ঢাকা, বাংলাদেশ   শনিবার ০২ মার্চ ২০২৪, ১৭ ফাল্গুন ১৪৩০

শততম গোলের মাইলফলক মেসির

স্পোর্টস রিপোর্টার

প্রকাশিত: ০০:২০, ৩০ মার্চ ২০২৩

শততম গোলের মাইলফলক মেসির

কুরাকাওয়ের বিরুদ্ধে ম্যাচশেষে বিশ্বকাপ রেপ্লিকা হাতে সতীর্থদের সঙ্গে আর্জেন্টিনার অধিনায়ক লিওনেল মেসি

বিশ্বচ্যাম্পিয়নদের উৎসব চলছেই। এবার পুঁচকে কুরাকাওয়ের জালে ৭ বার বল জড়িয়েছে মেসি-ডি মারিয়ারা। ৭-০ গোলে জয়ী এই ম্যাচে দুর্দান্ত এক হ্যাটট্রিক পূর্ণ করেন দলপতি লিওনেল মেসি। সেইসঙ্গে শততম আন্তর্জাতিক গোলের মাইলফলকও স্পর্শ করেন এলএম টেন। বিশ্বকাপজয়ী প্রথম ফুটবলার হিসেবে অবিস্মরণীয় এই কীর্তি গড়েন লিওনেল মেসি। সবমিলিয়ে তৃতীয়।

বাংলাদেশ সময় বুধবার ভোরে আর্জেন্টিনার উত্তরাঞ্চলীয় প্রদেশ সান্তিয়াগো ডেল এস্তেরোতে ক্যারিবিয়ান দ্বীপ কুরাকাওয়ের মুখোমুখি হয় লিওনেল স্কালোনির দল। খর্ব শক্তির দলটির বিপক্ষে ম্যাচের শুরু থেকেই দাপুটে খেলে কাতার বিশ্বকাপের চ্যাম্পিয়নরা। আর প্রথমার্ধের ২০ মিনিটেই গোল করে দলকে এগিয়ে দেন লিওনেল মেসি। সেইসঙ্গে আন্তর্জাতিক ক্যারিয়ারে শততম  গোলের মাইলফলকও স্পর্শ  করেন প্যারিস সেইন্ট জার্মেইর এই আর্জেন্টাইন ফরোয়ার্ড।

২০০৬ সালের মার্চে ক্রোয়েশিয়ার বিপক্ষে আর্জেন্টিনার জার্সিতে প্রথম আন্তর্জাতিক গোলের দেখা পেয়েছিলেন মেসি। ১৭ বছর পর করলেন শততম গোল। তবে এখানে নিজেকে থামিয়ে রাখেননি ৩৫ বছর বয়সী এই আর্জেন্টাইন। ম্যাচের ৩৩ মিনিটে দ্বিতীয় এবং ৩৭ মিনিটে নিজের হ্যাটট্রিক পূর্ণ করে নেন তিনি। জাতীয় দলের হয়ে এটি তার সপ্তম হ্যাটট্রিক। আর ক্যারিয়ারের মোট ৫৭তম হ্যাটট্রিক।
আরও আগেই আর্জেন্টিনার হয়ে সর্বোচ্চ গোলের মালিক বনেছিলেন লিওনেল মেসি। আলবিসেলেস্তেদের হয়ে সর্বোচ্চ গোলদাতার তালিকায় ৫৬ ও ৪১ গোল করে দুই আর তিনে অবস্থান করছেন যথাক্রমে গ্যাব্রিয়েল বাতিস্তুতা এবং সার্জিও অ্যাগুয়েরো। উভয়েই জাতীয় দল থেকে অবসর নিয়ে ফেলেছেন। গত ডিসেম্বরে ফ্রান্সকে হারিয়ে স্বপ্নের বিশ্বকাপের শিরোপা উঁচিয়ে ধরেন মেসি। এরপর তিন তারকাখচিত জার্সি গায়ে এটা মেসিদের দ্বিতীয় ম্যাচ।

আর দ্বিতীয় ম্যাচেই হ্যাটট্রিক করে মেসি তার গোলসংখ্যা ১০২’এ নিয়ে গেছেন। আন্তর্জাতিক ফুটবলে সর্বোচ্চ গোলদাতার তালিকায় সবার উপরে রয়েছেন তারই চির প্রতিদ্বন্দ্বী ক্রিস্টিয়ানো রোনাল্ডো। পর্তুগিজ সুপারস্টারের গোলসংখ্যা ১২২। তার পরে দুইয়ে রয়েছেন ইরানের আলি দাই (১০৯)। মেসি যেভাবে গোল করে চলেছেন দাইকে ছাড়িয়ে যাওয়াটা যেন তার জন্য কেবলই সময়ের ব্যাপার।
কুরাকাওয়ের বিপক্ষে লিওনেল মেসির ক্যারিয়ারের শততম গোল এবং হ্যাটট্রিক ছাড়াও আরও চারবার গোল উৎসব করেছে আর্জেন্টিনা। মেসির প্রথম গোলের মাত্র তিন মিনিট পরই দলের হয়ে ব্যবধান দ্বিগুণ করেন নিকোলাস গঞ্জালেজ। চার গজ দূর থেকে কুরাকাও গোলরক্ষক এলয় রুমকে পরাস্ত করলে আলবিসেলেস্তেদের ব্যবধান দ্বিগুণ হয়। মেসির হ্যাটট্রিক পূর্ণ হওয়ার মাত্র ২ মিনিট আগে গোল করেন এনজো ফার্নান্দেজও। আর্জেন্টিনার চতুর্থ এই গোলের নায়কও অবশ্য মেসি। এর ফলে ৫-০ ব্যবধানে এগিয়ে থেকে বিরতিতে যায় লিওনেল স্কালোনির শিষ্যরা।

দ্বিতীয়ার্ধে প্রতিপক্ষের জালে আরও দুইবার বল জড়ায় কাতার বিশ্বকাপের চ্যাম্পিয়নরা। দ্বিতীয়ার্ধের ৭৮ মিনিটে আর্জেন্টিনার হয়ে ষষ্ঠ গোলটি করেন এ্যাঞ্জেল ডি মারিয়া। রেফারির শেষ বাশি বাজানোর ৩ মিনিট আগে কুরাকাওয়ের জালে শেষ পেরেকটি ঠুকে দেন গঞ্জালো মনটিয়েল। এর ফলে বড় জয় নিয়েই মাঠ ছাড়ে তিন বারের বিশ্ব চ্যাম্পিয়নরা। ম্যাচ শেষে আর্জেন্টিনা ফুটবল অ্যাসোসিয়েশনের প্রেসিডেন্ট তাপিয়া শততম গোল করা বলটি স্মারক হিসেবে মেসিকে উপহার দিয়ে দেন। তার সঙ্গে মেসিকে আর্জেন্টিনার একটি জার্সি ও একটি প্লেটও দেন তাপিয়া। এলএম টেন এদিন দ্রুততম হ্যাটট্রিকের রেকর্ডও গড়েন।

আন্তর্জাতিক ফুটবলে কুরাকায়েওর বিপক্ষে মেসির হ্যাটট্রিকটি তার ক্যারিয়ারে দ্রুততম। মাত্র ১৮ মিনিটেই হ্যাটট্রিক পূর্ণ করেন তিনি। এর আগে মেসি দ্রুততম হ্যাটট্রিকটি করেছিলেন পানামার বিপক্ষে। সে ম্যাচে ৫-০ গোলে জেতা আর্জেন্টিনার সব গোলই করেছিলেন এলএম টেন। তবে ফুটবল ক্যারিয়ারে মেসির দ্রুততম হ্যাটট্রিক রায়ো ভায়োকানোর বিপক্ষে। ২০১৫ সালে রায়োর বিপক্ষে মাত্র ১৩ মিনিটে হ্যাটট্রিক করেছিলেন বিশ্ব ফুটবলের এই খুদে জাদুকর।
এদিকে আন্তর্জাতিক প্রীতি ম্যাচে বেলজিয়াম ৩-২ গোলে হারিয়েছে জার্মানিকে। সেইসঙ্গে ১৯৫৪ সালের পর এই প্রথম বেলজিয়ামের কাছে হারের স্বাদ পেল জার্মানি। দিনের অন্যান্য ম্যাচে এদিন চিলি ৩-২ গোলে প্যারাগুয়েকে, ইকুয়েডর ২-১ গোলে অস্ট্রেলিয়াকে, একই ব্যবধানে কলম্বিয়া-জাপানকে, উরুগুয়ে-দক্ষিণ কোরিয়াকে, ইরান-কেনিয়াকে এবং বলিভিয়া হারায় সৌদি আরবকে।

×