ঢাকা, বাংলাদেশ   রোববার ১৬ জুন ২০২৪, ২ আষাঢ় ১৪৩১

নাজিরপুরে আওয়ামী লীগের সম্মেলনে সংঘর্ষ, গুলিবিদ্ধসহ আহত ১৫

নিজস্ব সংবাদদাতা, পিরোজপুর

প্রকাশিত: ২১:২১, ১৯ নভেম্বর ২০২২

নাজিরপুরে আওয়ামী লীগের সম্মেলনে সংঘর্ষ, গুলিবিদ্ধসহ আহত ১৫

সংঘর্ষে আহতরা। ছবি: জনকণ্ঠ।

নাজিরপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন চলাকালে দুই গ্রুপের সংঘর্ষে একজন গুলিবিদ্ধ ও উপজেলা ছাত্রলীগের আহ্বায়কসহ ১৫ জন আহত হয়েছেন। 

শনিবার (১৯ নভেম্বর) বঙ্গমাতা ফজিলাতুন্নেচ্ছা মুজিব মহাবিদ্যালয় কলেজ মাঠে দ্বিতীয় অধিবেশন চলাকালে এ ঘটানা ঘটে। 

আহতরা হলেন- আ. রশিদ, নাজিরপুর বালিকা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক প্রশান্ত কুমার হালদার, উপজেলা ছাত্রলীগের আহ্বায়ক তরিকুল ইসলাম তাপস, মেজবাহ, মিজানুর, সুবোধ মিস্ত্রী, জুয়েল শেখ, সোহাগ, শাওন ও নিক্সন। এর মধ্যে গুরুতর অবস্থায় গুলিবিদ্ধ আ. রশিদ ও আহত সোহাগকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। 

আহত ১২ জন মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী শ ম রেজাউল করিমের অনুসারি ও আওয়ামী লীগ, ছাত্রলীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ ও যুবলীগ নেতাকর্মী। এছাড়া জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আউয়াল গ্রুপের তিনজন রয়েছেন। এ সময় উত্তেজিত কর্মীরা একটি মাক্রোবাস ভাঙচূর করে। 

হামলায় আহত প্রত্যক্ষদর্শী উপজেলা ছাত্রলীগের আহ্বায়ক তরিকুল ইসলাম চৌধুরী তাপস জানান, সন্ধ্যার কিছু আগে কেন্দ্রীয় নেতারা কমিটি গঠনের জন্য বঙ্গমাতা কলেজের  দোতালার একটি কক্ষে বসে সিদ্ধান্ত নিচ্ছিলেন। এ সময় আমরা ওই ভবনের নিচে দাঁড়িয়ে  স্লোগান দিচ্ছিলাম। এ সময় পিরোজপুর থেকে জেলা অওয়ামী লীগের সভাপতিসহ অন্যদের সাথে আসা ক্যাডার বাহিনীর এক যুবক তার সাথে থাকা পিস্তল দিয়ে গুলি ছোড়ে।  গুলিতে যুবলীগ নেতা রশিদ আহত হন। 

এদিন দুপুরে ফজিলাতুন্নেছা মুজিব মহাবিদ্যালয় মাঠে উপজেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহসভাপতি মাস্টার মনিন্দ্র নাথ মজুমদারের সভাপতিত্বে ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন শুরু হয়। এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক এডভোকেট আফজাল হোসেন। সম্মেলনের উদ্বোধন করেন জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি একেএমএ আউয়াল। 

সম্মেলনে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন- মৎস ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম (এমপি), আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য এডভোকেট আমিরুল আলম মিলন (এমপি), কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য আনিসুর রহমান প্রমূখ। 

সম্মেলনে আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মুনিরুজ্জামান আতিয়ার অভিযোগ করে বলেন, উপজেলা কমিটির ৪৭ জনের মধ্যে মন্ত্রীর অনুসারি ৩৪ জন কাউন্সিলর পক্ষ থাকায় মাত্র চারজনকে কাউন্সিলর কার্ড দেয়া হয়। বাকী ৩০ জনকে দেয়নি কমিটির সাধারণ সম্পাদক। সন্ধ্যায় মোশারেফ হোসেন খানকে সভাপতি ও আশুতোষ বেপারীকে সাধারণ সম্পাদক করে আংশিক কমিটি ঘোষণা করা হয়।  

এমএইচ

সম্পর্কিত বিষয়:

×