশের ভবিষ্যত জ্বালানির যোগান দিতে লিকুইড ন্যাচারাল গ্যাসের (এলএনজি) ওপর অনেকটাই নির্ভর করতে হবে বলে জানিয়েছেন বিদ্যুত প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ। জ্বালানি মন্ত্রণালয় কক্সবাজারের মহেশখালী, কুতুবদিয়া ও সোনাদিয়ায় স্থলভিত্তিক এলএনজি টার্মিনাল, মহেশখালীতে দ্বিতীয় ভাসমান এলএনজি টার্মিনাল (এফএসআরইউ), পটুয়াখালীর পায়রা বন্দর, গভীর সমুদ্রে গ্রাভিফোট এলএনজি টার্মিনালসহ কয়েকটি এলএনজি টার্মিনাল স্থাপন করা হবে। এসব এলএনজি টার্মিনাল স্থাপনে ভারত, সিঙ্গাপুর, চীনসহ কয়েকটি দেশের কোম্পানি জ্বালানি বিভাগে প্রস্তাব জমা দিয়েছে।

কক্সবাজারের মহেশখালীতে এলএনজিভিত্তিক একটি ভাসমান এলএনজি টার্মিনাল স্থাপনের জন্য মার্কিন কোম্পানি এক্সিলারেট এনার্জির সঙ্গে ইতোমধ্যে চুক্তি করেছে সরকার। এর বাইরে পেট্রোবাংলা আরও দুটো স্থায়ী এলএনজি টার্মিনাল নির্মাণের উদ্যোগ নিয়েছে। তাদের কাছে আরও একটি ভাসমান এলএনজি টার্মিনাল নির্মাণের প্রস্তাব রয়েছে। বিদ্যুত বিভাগ দুটি এলএনজি টার্মিনাল নির্মাণের উদ্যোগ নিয়েছে। সব মিলিয়ে সরকার এখন ১৪টি কোম্পানির এলএনজি প্রস্তাব পর্যালোচনা করছে।

সরকার এলএনজিভিত্তিক তিনটি বিদ্যুত কেন্দ্র নির্মাণের প্রস্তাব নিয়ে কাজ করছে। এর মধ্যে নর্থ ওয়েস্ট পাওয়ার জেনারেশন কোম্পানি খুলনায় ৭৫০ থেকে ৮৫০ মেগাওয়াটের একটি বিদ্যুত কেন্দ্র নির্মাণ করবে। বিদ্যুত কেন্দ্রটি ভারতের রাষ্ট্রীয় একটি কোম্পানির কাছ থেকে এলএনজির সরবরাহ নিয়ে পরিচালনা করা হবে। এর বাইরে দেশের বৃহৎ বেসরকারী কোম্পানি সামিট পাওয়ার এক হাজার ৬৫০ মেগাওয়াটের এলএনজিভিত্তিক বিদ্যুত কেন্দ্র নির্মাণের জন্য সরকারকে প্রস্তাব দিয়েছে।

শীর্ষ সংবাদ:
কঠিন পরিণতির মুখে মুরাদ         কাজের মানের বিষয়ে ফের সতর্ক করলেন প্রধানমন্ত্রী         জাওয়াদের প্রভাবে টানা বৃষ্টিতে ফসলের ব্যাপক ক্ষতি         অভিযোগ পেলেই ডিবি জিজ্ঞাসাবাদ করবে মুরাদকে         গোপনে চট্টগ্রামের হোটেলে         ভারত থেকে এলো মিগ-২১ ও ট্যাঙ্ক টি-৫৫         চট্টগ্রাম-কক্সবাজার রেল যোগাযোগ এখন আর স্বপ্ন নয়         তলাবিহীন ঝুড়িতে বিলিয়ন ডলার         মালয়েশিয়া প্রবাসীদের পাসপোর্ট পেতে ভোগান্তি         পরিকল্পনাকারী অর্থ ও অস্ত্রের যোগানদাতারা এখনও ধরা পড়েনি         দ্রুত পুঁজিবাজারে আনা হচ্ছে সরকারী কোম্পানির শেয়ার         সব এয়ারলাইন্স দ্বিগুণেরও বেশি ভাড়া নিচ্ছে         খালেদাকে শনিবারের মধ্যে বিদেশ না পাঠালে আন্দোলনে যাবেন আইনজীবীরা         পুষ্টিকর খাবার নিশ্চিতে প্রধানমন্ত্রীর ৫ প্রস্তাব         মুরাদ হাসানের পদত্যাগপত্র প্রধানমন্ত্রীর কাছে         ডা. মুরাদ হাসানকে জেলা কমিটির পদ থেকে বহিষ্কার         একনেক সভায় ১০ প্রকল্পের অনুমোদন         গ্রিন ফ্যাক্টরি অ্যাওয়ার্ড পাবে ৩০ শিল্প প্রতিষ্ঠান         ‘ডা. মুরাদকে জিজ্ঞাসাবাদ করবে ডিবি’         করোনা : ২৪ ঘন্টায় মৃত্যু ৫, শনাক্ত ২৯১