ঢাকা, বাংলাদেশ   বৃহস্পতিবার ৩০ মে ২০২৪, ১৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১

টঙ্গীতে ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রীর সঙ্গে গভীর রাতে তাবলীগের দুগ্রুপের বৈঠক

নিজস্ব সংবাদদাতা, টঙ্গী, গাজীপুর

প্রকাশিত: ১২:২৬, ২৮ জানুয়ারি ২০২৩; আপডেট: ১৪:০৮, ২৮ জানুয়ারি ২০২৩

টঙ্গীতে ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রীর সঙ্গে গভীর রাতে তাবলীগের দুগ্রুপের বৈঠক

মন্ত্রীর বাড়ির সামনে তাবলীগের মুরুব্বিরা

তাবলীগ জামাতের দুগ্রুপের মধ্যে নানা জটিলতা নিরসনে শুক্রবার গভীর রাতে স্হানীয় এমপি, যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেলের টঙ্গীর নোয়াগাঁওয়ের বাস ভবনে পূর্ব নির্ধারিত এক জরুরি বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে তাবলীগ জামাতের শীর্ষ দুগ্রুপের মুরুব্বিদের নিয়ে। 

আগামী বিশ্ব ইজতেমা কোন গ্রুপ আগে করবে, ইজতেমা মাঠ সারা বছর কাদের নিয়ন্ত্রণে থাকবে, মালসামানার রক্ষণাবেক্ষণে কারা থাকবে এমনসব নানা বিষয়াদির সুরাহা করতে মূলত বৈঠকটি অনুষ্ঠিত হয়েছে।

মাওলানা সাদ গ্রুপ ও আলেমওলেমাদের মাওলানা জোবায়ের গ্রুপের মধ্যে আলাদা আলাদাভাবে গভীর রাত পর্যন্ত বৈঠকটি হয়। পূর্ব নির্ধারিত প্রথম ভাগের বৈঠকে অংশ নেন সাদ অনুসারীরা। দ্বিতীয় ভাগে অংশ নেন জোবায়ের পন্থীরা।

বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের উপপুলিশ কমিশনার মাহবুব উজ্জামান, সহকারী পুলিশ কমিশনার মেহেদী হাসান, টঙ্গী পূর্ব ও পশ্চিম থানার ওসি আশরাফুল ইসলাম ও শাহ আলম। আদি তাবলীগ জামাতের বর্তমান আমির মাওলানা সাদ সাহেবের কয়েকটি বক্তব্যে ইজতেমার শীর্ষ মুরুব্বিরা দ্বিধা বিভক্ত হয়ে পড়লে এবং নানা বিষয়াদি নিয়ে টঙ্গী বিশ্ব ইজতেমা ময়দানে দুপক্ষের মধ্যে এক রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষে বহু মুসল্লি হতাহত হন। 

এরপর থেকে তাবলীগ জামাতের বিশ্ব ইজতেমা দুগ্রুপে আলাদাভাবে  অনুষ্ঠিত করে আসছেন দু'পক্ষই। গত ২২ জানুয়ারি মাওলানা সাদ গ্রুপের ইজতেমা শেষে গাজীপুর জেলা প্রশাসনের কাছে বিশ্ব ইজতেমার মাঠ বুঝিয়ে দেয়ার কথা থাকলেও জোবায়ের পন্থীরা মাঠে ঢোকার চেষ্টা করে। সাদ পন্থীরা মাঠ ছাড়তে বিলম্ব করলে প্রশাসনের হস্তক্ষেপ করে ইজতেমা ময়দান প্রশাসনের নিয়ন্ত্রণে নিয়ে গেটের রাস্তায় বিজ্ঞপ্তি ব্যানার টানিয়ে দেয়। 

মন্ত্রী রাসেলের বাসভবনে অনুষ্ঠিত জরুরি বৈঠকে কি হয়পছে জানতে চাইলে সাদপন্থী মুরব্বি মাওলানা আশরাফ আলী জনকণ্ঠকে বলেন, প্রতিমন্ত্রীর উপস্থিতিতে শীর্ষ মুরব্বিরা বৈঠকে বসছিলেন। আমাদের নানা দাবিগুলো উত্থাপন করা হয়েছে। আগামী বছর ইজতেমায় আমরা প্রথম পর্বে অংশ নেয়ার অনুমতি চেয়েছি। 

জুবায়েরপন্থীদের গণমাধ্যমের দায়িত্বে থাকা জহির ইবনে মুসলিম বলেন, মন্ত্রী রাসেল সাহেবের সঙ্গে আমরা নানা বিষয় নিয়ে আলোচনা করেছি।

এ ব্যাপারে যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল গণমাধ্যমকে কিছু বলেননি।

এসআর

×