ঢাকা, বাংলাদেশ   শনিবার ১৩ এপ্রিল ২০২৪, ২৯ চৈত্র ১৪৩০

ভার্জিলের গোলে চ্যাম্পিয়ন লিভারপুল

​​​​​​​স্পোর্টস রিপোর্টার

প্রকাশিত: ২৩:৩৪, ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০২৪

ভার্জিলের গোলে চ্যাম্পিয়ন লিভারপুল

.

চেলসিকে হতাশ করে রেকর্ড দশমবারের মতো ঐতিহ্যবাহী ইংলিশ লিগ কাপ (কারাবাও কাপ) ফুটবলে চ্যাম্পিয়ন হয়েছে লিভারপুল। রবিবার রাতে লন্ডনের বিখ্যাত ওয়েম্বলি স্টেডিয়ামে প্রায় ৯০ হাজার দর্শকের সামনে হিরো বনে যান হল্যান্ডের তারকা ডিফেন্ডার ভার্জিল ভ্যান ডাইক। উত্তেজনাপূর্ণ ম্যাচের নির্ধারিত ৯০ মিনিট গোলশূন্য ড্র থাকার পর ম্যাচ গড়ায় অতিরিক্ত ৩০ মিনিটে।

সেখানেও ড্র থেকে শেষ হওয়ার পথে ছিল। কিন্তু ম্যাচ শেষের মাত্র দুই মিনিট আগে অর্থা ১১৮ মিনিটে ভার্জিল হেডে জয়সূচক গোল করেন। আর তাতেই চেলসিকে - গোলে হারিয়ে শিরোপা জয়ের উল্লাস করে লিভারপুল। ম্যাচ শেষে দ্য রেডস কোচ জার্গেন ক্লপ জয়কেস্পশালহিসেবে উল্লেখ করেছেন। যে কোনো প্রতিযোগিতাতেই দুদলের মুখোমুখি লড়াই মানেই দারুণ উত্তেজনা। ম্যাচেও সেটার দেখা মেলে। বিশেষ করে নির্ধারিত সময়ে সহজে ফলাফল আসে না। লন্ডনে আরেকবার সে প্রমাণ মিলেছে। সব ধরনের প্রতিযোগিতা মিলিয়ে ম্যাচটির আগে আটবারের মুখোমুখি লড়াইয়ে সাতটিই হয়েছিল ড্র। একমাত্র জয়টি আসে গত মাসে ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগে। ওই ম্যাচেও চেলসিকে - গোলে হারিয়েছিল লিভারপুল।

দুই বছর আগে এই লিগ কাপের ফাইনাল মঞ্চেই মুখোমুখি হয়েছিল দল দুটি। গোলশূন্য ১২০ মিনিটের পর টাইব্রেকারে শেষ হাসি হেসেছিল লিভারপুল। এবার প্রতিশোধ নেওয়ার সুযোগ থাকলেও সেটা কাজে লাগাতে পারেনি ব্লুজরা। দলের সেরা স্ট্রাইকার মোহাম্মদ সালাহ, ফরোয়ার্ড ডারউইন নুনেজ, অভিজ্ঞ ডিফেন্ডার ট্রেন্ট অ্যালেকজান্ডার-আর্নল্ড, গোলরক্ষক অ্যালিসন বেকারসহ আরও অনেক খেলোয়াড় চোট পেয়ে বাইরে ছিল। তাদের ছাড়াই আক্রমণাত্মক পারফরম্যান্স উপহার দিয়েছে লিভারপুল। জিতে নিয়েছে মৌসুমের সম্ভাব্য চার শিরোপার প্রথমটি। অন্যদিকে ম্যাচের শুরুতে বেশ ভুগতে দেখা যায় মরিসিও পোচেট্টিনোর চেলসিকে। সেই সুযোগে তাদের ওপর চাপ বাড়ানোর চেষ্টা করে লিভারপুল। টানা আক্রমণও করতে থাকে। যদিও তেমন ভালো সুযোগ সৃষ্টি করতে পারছিল না তারা। বরং আচমকাই ২০ মিনিটে দারুণ একটা সুযোগ পেয়ে যায় চেলসি। গোলরক্ষককে একা পেয়েছিলেন কোল পালমার। তবে তার জোরাল শট দারুণ নৈপুণ্যে রুখে দেন লিভারপুলের দ্বিতীয় সেরা গোলরক্ষক কুইভেন কেলাহার।

৩২ মিনিটে নিকোলাস জ্যাকসনের পাস নিয়ন্ত্রণে নিয়ে বল জালে পাঠান চেলসির রাহিম স্টার্লিং। তবে সঙ্গে সঙ্গে অফসাইডের পতাকা তোলেন লাইন্সম্যান। জ্যাকসন অফসাইডে থাকায় ভিএআরেও সিদ্ধান্ত বহাল থাকে। ধীরে ধীরে আক্রমণ-পাল্টা আক্রমণে জমে উঠতে শুরু করে লড়াই। ৪০ মিনিটে এগিয়ে যেতে পারত লিভারপুল। কিন্তু ভাগ্য সহায় হয়নি। কোডি হাকপোর হেড বাধা পায় পোস্টে। ৬০ মিনিটে ভার্জিল ভ্যান ডাইক হেডে বল জালে পাঠালে এগিয়ে যাওয়ার উল্লাসে মাতে লিভারপুল। তবে তাদের উদযাপন মুহূর্তেই হতাশায় রূপ নেয়। ওয়াটারু এন্ডো অফসাইডে থাকায় ভিএআরের সাহায্যে গোল দেননি রেফারি। এরপর আবারও চেলসি দুর্ভাগ্যের ফেরে গোলবঞ্চিত হয়। ৭৬ মিনিটে কনর গ্যালাহারের শট পোস্টে লেগে প্রতিহত হয়।

এভাবে এক পর্যায়ে নির্ধারিত সময়ের খেলা শেষ হয় গোল ছাড়াই। ম্যাচ গড়ায় অতিরিক্ত সময়ে। দীর্ঘ লড়াইয়ের পর ম্যাচ যখন টাইব্রেকারে গড়ানোর পথে, ঠিক তখনই লিভারপুলকে ৎসবের উপলক্ষ এনে দেন ভার্জিল। কর্নারে উড়ে আসা বল লাফিয়ে হেডে চোখ ধাঁধানো গোল করেন ডাচ তারকা। ম্যাচের ভাগ্য গড়া হয়ে যায় এখানেই। বাকিটা সময় জাল অক্ষত রেখে ৎসব করে লিভারপুল। চলতি মৌসুম শেষে অ্যানফিল্ড থেকে বিদায়ের ঘোষণা আগেই দিয়েছেন ক্লপ। শেষের যাত্রায় আরও একটি ট্রফি জিতেছে জার্মান কোচ। কারণেই হয়ত এই ট্রফিকে স্পেশাল বলে অভিহিত করেছেন তিনি। লিভারপুলের হয়ে আগেও লিগ কাপ জিতেছেন ক্লপ। ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগ, উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লিগ, ইংলিশ এফএ কাপ, ফিফা ক্লাব বিশ্বকাপ, উয়েফা সুপার কাপও জিতেছেন। জার্মানিতে বরুশিয়া ডর্টমুন্ডের হয়ে দুইবার জিতেছেন বুন্দেসলিগা। সেখানেও জিতেছেন লিগ কাপ, জার্মান সুপার কাপ। কিন্তু তার সমৃদ্ধ কোচিং ক্যারিয়ারের সেরা শিরোপা বলছেন এবারের ইংলিশ লিগ কাপ জয়কে।

জার্গেন ক্লপ বলেন, বাইরে আমাকে বলা হয়েছিল এই শিশুদের নিয়ে ট্রফি জেতা যায় না। এটা এখন নতুন করে লিখুন। ২০ বছরের কোচিং ক্যারিয়ারে আমার জেতা সবচেয়ে স্পেশাল ট্রফি এটিই। অনেক সময়ই আমাকে জিজ্ঞেস করা হয়। এটা নিয়ে গর্বিত কি না, ওটা নিয়ে কতটা গর্বিত। ভালো লাগত যদি প্রায়ই বলতে পারতাম যে আমি গর্বিত। তবে ম্যাচের সবকিছুর জন্যই আমি গর্বিত।

×