২১ জানুয়ারী ২০১৮,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

পুঁজিবাজারে চার শ’ কোটি টাকার লেনদেন


অর্থনৈতিক রিপোর্টার ॥ দেশের পুঁজিবাজারে সূচকের বৃদ্ধির সঙ্গে লেনদেনের বৃদ্ধি অব্যাহত রয়েছে। এই নিয়ে টানা তৃতীয় দিনের মতো দেশের প্রধান পুঁজিবাজারে দর বাড়ল। বিনিয়োগকারীদের অংশগ্রহণ বাড়ার কারণেই দুই বাজারেই লেনদেনের পরিমাণও বেড়েছে। এদিন ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) ৪১৯ কোটি ৩১ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে। একইভাবে অপর বাজার চট্টগ্রাম স্টক্স একচেঞ্জেও লেনদেনের সঙ্গে সূচক বেড়েছে। তবে সপ্তাহের শেষ কার্যদিবসে উভয় বাজারেই গত কিছুদিন ধরে দর বাড়তে থাকা কোম্পানিগুলোর দর হারিয়েছে।

বাজার পর্যালোচনায় দেখা গেছে, বৃহস্পতিবার ডিএসইতে আগের দিনের চেয়ে ৫৪ কোটি ৪৭ লাখ টাকার বা ১৫ শতাংশ বেশি লেনদেন হয়েছে। আগের দিন এ বাজারে লেনদেন হয়েছিল ৩৬৪ কোটি ৮৪ লাখ টাকার শেয়ার। ডিএসইতে লেনদেনে অংশ নেয় ৩০৯ কোম্পানি ও মিউচুয়াল ফান্ড। এর মধ্যে দর বেড়েছে ১৮৯, কমেছে ৯০ ও অপরিবর্তিত রয়েছে ৩০টির শেয়ার দর। সকালের সূচকের ইতিবাচক প্রবণতা দিয়ে লেনদেন শুরুর পর সারাদিনই সূচকের উত্থান অব্যাহত থাকে। দিনশেষে ডিএসইর সার্বিক সূচক বা ডিএসইএক্স ৩২ পয়েন্ট বেড়ে ৪ হাজার ১২২ পয়েন্টে অবস্থান করছে। ডিএসইএস বা শরীয়াহ্ সূচক ১ পয়েন্ট বেড়ে অবস্থান করছে এক হাজার ১০ পয়েন্টে। ডিএস৩০ সূচক ৯ পয়েন্ট বেড়ে দাঁড়িয়েছে এক হাজার ৫৫৮ পয়েন্টে।

ডিএসইতে লেনদেনের শীর্ষে থাকা দশ কোম্পানি হচ্ছে- ইউনাইটেড পাওয়ার জেনারেশন এ্যান্ড ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি, এসিআই ফরমুলেশনস, এসিআই লিমিটেড, ইফাদ অটোস, বাংলাদেশ সাবমেরিন কেবল কোম্পানি, গ্রামীণফোন, সাইফ পাওয়ারটেক, এমজেএল বিডি, ওয়েস্টার্ন মেরিন শিপইয়ার্ড এবং শাহজিবাজার পাওয়ার কোম্পানি।

দরবৃদ্ধির সেরা কোম্পানিগুলো হলো- কনফিডেন্ট সিমেন্ট, মেঘনা সিমেন্ট, বাংলাদেশ সাবমেরিন কেবল কোম্পানি লিমিটেড, কন্টিনেন্টাল ইন্স্যুরেন্স, ওরিয়ন ফার্মা, সোনারবাংলা ইন্স্যুরেন্স, ইসলামী ইন্স্যুরেন্স, রিপাবলিক, গোল্ডেন হার্ভেস্ট ও ফ্যামিলি টেক্স।

দর হারানোর সেরা কোম্পানিগুলো হলো- মার্কেন্টাইল ব্যাংক, এবিবি১ম মিউচুয়াল ফান্ড, নদার্ন জুটস, ফারইস্ট ফাইনান্স, রহিম টেক্সটাইল, মডার্ন ডাইং, প্রগেসিভ লাইফ, এ্যামবে ফার্মা ও শাহজিবাজার পাওয়ার কোম্পানি লিমিটেড। বৃহস্পতিবারে দেশের অপর পুুঁজিবাজারেও সব ধরনের সূচকই বেড়েছে। দর বাড়তে থাকার কারণে বিনিয়োগকারীদের অংশগ্রহণও কমেছে। একইভাবে চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) ৪৭ কোটি টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে। এদিন সিএসই সার্বিক সূচক ৯৯ পয়েন্ট বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১২ হাজার ৭১১ পয়েন্টে।