ঢাকা, বাংলাদেশ   মঙ্গলবার ২৩ এপ্রিল ২০২৪, ১০ বৈশাখ ১৪৩১

রাজশাহীতে জমে উঠেছে আমের হাট

​​​​​​​স্টাফ রিপোর্টার, রাজশাহী

প্রকাশিত: ২২:২৯, ২৫ মে ২০২৩

রাজশাহীতে জমে উঠেছে আমের হাট

হরেক জাতের আমের সমাহার এখন বানেশ্বর হাটে। জমে উঠেছে কেনাবেচা

নানা জাতের আমে জমতে শুরু করেছে রাজশাহীর বাজার। গুটিজাতের আমের পর সুস্বাদু গোপালভোগ, লক্ষ্মণভোগ আর রানীপছন্দে জমে উঠেছে রাজশাহীর বড় আমের মোকাম বানেশ্বরের আমের হাট। জেলার সবচেয়ে বড় এই হাটে প্রতিদিনই বাড়ছে ক্রেতা-বিক্রেতাদের ভিড়। শুধু গোপালভোগ, লক্ষ্মণভোগ রানীপছন্দই নয়, বাজারে এখন বিক্রি হচ্ছে হরেক জাতের গুটি আমও। হাটে পর্যাপ্ত আমের সরবরাহ থাকায় প্রতিদিন শত শত মণ আম দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে পাঠাচ্ছেন ব্যবসায়ীরা। সরেজমিনে রাজশাহীর পুঠিয়ার বানেশ্বরে গিয়ে দেখা যায়হাটের ভেতরে ঢুকছে সারি সারি ভ্যান, নছিমন করিমন ভর্তি আম। আমের ব্যাপক আমদানি থাকায় হাট বসেছে বানেশ্বর কলেজ মাঠেও। তবে সড়কের পাশে কাছারি মাঠে খুচরা কেনাবেচা করছেন অনেকেই। যারা বেশি আম কিনবেন তারা যাচ্ছেন কলেজ মাঠে।

স্থানীয় আম বিক্রেতা একরামুল বলেন, হাটে দিন ধরে প্রচুর আম উঠছে। হাটজুড়ে আমের  চিত্র এখন প্রতিদিনের। কারণ এই অঞ্চলের সিংহভাগ আম এই হাটে কেনাবেচা হয়। হাটে গোপালভোগ, লক্ষ্মণভোগ, রানীপছন্দের চেয়ে বেশি উঠেছে গুটি আম। গোপালভোগ প্রতি মণ বিক্রি হচ্ছে হাজার ২০০ থেকে হাজার ৪০০ টাকা দরে। লক্ষ্মণভোগ হাজার থেকে হাজার ২০০ টাকা মণ। গুটি জাতের আম ৮০০ থেকে হাজার টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। জেলার চারঘাটের আম চাষি মিজানুর রহমান বলেন, প্রতি বছর আমের ব্যবসা করি। সারা বছর নিজেদের জমি দেখাশোনা করি। তার নিজের তিনটা আমের বাগান আছে। ছাড়া আরও চারটি বাগান কিনেছি। বাগানে ভালো আম আছে। মৌসুমের শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত বানেশ্বর হাটে আম বিক্রি চলবে। বানেশ্বর আম ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি সাইফুল ইসলাম বলেন, আমের হাট জমতে শুরু করেছে। এখন প্রতিদিনই হাট বসছে বানেশ্বরে।

×