ঢাকা, বাংলাদেশ   শুক্রবার ১৪ জুন ২০২৪, ৩১ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১

কলকাতা যাচ্ছেন আনারের কন্যা ভাইসহ চারজন

ফরেনসিক ল্যাবে পাঠানো হয়েছে লাশের খণ্ড

বিশেষ প্রতিনিধি

প্রকাশিত: ০০:২৩, ৩০ মে ২০২৪

ফরেনসিক ল্যাবে পাঠানো হয়েছে লাশের খণ্ড

আনোয়ারুল আজিম আনার

ঝিনাইদহ-৪ আসনের সংসদ সদস্য আনোয়ারুল আজিম আনারের দেহের খণ্ডিত অংশ সেপটিক ট্যাঙ্ক থেকে উদ্ধারের পর তা ফরেনসিক পরীক্ষার জন্য পরীক্ষাগারে পাঠানো হয়েছে। সেপটিক ট্যাঙ্ক থেকে উদ্ধার করা মাংসপি- মানুষের নাকি অন্য কোনো প্রাণীর তা পরীক্ষা করা হবে। মানুষের মাংসপি- হলে এটা এমপি আনারের কিনা তা ফরেনসিক পরীক্ষায় জানা যাবে।

এ ছাড়া ডিএনএ পরীক্ষার জন্য এমপি আনারের মেয়ে ডরিন, ভাই, ভাইপো, পিএসসহ চারজন কলকাতায় যাচ্ছেন। কিন্তু ভিসা জটিলতায় কলকাতায় যাওয়া আটকে আছে এমপি আনারের মেয়ে মুমতারিন ফেরদৌস ডরিনের। এ ছাড়া এমপি আনারকে কি কারণে হত্যা করা হয়েছে তা উদ্ঘাটন করতে যুক্তরাষ্ট্র থেকে শাহীনকে ফেরানোর প্রক্রিয়া শুরু করেছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী।

এ ছাড়া আনারের হত্যাকা- শেষে নেপালে পালিয়ে যাওয়া সিয়ামকে আনার জন্য কলকাতার সিআইডি টিম নেপালে যাচ্ছে। এমপি আনারকে যে ফ্ল্যাটে হত্যা করা হয়েছে সেখান থেকে রক্তের নমুনা সংগ্রহ করে ফরেনসিক ল্যাবরেটরিতে পাঠানো হয়েছে। কলকাতা কর্তৃপক্ষের অনুমতি নিয়ে কলকাতায় আটক জিহাদ হাওলাদারকে তদন্তের স্বার্থে বাংলাদেশে নিয়ে আসা হতে পারে। 
ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) অতিরিক্ত কমিশনার (ডিবি) মোহাম্মদ হারুন অর রশীদ বলেছেন, মঙ্গলবার তৃতীয় দিনের মতো এমপি আনারের খ-িত দেহ উদ্ধারে তল্লাশি চালানো হয়েছে। তিনি জানান, কলকাতার তদন্তকারী কর্মকর্তারা খুবই আন্তরিকভাবে কাজ করছেন। এমপি আনারের খ-িত দেহ খুঁজে পেতে আমরা সঞ্জীবা গার্ডেনের পাশে হাতিশালা লেকে তল্লাশি চালানোর অনুরোধ জানিয়েছি।

এ ছাড়া এমপি যে ফ্ল্যাটে ছিলেন, সেখানে কমোডের স্যুয়ারেজ লাইন ভেঙে ফেলার অনুরোধ জানিয়েছি। আশা করছি কাজগুলো আজকের মধ্যেই হবে। একইসঙ্গে শালা ব্রিজের পাশে খালটিতেও তল্লাশি অভিযান চলবে। 
তদন্ত সংশ্লিষ্ট সূত্র জানান, এমপি আনার খুনের ঘটনায় জড়িত জিহাদকে জেরা করে যে তথ্য পাওয়া গেছে, তার আলোকে অভিযান চলছে। ভারত এবং বাংলাদেশের অভিজ্ঞ কর্মকর্তারা পারিপার্শ্বিকতা, ডিজিটাল এভিডেন্স এবং আসামিদের স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দির মাধ্যমে আদালত যে রিপোর্ট প্রদান করবেন সেই রিপোর্টের ভিত্তিতে এই হত্যাকা-ের বিচার করার প্রস্তুতি নেওয়া হবে।

কলকাতার নিউটাউন এলাকার সঞ্জীবা গার্ডেন্সের যে ফ্ল্যাটে ঝিনাইদহ-৪ আসনের সংসদ সদস্য আনোয়ারুল আজিম আনারকে হত্যা করা হয় সেই ফ্ল্যাটের সেপটিক ট্যাঙ্ক থেকে বেশকিছু মাংসের টুকরা উদ্ধার করা হয়েছে। তবে সেগুলো আনোয়ারুল আজিমের মরদেহের খ-িত অংশ কি না, তা এখনো পুলিশ নিশ্চিত হতে পারেনি।
সংসদ সদস্য আনারের মেয়ে মুমতারিন ফেরদৌস ডরিন ও তার পরিবারের লোকজন কলকাতায় গেলে এ বিষয়ে বিস্তারিত তথ্য জানা যাবে। ভিসা জটিলতায় কলকাতায় যাওয়া আটকে আছে এমপি আনারের মেয়ে মুমতারিন ফেরদৌস ডরিনের। 
এমপির বাসভবনের সামনে সংবাদমাধ্যমের সঙ্গে কথা বলেন তিনি। তিনি বলেছেন, আমাকে ভিসা দিয়ে দেওয়ার কথা ছিল। ভারতীয় ভিসা আবেদন কেন্দ্র জানিয়েছিল তারা আজ আমাকে টেক্সট পাঠাবে। তারা কনফার্ম করলে আমি পাসপোর্ট নিয়ে আসব। তবে এখনো তাদের থেকে কোনো টেক্সট পাইনি। আশা করছি, আজকের মধ্যেই হয়তো পেয়ে যাব।

যদি আজ পাসপোর্ট হাতে পাই তাহলে সময় থাকলে আজই আমি কলকাতার উদ্দেশে রওনা হব। কলকাতায় আর কে যাবেন এ বিষয়ে তিনি জানতে চাইলে বলেন, আমার সঙ্গে আমার বাবার ব্যক্তিগত সহকারী রউফ ভাই (আব্দুর রউফ) যাবেন। তারও পাসপোর্ট জমা দেওয়া আছে। একসঙ্গে যেন দুজনের ভিসা আসে সেভাবেই কথা বলা হয়েছিল। আমার চাচাও যাবেন। আমার চাচার অলরেডি ভিসা করা আছে।

আনুষ্ঠানিকভাবে ওই খ-াংশ বাবার কি না-সেটি নিশ্চিত করেনি পুলিশ। ডিএনএ স্যাম্পল দেওয়ার জন্য কলকাতা পুলিশ ডাকলে অবশ্যই যাব। ডিএনএ টেস্টের জন্য আমাকে আনুষ্ঠানিকভাবে কিছু বলা হয়নি। ডরিন জানান, তার বাবাকে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করা হয়েছে। যারা এর সঙ্গে জড়িত, তিনি সবার দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি চান। বাবার হত্যার সঙ্গে অন্য কেউ জড়িত আছে কি না গভীর তদন্তেরও দাবি জানান তিনি।
পুলিশ কমিশনার যা বলেন ঢাকায় ॥ ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) কমিশনার হাবিবুর রহমান বলেন, সংসদ সদস্য আনোয়ারুল আজিম আনারকে কলকাতার সঞ্জীবা গার্ডেনে হত্যার ঘটনায় মূল মাস্টারমাইন্ড বাংলাদেশী আমেরিকান আখতারুজ্জামান শাহীনকে চিহ্নিত করা হয়েছে। তার নির্দেশে হত্যাকা-ে অংশ নেয় বেশ কয়েকজন। তাদের মধ্যে এখন পর্যন্ত চারজন গ্রেপ্তার হলেও এখনো পলাতক চারজন।

হত্যাকাণ্ডের পর পালিয়ে যাওয়া মূল পরিকল্পনাকারী আখতারুজ্জামান শাহীন আমেরিকায় ও সহযোগী সিয়াম নেপালে পালিয়ে যায়। তদন্তের স্বার্থে ডিবি পুলিশের আবেদনের প্রেক্ষিতে তাদের ফিরিয়ে আনতে ইন্টারপোলের সহায়তায় সংশ্লিষ্ট দেশ দুটির এনসিবির কাছে সহায়তা চেয়ে চিঠি পাঠিয়েছে বাংলাদেশ পুলিশের ন্যাশনাল সেন্টার ব্যুরো (এনসিবি)। তবে আমেরিকার সঙ্গে বাংলাদেশের বন্দি বিনিময় চুক্তি নেই।

কিন্তু সংসদ সদস্য আনার হত্যাকাণ্ডের মূল অভিযুক্ত আখতারুজ্জামান শাহীনকে ফেরাতে কূটনৈতিকভাবে সর্বোচ্চ চেষ্টা করা হবে। বুধবার ডিএমপি সদর দপ্তরে আয়োজিত ‘ডাটাবেজ অ্যান্ড অ্যানালাইসিস অব রোড ক্র্যাশ সফটওয়্যার’ প্রশিক্ষণের উদ্বোধন অনুষ্ঠানে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা বলেন।
ডিএমপি কমিশনার বলেন, সংসদ সদস্যকে কি কারণে হত্যা করা হয়েছে অর্থাৎ হত্যার মোটিভ কি- এটি এখনো পর্যন্ত দুই দেশের পুলিশ উদ্ধার করতে পারেনি। এটার মূল ষড়যন্ত্রকারী, পরিকল্পনাকারী দেশের বাইরে রয়েছে। তাই হত্যার কারণ সম্পর্কে এখনো কিছু বলা যাচ্ছে না। তাকে গ্রেপ্তার করলেই কেবল এই হত্যার মোটিভ জানা যাবে।

যেহেতু মূল অভিযুক্ত শাহীন আমেরিকায় পলাতক, দেশটির সঙ্গে বাংলাদেশের বন্দি বিনিময় চুক্তি নেই। এক্ষেত্রে শাহীনকে ফেরানোর ক্ষেত্রে কি পদক্ষেপ নেওয়া হবে জানতে চাইলে ডিএমপি কমিশনার বলেন, এক্ষেত্রে পুলিশের পক্ষ থেকে যে ধরনের প্রচেষ্টা থাকা দরকার সেটির সবকিছুই করা হবে। যেহেতু তিনি (আনার) সংসদ সদস্য ছিলেন সুতরাং বিষয়টি সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে দেখা হবে। যদিও আমেরিকার সঙ্গে আমাদের সেই ধরনের চুক্তি নেই। 
তাই অন্য যে কোনো মাধ্যম বা কূটনৈতিক চ্যানেলে সর্বোচ্চ চেষ্টা করা হবে। এক্ষেত্রে ভারতের সঙ্গে বন্দি বিনিময় চুক্তি কাজে লাগানো হবে কি না, জানতে চাইলে হাবিবুর রহমান বলেন, এ ঘটনাটি বাংলাদেশের আইনে বিচার হতে পারে এবং ভারতে যেহেতু ঘটনা ঘটেছে সেখানেও বিচার হতে পারে। সুতরাং এটি আমাদের পারস্পরিক আলোচনার মাধ্যমে সিদ্ধান্ত হতে পারে।
কলকাতা পুলিশ ও ঢাকা মেট্রোপলিটন গোয়েন্দা পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, সংসদ সদস্য আনার হত্যাকা-ে যে কয়েকজনের নাম এসেছে তাদের মধ্যে গ্রেপ্তার চারজন ছাড়াও এখনো পলাতক চারজন। এখন পর্যন্ত বাংলাদেশে তিনজন এবং ভারতের কলকাতায় একজন গ্রেপ্তার হয়েছে। ঢাকা মেট্রোপলিটন গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) হাতে গ্রেপ্তাররা হচ্ছে, আমানুল্লাহ আমান ওরফে শিমুল ভুঁইয়া, তানভীর ও সিলিস্তি রহমান।

অন্যদিকে কলকাতা পুলিশ জিহাদ হাওলাদার নামে একজন কসাইকে গ্রেপ্তার করেছে। হত্যার দুই মাস আগে মুম্বাইয়ের অবৈধ অভিবাসী জিহাদকে পাঠানো হয়েছিল। তার বাড়ি বাংলাদেশের খুলনায়। সংসদ সদস্য আনার খুনের বিভিন্ন পর্যায়ে জড়িত আরও অন্তত চারজনের নাম পেয়েছে দুই দেশের পুলিশ। তাদের মধ্যে আখতারুজ্জামান, সিয়ামসহ চারজন এখনো ধরা পড়েনি।

বাকি দুজন হলো ফয়সাল আলী সাজী ও মো. মুস্তাফিজুর রহমান ফকির। দুজনই খুলনার ফুলতলার বাসিন্দা। ঢাকা ডিবির হাতে গ্রেপ্তার শিমুল ভুঁইয়ার ঘনিষ্ঠজন হিসেবে এলাকায় পরিচিত তারা। দুজন বাংলাদেশে আছে বলে পুলিশের কাছে তথ্য রয়েছে।
ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) গোয়েন্দাপ্রধান মোহাম্মদ হারুন অর রশীদ বলেছেন, কলকাতার সঞ্জীবা গার্ডেন্সের সেপটিক ট্যাঙ্ক থেকে কারও মরদেহের খ-াংশ উদ্ধার করা হয়েছে। ধারণা করা হচ্ছে, ওই মরদেহের খ-াংশ ঝিনাইদহের সংসদ সদস্য আনোয়ারুল আজিম আনারের। তার ফরেনসিক টেস্ট ছাড়া এটা নিশ্চিত হওয়া যাবে না।

মোহাম্মদ হারুন অর রশীদ বলেন, ডিবির দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে সেপটিক ট্যাঙ্ক ভাঙা হয়। কলকাতার সিআইডিকে আমাদের পক্ষ থেকে অনুরোধ জানানো হয়েছিল সেপটিক ট্যাঙ্ক ভেঙে তল্লাশি চালানোর জন্য। 
আলোচিত এই হত্যাকা-ের তদন্ত করতে বর্তমানে কলকাতায় অবস্থান করছেন ডিবিপ্রধানের নেতৃত্বে চার সদস্যের গোয়েন্দা প্রতিনিধি দল। তাদের অনুমান, খুনের মূল অভিযুক্ত আখতারুজ্জামান কলকাতা থেকে কাঠমান্ডু হয়ে পালিয়েছে। আখতারুজ্জামান কোথায় পালিয়েছে তা নিশ্চিত নন গোয়েন্দারা। 
যেই ফ্ল্যাটে এমপি আনার খুন হয়েছেন, সেই নিউ টাউনের এই ফ্ল্যাটটি ভাড়া নিয়েছিল যুক্তরাষ্ট্রের নাগরিক আখতারুজ্জামান। সিআইডির ধারণা, ঘটনার দিন ওই ফ্ল্যাটেই আনোয়ারুলকে নিয়ে আসা হয়। তারপর খুন করে প্রমাণ মুছে ফেলা হয়। ঘটনার পর থেকেই আখতারুজ্জামানের খোঁজ চলছে। গোয়েন্দাদের সন্দেহ, খুনের ঘটনার পর পরই দেশ ছেড়েছে সে। প্রথমে কলকাতা থেকে নেপালে যায় আখতারুজ্জামান।

পরে সেখান থেকেও পালিয়েছে সে। দুবাই কিংবা যুক্তরাষ্ট্রে চলে যেতে পারেন বলে অনুমান গোয়েন্দাদের। আখতারুজ্জামান নেপালে কোথায় উঠেছিল, তারপর সেখানে কোথায় কোথায় গিয়েছিল ইত্যাদি প্রশ্নের জবাব খুঁজতেই সিআইডির একটি দল দেশটিতে যাচ্ছে। 
হত্যাকারীদের ফাঁসির দাবিতে মানববন্ধন ॥ নিজস্ব সংবাদদাতা, ঝিনাইদহ জানান, এমপি আনার হত্যাকা-ে ভারতে মৃতদেহের খ-িত অংশ উদ্ধারের খবরে ঝিনাইদহ স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতাকর্মী ও স্বজনদের মাঝে আবেগ-উৎকণ্ঠা আরও বেড়ে গেছে। তারা লাগাতার কর্মসূচি দিয়েছিলেন এমপির লাশ অথবা আলামতের দাবিতে। এই কর্মসূচি ঘোষণার মধ্যে মঙ্গলবার কলকাতার সঞ্জীবা গার্ডেন্সের সেপটিক ট্যাঙ্ক থেকে মরদেহের খ-িতাংশের অন্তত ৪ কেজি মাংস উদ্ধার হয়েছে বলে খবর আসে। এর পরও তাদের কর্মসূচি অব্যাহত রয়েছে। 
বুধবার বিকেলে আনার হত্যাকাণ্ডের প্রতিবাদ জানিয়ে সকল রহস্যের অবসান ও ষড়যন্ত্রকারীদের সর্বোচ্চ শাস্তির দাবিতে কালীগঞ্জ উপজেলার বারোবাজারে তিন ইউনিয়নের উদ্যোগে মানববন্ধন কর্মসূচি পালিত হয়। এতে বারোবাজার ইউনিয়ন পরিষদ, রাখালগাছি ইউনিয়ন পরিষদ ও কাষ্টভাঙ্গা ইউনিয়ন পরিষদ থেকে আওয়ামী লীগ দলীয় নেতাকর্মীসহ সহ¯্রাধিক মানুষ অংশ নেয়।

×