মেঘলা, তাপমাত্রা ৩১.১ °C
 
২২ সেপ্টেম্বর ২০১৭, ৭ আশ্বিন ১৪২৪, শুক্রবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
সর্বশেষ

চীনে টাইফুন চ্যান হমের আঘাত, নিরাপদ আশ্রয়ে ১০ লাখ মানুষ

প্রকাশিত : ১২ জুলাই ২০১৫, ১২:৫২ এ. এম.
  • চারশ’ ফ্লাইট বাতিল

শক্তিশালী টাইফুন চ্যান-হম শনিবার চীনের পূর্বাঞ্চলীয় প্রদেশ বিনজিয়াংয়ের উপকূল বরাবর স্থলভাগে আঘাত হেনেছে। গ্রীষ্মম-লীয় এই ঝড়ের কারণে বাতাসের গতিবেগ ছিল ঘণ্টায় ১০৭ মাইল বা ১৭৩ কিলোমিটার। ঝড়ের ক্ষয়ক্ষতি থেকে রক্ষা পেতে প্রায় দশ লাখ লোককে উপকূলীয় এলাকা থেকে সরিয়ে নেয়া হয়েছে। শুক্রবার থেকে চীনের ঐ এলাকায় ১০০ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত হয়েছে। টাইফুন চ্যান-হম এখন সাংহাইকে পাশ কাটিয়ে উত্তরদিকে অগ্রসর হচ্ছে। এই টাইফুন এ সপ্তাহের গোড়ারদিকে তাইওয়ান ও জাপানে আঘাত হানে। এতে বহু গাছপালা উপড়ে যায় এবং বহু লোক আহত হয়। চ্যান-হম প্রথমে গ্রীনিচমান সময় ৮টা ৪০ মিনিটের দিকে নিংবো শহরের কাছে বিনজিয়াং প্রদেশের একটি দ্বীপে আঘাত হানে। জাতীয় আবহাওয়া কেন্দ্র এ কথা জানায়। চীনের রাষ্ট্রীয় বার্তা সংস্থা সিনহুয়া জানায়, শনিবার সন্ধ্যা পর্যন্ত এই ঝড়ে কোন হতাহতের খবর পাওয়া যায়নি। প্রদেশটির লাইয়াও নামে একটি গ্রামে ৪০০ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়েছে।

বিবিসির সাংহাই সংবাদদাতা জানান, টাইফুন চ্যান-হমের কারণে চার শ’রও বেশি ফ্ল্যাট এবং বেশ কয়েকটি সরকারী অনুষ্ঠান বাতিল করা হয়েছে। সরকারের পক্ষ থেকে জনগণকে ঘরের মধ্যে অবস্থান করতে বলা হয়েছে। বিনজিয়াং প্রদেশের কর্তৃপক্ষ তাদের মাছধরা সকল নৌবহরকে বন্দরে চলে আসার নির্দেশ দিয়েছে। ঝড়ের কারণে প্রায় এক শ’ ট্রেন সার্ভিসও বাতিল করা হয়েছে। চ্যান-হমকে ১৯৪৯ সালের পর বিনজিয়াংয়ে আঘাত হানা সবচেয়ে শক্তিশালী টাইফুন বলে ধারণা করা হয়। তবে সতর্কতামূলক পূর্বপ্রস্তুতির কারণে ক্ষয়ক্ষতি কম হয়েছে। এই ঝড়ের কারণে চীনের ঐ এলাকায় সর্বোচ্চ সতর্কতা জারি করা হয়। সূত্র: বিবিসির

প্রকাশিত : ১২ জুলাই ২০১৫, ১২:৫২ এ. এম.

১২/০৭/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


শীর্ষ সংবাদ: