২০ নভেম্বর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

তিন হাজার দু’শ’ শিক্ষার্থীকে হাতেকলমে বিজ্ঞান শেখালেন জাফর ইকবাল


তিন হাজার দু’শ’ শিক্ষার্থীকে হাতেকলমে বিজ্ঞান শেখালেন জাফর ইকবাল

নিজস্ব সংবাদদাতা, ভৈরব ও কিশোরগঞ্জ, ১১ জানুয়ারি ॥ কুলিয়ারচরে অনুষ্ঠিত হলো বিশ্বের সবচেয়ে বড় ‘বিজ্ঞান ক্লাস’। এজন্য কুলিয়ারচর থানার মাঠে শামিয়ানা টানিয়ে বানানো হয় সোয়া চার হাজার বর্গফুটের বিশাল ক্লাসরুম। এতে ১৩ উপজেলার তিন হাজার দুশ’ শিক্ষার্থী এক সঙ্গে বসে ব্যবহারিক ক্লাস করে। আর এই ক্লাসের শিক্ষক ছিলেন শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক মুহম্মদ জাফর ইকবাল। কখনও গল্প, কখনও খেলাচ্ছলে তিনি শিক্ষার্থীদের হাতেকলমে শেখালেন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি।

কুলিয়ারচরের ইউএনও উর্মি বিনতে সালাম জানান, পঞ্চম থেকে সপ্তম শ্রেণী পড়ুয়া শিক্ষার্থীদের নিয়ে বুধবার বেলা ১১টায় শুরু হয় মহড়া। এরপর বেলা ১২টায় ক্লাস শুরু করেন অধ্যাপক মুহম্মদ জাফর ইকবাল। তিনি ২৩টি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও পাঁচটি উচ্চ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের এসব শিক্ষার্থীকে হাতেকলমে চুম্বক ও কম্পাস বানানো শেখান। ক্লাসে তাকে সহায়তা করেন কুলিয়ারচরের বিভিন্ন স্কুল ও কলেজের বিজ্ঞান ও আইসিটি বিষয়ের ৮০ শিক্ষক।

কুলিয়ারচর উপজেলা প্রশাসন আশা করছে, বিজ্ঞান ও আইসিটি নিয়ে ‘বিশ্বের সবচেয়ে বড় ব্যবহারিক ক্লাস’ হিসেবে এটি লেখা হবে গিনেস বুক অব ওয়ার্ল্ড রেকর্ডসে।

আয়োজকরা জানান, বিজ্ঞান ও আইসিটি বিষয়ক ‘বিশ্বের সবচেয়ে বড় ব্যবহারিক ক্লাস’টিকে গিনেস বুক অব ওয়ার্ল্ড রেকর্ডসে অন্তর্ভুক্ত করতে গিনেস কমিটির কাছে গত বছরের ৪ এপ্রিল আবেদন করেছিলেন কুলিয়ারচরের ইউএনও উর্মি বিনতে সালাম। এরপর সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ গত ১৪ নবেম্বর এই আবেদন গ্রহণ করে। এতে বাংলাদেশের নাম গিনেস বুক অব ওয়ার্ল্ড রেকর্ডসে অন্তর্ভুক্ত হতে যাচ্ছে বলে জানা গেছে। বুধবারের অনুষ্ঠানটির ভিডিও গিনেস কর্তৃপক্ষের কাছে পাঠানো হবে বলে জানান তারা। গিনেস বুকে এখন পর্যন্ত স্কুল পর্যায়ে বিজ্ঞান বিষয়ক বিশ্বের সবচেয়ে বড় ব্যবহারিক ক্লাস আয়োজনের কৃতিত্ব অস্ট্রেলিয়ার। গত বছরের ১৬ আগস্ট কুইন্সল্যান্ডে এক সঙ্গে দুই হাজার ৯০০ ছাত্রছাত্রী সেই বিজ্ঞান বিষয়ক ব্যবহারিক ক্লাসে অংশ নিয়ে রেকর্ডের পাতায় নাম লেখায়।

কুলিয়ারচরে সবচেয়ে বড় বিজ্ঞান ক্লাসে অংশ নেয়া শিশু-কিশোরদের উৎসাহ দিতে অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন তথ্যপ্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক ও ভৈরব-কুলিয়ারচরের এমপি এবং বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন, জেলা প্রশাসক মোঃ আজিম উদ্দিন বিশ্বাস, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (শিক্ষা ও আইসিটি) গোলাম হায়দার ভূঁইয়া, কুলিয়ারচর পৌরসভার মেয়র ইমতিয়াজ বিন জিসানসহ প্রশাসনের উর্ধতন কর্মকর্তারা।

ক্লাসের আনুষ্ঠানিকতা শেষে সব শিক্ষার্থীর হাতে যখন অতিথিরা বিজ্ঞানের বই তুলে দিচ্ছিলেন, অনুষ্ঠানে বাজছিল সেই উজ্জয়নী গান- ‘আমরা করব জয় নিশ্চয়’।

কুলিয়ারচর থানার মাঠে ২৪৬ ফুট দৈর্ঘ্য ও ১৭২ ফুট প্রস্থের এই অস্থায়ী ক্লাসরুম ১০ ফুট উচ্চতার সাদা কাপড়ে ঘিরে সেখানে বসানো হয় ২১টি এলইডি স্ক্রিন। ক্লাসে অংশ নেয়া তিন হাজার দুশ’ ছাত্রছাত্রীর প্রতি দুজনকে নিয়ে এক একটি গ্রুপ করে বসার ব্যবস্থা করা হয়। দুই পর্বের আয়োজনের প্রথম পর্বে ছিল দেড় ঘণ্টার ব্যবহারিক ক্লাস। ব্যবহারিক ক্লাসে একই সঙ্গে বিশ্বের সবচেয়ে ছোট সার্টিফিকেট তৈরির রেকর্ড করা হয়। ক্লাসে অংশ নেয়া শিক্ষার্থীদের এসব সার্টিফিকেট দেয়া হবে। এরপর শুরু হয় আলোচনা সভা।

অধ্যাপক জাফর ইকবাল বলেন, ‘বিজ্ঞান শিক্ষার এই ব্যবহারিক ক্লাস ছোট ছোট ছেলেমেয়েদের বিজ্ঞানে আগ্রহী করে তুলবে। এটা দেশে বিজ্ঞান শিক্ষায় একটা নতুন দিগন্তের সূচনা করবে।’

সম্পর্কিত:
পাতা থেকে: