ঢাকা, বাংলাদেশ   বৃহস্পতিবার ২০ জুন ২০২৪, ৬ আষাঢ় ১৪৩১

গরুর খামারে কোটিপতি মুরাদ, কুরবানীর হাটে রাজত্ব করবে টারজান

নিজস্ব সংবাদদাতা, বাকেরগঞ্জ, বরিশাল

প্রকাশিত: ২০:৫৭, ২৭ মে ২০২৩

গরুর খামারে কোটিপতি মুরাদ, কুরবানীর হাটে রাজত্ব করবে টারজান

টারজান লম্বায় সাড়ে ৮ ফুট।

বরিশালের বাকেরগঞ্জ উপজেলার দাড়িয়াল ইউনিয়নের পশ্চিম কোষাবর গ্রামের আবু হাসান মুরাদ মুন্সি মার্কেন্টাইল ব্যাংকের নারায়ণগঞ্জ শাখায় জুনিয়র অফিসার পদে চাকরি করতেন। অন্যের অধীনে চাকরি তার ভালো লাগেনি। সিদ্ধান্ত নেন উদ্যোক্তা হবেন। নেমে পড়লেন নিজের সিদ্ধান্ত বায়স্তবায়নে। কঠোর পরিশ্রম করে দুটি গরু দিয়ে বাকেরগঞ্জের নিজ গ্রামে গড়ে তোলেন গরুর খামার। যে খামারে ঘুরে দিয়েছে তার ভাগ্যের চাকা। তার খামারে এখন কোটি টাকার গরু রয়েছে। 

উপজেলার দাড়িয়াল ইউনিয়নের ৫নং ওয়ার্ডের আবুল কালাম মুন্সির পুত্র আবু হাসান মুরাদ মুন্সি। মুন্সি ন্যাচারাল ডেইরি ফার্মের সত্ত্বাধিকারী তিনি। এখন মুন্সি ন্যাচারাল ডেইরি ফার্মে ১০ জনের কর্মসংস্থান সৃষ্টি করেছেন। তার ফার্মে গরুর সংখ্যা এখন ৫০টি। তিনি প্রথমে ৫ লাখ টাকা নিয়ে ডেইরি ফার্ম শুরু করেন। এখানে তিনি এ পর্যন্ত ৫০ লাখ টাকা বিনিয়োগ করেছেন। নিজস্ব সম্পত্তির উপর গড়ে তুলেছেন মুন্সি ন্যাচারাল ডেইরি ফার্ম। এই ফার্মের গরুর খাবারের জন্য প্রায় ২ একর সম্পত্তিতে দেশি-বিদেশি ঘাসের চাষ করেছেন। নিজের চাষকৃত ঘাসে গরুর খাবারের যোগান দেয়। 

এইচএসসি পাস করে ঢাকাতে মার্কেন্টাইল ব্যাংকে জুনিয়র অফিসার হিসেবে কর্ম জীবন শুরু করেছিলেন তিনি। ব্যাংকে চাকরি তার ভালো লাগেনি। তাই তিনি চাকরি ছেড়ে দিয়ে উদ্যোক্তা হয়ে মানুষের কর্মসংস্থান সৃষ্টির পরিকল্পনা করেন। ২০২০ সালের শেষের দিকে তিনি চাকরি ছেড়ে দেন। এরপর তিনি গ্রামের বাড়িতে চলে আসেন। ওই বছরই ৮ লাখ টাকা পুঁজি নিয়ে তিনি ২টি উন্নত জাতের গাভী দিয়ে তার বাড়িতে ডেইরি ফার্ম শুরু করেন। তারপর আর তাকে পেছনে ফিরে তাকাতে হয়নি।

সরেজমিনে দেখা যায়, আবু হাসান মুরাদ মুন্সি তার বাড়ির সামনে ১৩০ ফুট দৈর্ঘ্যের একটি টিন সেটের পাকা গোয়াল ঘরে পরিচ্ছন্ন পরিবেশে ডেইরি ফার্ম তৈরি করেন। ফার্মে বিশুদ্ধ পানিসহ নিজের উৎপাদিত ঘাস মেশিনে কেটে গরুর জন্য প্রতিদিন খাবার তৈরি করে। প্রত্যেকটি গরুর জন্য আলাদা আলাদা খাবার পানির হাউজ ও গরুর মাথার উপর একটি সিলিং ফ্যান এর ব্যবস্থা করে রেখেছে। গরুর মলমূত্র অপসারণের দায়িত্বে দুইজন কর্মচারী সর্বক্ষণ কর্মরত থাকেন। গভীর নলকূপ থেকে মোটরের মাধ্যমে পানি উত্তোলন করে প্লাস্টিকের ট্যাংকিতে সংরক্ষণ করা হয়। পাইপের মাধ্যমে পানি সরবরাহ করে ডেইরি ফার্মে প্রতিদিন গরুর গোসল করানো হয়। স্বাস্থ্যসম্মত পরিবেশে ফার্মের গরু সুস্বাস্থ্য হয় কম সময়ে বেড়ে ওঠে। প্রতিদিন এই ডেইরি ফার্ম থেকে ২০০ লিটার দুধ উৎপাদন হয়। এই ডেইরি ফার্মের উৎপাদিত দুধ স্থানীয় চাহিদা পূরণ করে প্রতিদিন বিক্রি করা হয় উপজেলা শহরেও।

আবু হাসান মুরাদ মুন্সি জনকণ্ঠকে জানান, উদ্যোক্তা হয়ে ডেইরি ফার্ম করা যেতে পারে। এটি লাভজনক ব্যবসা। চাকরির পেছনে না ঘুরে আত্মপ্রত্যয়ী হলেই এই ব্যবসা থেকে লাভ করা যায়। মানুষের কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা হয়। কোরবানীর ঈদ সামনে রেখে আমার ফার্মে বেশ কিছু গরু বাজারে নিতে প্রস্তুত করা হচ্ছে। বাকেরগঞ্জে এবার কোরবানির ঈদ পশুর হাটের আলোচিত গরু আমার ফার্ম থেকে নেয়া হবে। বিশেষ যত্নে চারটি গরুর লালন পালন করা হচ্ছে যার নাম দেয়া হয়েছে টারজেন। টারজেন ওয়ান সাদা কালো কুচকুচে নাদুস নুদুস গরুটির দাম হাঁকানো হয়েছে ২০ লাখ টাকা। প্রতিদিন গরুটি দেখতে ভিড় জমাচ্ছেন নানা প্রান্তের মানুষ। লম্বায় সাড়ে ৮ ফুট, উচ্চতা ৬ ফুট, ওজন ২৫ মন। আশা করি কোরবানীর হাটে আমার ফার্মের গরু বিক্রি করে বেশ লাভবান হবো। বর্তমানে তার ফার্মে এক কোটি টাকার গরু রয়েছে।

 

এমএইচ

×