ঢাকা, বাংলাদেশ   রোববার ১৪ এপ্রিল ২০২৪, ১ বৈশাখ ১৪৩১

কেসিসি নির্বাচনে প্রতীক পেলেন চার মেয়র প্রার্থী

স্টাফ রিপোর্টার, খুলনা অফিস 

প্রকাশিত: ১৩:৩৩, ২৬ মে ২০২৩

কেসিসি নির্বাচনে প্রতীক পেলেন চার মেয়র প্রার্থী

রিটার্নিং অফিসারের কাছ থেকে দলীয় প্রতীক গ্রহণ করেন আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী তালুকদার আব্দুল খালেক। ছবি: জনকণ্ঠ 

আগামী ১২ জুনের খুলনা সিটি করপোরেশন (কেসিসি) নির্বাচনকে ঘিরে শুক্রবার সকাল সাড়ে ৯টা থেকে প্রতীক বরাদ্দ শুরু হয় প্রার্থীদের মধ্যে। প্রথমেই প্রতীক দেওয়া হয় মেয়র প্রার্থীদের মধ্যে। এই পদে চারজনই নির্ধারিত দলের প্রতিনিধিত্ব করায় একেবারেই বেগ পেতে হয়নি নির্বাচন কর্তাদের। 

কেসিসি নির্বাচনের রিটার্নিং কর্মকর্তা মো. আলাউদ্দিন নৌকা প্রতীক তুলে দেন আওয়ামী লীগের মনোনিত প্রার্থী সদ্য বিদায়ী মেয়র তালুকদার আব্দুল খালেকের হাতে। 

এছাড়া লাঙ্গল প্রতীক নেন জাতীয় পার্টির প্রার্থী শফিকুল ইসলাম মধু, হাতপাখা প্রতীক নেন ইসলামী আন্দোলনের মাওলানা আব্দুল আউয়াল এবং গোলাপ ফুল প্রতীক নেন জাকের পার্টির মেয়র প্রার্থী এস এম সাব্বির হোসেন। প্রতীক পেয়েই প্রচার প্রচারণা শুরু করেন তালুকদার আব্দুল খালেক।

নির্বারিত সময় সকাল সাড়ে ৯টার কিছু সময় আগেই নগরীর নূরনগর রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয়ের সভা কক্ষ খুলে বসেন দায়িত্বপ্রাপ্তরা। ৯টা ৪০ মিনিটে গুটি কয়েক দলীয় নেতাকর্মীদের নিয়ে রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয়ে উপস্থিত হয়ে নৌকা প্রতীক গ্রহণ করেন রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয়ে।

এছাড়া প্রতীক পেয়ে তিনি দলীয় নেতাকর্মীদের সাথে নিয়ে প্রথমে নগরীর ৪ নম্বর ওয়ার্ডে একজন বীর মুক্তিযোদ্ধার জানাজায় অংশগ্রহণ করেন। তারপরই তিনি ১৭ নম্বর ওয়ার্ডের নিউমার্কেট কাঁচা বাজার এলাকায় আনুষ্ঠানিক ভাবে গণসংযোগ শুরু করেন। 

তালুকদার আব্দুল খালেক বলেন, নির্বাচনে যারা মেয়র প্রার্থী হিসেবে অংশগ্রহণ করছেন নির্বাচনের মাঠে তাদের কাউকে আমি ছোট করে দেখছি না। আমি মনে করি, বিগত সময়ে নগরবাসীর জন্য আমি যে অভূতপূর্ব উন্নয়ন করেছি সেই কথা মনে করে নগরবাসী আবার আমাকে ভোট দিয়ে বিজয়ী করবে। আমি যদি পুনরায় মেয়র নির্বাচিত হতে পারি তাহলে আমার অসমাপ্ত কাজ শেষ করে খুলনাকে কেটি তিলোত্তমা নগরী হিসেবে গড়ে তুলতে চাই। 

এর আগে গতকাল ২৫ মে মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার শেষে কিসিসি নির্বাচনে চার জন মেয়র প্রার্থী, ১৩৬ জন সাধারণ ওয়ার্ডের কাউন্সিল প্রার্থী ও সংরক্ষিত ওয়ার্ডের ৩৯ জন কাউন্সিলর প্রার্থীসহ ১৭৯ জন প্রার্থী নির্বাচনের মাঠে থাকবেন বলে চূড়ান্ত করেছে রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয়। 

এসআর

×