ঢাকা, বাংলাদেশ   সোমবার ১৫ আগস্ট ২০২২, ৩০ শ্রাবণ ১৪২৯

পরীক্ষামূলক

গরু ছাগল ভেড়া উট মিলিয়ে ১ কোটি ২১ লাখ পশু রয়েছে

কোরবানির হাট প্রস্তুত ॥ ঢাকায় গবাদি পশু বেচাকেনা শুরু ৬ জুলাই

এম শাহজাহান

প্রকাশিত: ২২:৪৪, ৩ জুলাই ২০২২

কোরবানির হাট প্রস্তুত ॥ ঢাকায় গবাদি পশু বেচাকেনা শুরু ৬ জুলাই

কোরবানির পশু হটে নেয় হচ্ছে

কোরবানির ঈদ সামনে রেখে বিপুল উসাহ-উদ্দীপনায় সারাদেশে গবাদিপশু বেচাকেনার প্রস্তুতি চলছেঈদ-উল-আজহা উদ্যাপনে কোরবানির প্রধান অনুষঙ্গ গরু-ছাগল বিক্রির লক্ষ্যে সারাদেশের পশুর হাটগুলোও এখন সম্পূর্ণ প্রস্তুতইতোমধ্যে প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছে ঢাকার ১৮টি অস্থায়ী পশুর হাটেরবেপারি ও মহাজনরা দেশের স্থানীয় হাট ও খামারগুলো থেকে পশু কিনে সেগুলো নিয়ে এখন ঢাকার পথে রয়েছেনআগামী ৬ জুলাই বুধবার থেকে ঢাকার দুটি স্থায়ী হাটসহ আরও ১৮টি অস্থায়ী স্থান বা হাটে পশু বেচাকেনা শুরু হবেক্রেতারাও কোরবানি দিতে পছন্দের পশুটি কিনতে মুখিয়ে আছেনদেশের দক্ষিণাঞ্চলের একুশ জেলা থেকে ট্রলারের বিপরীতে ট্রাক ও লরিতে প্রথমবারের মতো পদ্মা সেতু পার হয়ে ঢাকায় প্রবেশ করবে গবাদিপশুএ কারণে দ্রুত পশুবাহী ট্রাকগুলো ঢাকায় আসার সুযোগ তৈরি হয়েছেঅন্যদিকে, দেশের উত্তরাঞ্চল থেকে কোরবানির পশু পরিবহনে ক্যাটল স্পেশালনামে বিশেষ ট্রেন চালু করবে রেলওয়ে কর্তৃপক্ষব্যবসায়ী ও খামারিদের ভোগান্তি এবং পরিবহন খরচ কমাতে গবাদিপশু ঢাকায় পৌঁছে দেবে এই বিশেষ ট্রেনকরোনার প্রকোপ বেড়ে যাওয়ায় কোরবানির হাটে স্বাস্থ্যবিধি মানার ওপর জোর দিয়েছে সরকারএ বছর কোরবানির জন্য গরু, ছাগল, ভেড়া, উট মিলিয়ে এক কোটি ২১ লাখ ২ হাজার ৩৮৯টি পশু প্রস্তুত করা হয়েছেচাহিদার তুলনায় দেশে এবার কোরবানিযোগ্য প্রায় ২৩ লাখ গবাদিপশু বেশি রয়েছে বলে জানিয়েছে প্রাণিসম্পদ অধিফতরএতে করে গবাদিপশুর সঙ্কটের কোন আশঙ্কা নেই বলে মনে করা হচ্ছে

জানা গেছে, কোরবানির পশু যাতে ঘরে বসেই কেনাকাটা করা যায়, সে জন্য এবার ডিজিটাল হাটের বাজার সম্প্রসারণ করার উদ্যোগ নিয়েছে প্রাণিসম্পদ অধিদফতরএ ক্ষেত্রে প্রতারণারোধে অর্থ বা টাকা-পয়সা লেনদেনের বিষয়টি কঠোরভাবে মনিটরিং করবে কেন্দ্রীয় ব্যাংকগ্রাহক ক্রয়কৃত পশুটি বুঝে পাওয়ার পর সন্তোষ্টিসূচক সম্মতি দেয়ার পরই কেন্দ্রীয় ব্যাংক অনলাইন প্ল্যাটফর্মের অনুকূলে টাকা হস্তান্তর করবেএ ছাড়া নির্দিষ্ট সময় এবং স্ক্রিনে দেখানো পশুটি গ্রাহক পেয়েছে কি না- সে বিষয়গুলো কঠোরভাবে মনিটরিং করার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছেএ ব্যাপারে ভোক্তাদের সতর্ক থাকার বিষয়ে জোর দিয়েছে কর্তৃপক্ষকোন অভিযোগ থাকলে সঙ্গে সঙ্গে তা জাতীয় ভোক্তা সংরক্ষণ অধিদফতরের নজরে আনার নির্দেশনা দেয়া হয়েছেকোরবানির গবাদিপশু নিয়ে প্রতিবছর ঢাকায় অসাধু সিন্ডিকেট চক্র গড়ে ওঠেএরা বিভিন্ন অপকৌশলে বাজারে কৃত্রিম সঙ্কট তৈরি, জোরপূর্বক নির্দিষ্ট হাটে পশু নিয়ে যাওয়া, অতিরিক্ত হাসিল আদায়, বাজারে জাল টাকার ব্যবহার ও  চাঁদাবাজির মতো ঘটনা ঘটিয়ে থাকেএসব বিষয় তদারকিতে এবার প্রাণিসম্পদ অধিফতর একটি কন্ট্রোল রুম খোলার উদ্যোগ নিয়েছেকোরবানির গবাদিপশু বিষয়ে যে কোন অভিযোগ ও সমস্যার তাক্ষণিক প্রতিকার পাওয়া যাবে এই কন্ট্রোল রুম থেকেএদিকে খোঁজ নিয়ে দেখা গেছে, ঢাকার দুই স্থায়ী হাট গাবতলী  ও সারুলিয়া হাটে কোরবানির গবাদিপশু আসা শুরু হয়েছেদেশের বিভিন্ন জেলা বিশেষ করে পাবনা, সিরাজগঞ্জ এবং কুষ্টিয়া থেকে গরু, ছাগল, ভেড়া ও মহিষ নিয়ে আসা হচ্ছে হাটেতবে এখনও বেচাবিক্রি শুরু হয়নিবেপারিরা দেশের বিভিন্ন হাট এবং খামারগুলো থেকে এসব পশু সংগ্রহ করে ঢাকায় আনছেনঢাকার অস্থায়ী হাটে পশু বেচাকেনা শুরু হবে আগামী ৬ জুলাই থেকেএ কারণে হাটগুলো এখন পূর্ণ প্রস্তুতিতে রয়েছেবিশেষ করে গরু-ছাগল বাঁধার জন্য বাঁশ পোঁতা, সামিয়ানা টানানো, পশুর খাবার খড়, ভুসি সংগ্রহ করা, সামিয়ানা টানানো, সিসি টিভি লাগানো, হাসিল আদায়ের ঘর নির্মাণ, মাইক লাগানো এবং স্বাস্থ্যবিধির সতর্কতা জানাতে ব্যানার ও লিফলেট লাগানোর কাজ শেষ করে আনা হয়েছে

আজ সোমবার থেকেই অস্থায়ী হাটগুলোতে পশু আসা শুরু হবে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরাজানা গেছে, এবার উত্তর সিটি কর্পোরেশন এলাকায় বসানো হচ্ছে ৮টি অস্থায়ী পশুর হাটঅন্যদিকে, ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশন এলাকায় বসতে যাচ্ছে ১০টি অস্থায়ী পশুর হাটরাজধানীর দুই সিটি কর্পোরেশন এলাকায় যে দুটি স্থায়ী হাট রয়েছে, সেগুলোতে বছরজুড়েই পশু কেনাবেচা চলেঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের আওতায় স্থায়ী হাটটি হলো গাবতলী হাট, আর দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের আওতায় স্থায়ী হাট হলো সারুলিয়া স্থায়ী হাটঅন্যদিকে, ঢাকার দুই সিটি কর্পোরেশন মিলিয়ে গত বছর মোট ২৩টি হাট বসেছিল রাজধানীতেএ বছর হাটের সংখ্যা কমিয়ে ১৮টিতে আনা হয়েছেআগামী বছর থেকে এ সংখ্যা আরও কমতে পারেকরোনার কারণে ২০২০ সালে প্রথম অনলাইন হাটের আনুষ্ঠানিক যাত্রা শুরু হয়, তবে এর আগেও ব্যক্তি বা বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠানগুলো অল্প সংখ্যক পশু অনলাইনে বিক্রির ট্রেন্ড চালু করেছিলএরপর থেকে বিকাশ ঘটতে থাকে অললাইন হাটের২০২০ সালের মতো ২০২১ সালেও বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনা অনুসারে এবং ডিএনসিসির তত্ত্বাবধানে ই-ক্যাব ও বিডিএফ অনলাইন হাট পরিচালনা করেছেগত বছর ডিজিটাল হাট প্ল্যাটফর্মে এক হাজার ৮৪৩টি হাট অনলাইনে যুক্ত হয়এ বছর এই লক্ষ্যমাত্রা আরও বাড়ানোর উদ্যোগ নেয়া হচ্ছে বলে জানিয়েছে সংশ্লিষ্ট সূত্রগত বছর ডিজিটাল হাট থকে মোট পশু বিক্রি হয় ৩ লাখ ৮৭ হাজার ৫শ৭৯টিএগুলোর মধ্যে গরু ও মহিষ ২ লাখ ৯৬ হাজার ৭ শ১০টি, যার মোট মূল্য ২ হাজার ৭শ৩৫ কোটি ১১ লাখ ১৫ হাজার ৬শ৭৮ টাকা। 

ডিজিটাল হাটে পশু বেচাকেনার টাকা থাকবে কেন্দ্রীয় ব্যাংকে ডিজিটাল পশুহাটে গ্রাহকের আর্থিক নিরাপত্তা জোরদারে কেনাবেচার টাকা জমা থাকবে কেন্দ্রীয় ব্যাংকেঅর্থা কোরবানির পশুটি হাতে পাওয়ার পর গ্রাহক অনলাইনে সন্তোষ্টিসূচক মন্তব্য করার পরই কেন্দ্রীয় ব্যাংক টাকা ছাড় করবেএর আগে টাকা পাবে না অনলাইনের ডিজিটাল পশুহাটএ কারণে ডিজিটাল হাটে পশু ক্রয়-বিক্রয়ের নিয়ম ঠিক করে দেয়া হবেএতে পশু বিক্রির কি কি নিয়ম মানতে হবে, কি কি তথ্য থাকতে হবে- তা উল্লেখ করে দেয়া হবেএ ছাড়া গ্রাহককে সময়মতো কোরবানির পশু দিতে না পারলে, সে সব প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার কথা বলা হয়েছেপাশাপাশি জেলা প্রশাসকদের অনুমোদিত বিক্রেতারা তাদের পশু বিক্রি করতে পারবেক্রেতার আর্থিক নিরাপত্তা দিতে বাংলাদেশ ব্যাংকের সহায়তার সাময়িক স্ক্রোসেবা ব্যবহার করা হবেএটার মাধ্যমে যিনি গরুটা কিনবেন, সেই টাকা তাক্ষণিক বিক্রেতা পাবেন নাএটা চলে যাবে বাংলাদেশ ব্যাংকের একটি এ্যাকাউন্টেযখন ক্রেতা কনফার্ম করবেন, গরুটা তিনি পেয়েছেন এবং কোন অভিযোগ নেই, তখনই গরুর বিক্রেতা তার টাকা পাবেনএ প্রসঙ্গে মস্য ও প্রাণিসম্পদমন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম সম্প্রতি জানান, এবারের ঈদ-উল-আজহায় কোরবানির জন্য অনলাইন থেকে কেনা পশু পছন্দ না হলে টাকা ফেরতের ব্যবস্থা চালু করতে যাচ্ছে সরকারএ ছাড়া নগদ টাকার বদলে খামারিরা যাতে স্মার্ট পদ্ধতিতে আর্থিক লেনদেন করতে পারেন, সে জন্য বাংলাদেশ ব্যাংকের সঙ্গে সমন্বয় করে ব্যবস্থা নেয়া হবেএ ছাড়া ঈদ-উল-আজহা উদ্যাপন নিরাপদ করতে সরকারের পক্ষ থেকে সব ধরনের প্রস্তুতি নেয়া হয়েছেহাটগুলোতে হাত ধোয়া ও স্যানিটাইজারের ব্যবস্থা রাখতে হবেপাশাপাশি নির্দিষ্ট দূরত্ব বজায় রেখে হাট পরিচালিত হবে

ঢাকার অস্থায়ী ১৮ হাট প্রস্তুত ঢাকার অস্থায়ী ১৮ পশুর হাট এখন সম্পূর্ণ প্রস্তুতআগামী বুধবার থেকে এসব হাটে কোরবানির পশু বেচাকেনা শুরু হবেএ বছর অস্থায়ী ৮টি হাট বসানোর জন্য দরপত্র আহ্বান করে ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনউত্তর সিটির যে ৮ স্থানে বসবে অস্থায়ী হাট- কাওলা শিয়ালডাঙ্গা, উত্তরা ১৭ নম্বর সেক্টর বৃন্দাবন থেকে উত্তর দিকে বিজিএমইএ এর খালি জায়গা, ভাটারা (সাইদ নগর), বাড্ডা ইস্টার্ন হাউজিং, আফতাবনগর ব্লক-ই থেকে এইচ পর্যন্ত এলাকা, মোহাম্মদপুর বছিলার ৪০ ফুট রাস্তা সংলগ্ন খালি জায়গা, ৪৩ নম্বর ওয়ার্ডের ৩০০ ফুট সড়ক সংলগ্ন খালি জায়গা, মিরপুর সেকশন-৬ এর খালি জায়গা এবং ৪৪ নম্বর ওয়ার্ডের কাঁচপুরা বেপারি পাড়ার রহমান নগর আবাসিক প্রকল্প এলাকায় অস্থায়ী এই ৮টি হাট বসবেএ ছাড়া মহাখালী টিএ্যান্ডটি মোড় খেলার মাঠ এবং তেজগাঁও পলিটেকনিক্যাল মাঠসহ আশপাশের খালি জায়গায় পৃথক দুটি হাট বসানোর জন্য আবেদন জানিয়েছেন কাউন্সিলররাএ প্রসঙ্গে ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের প্রধান সম্পত্তি কর্মকর্তা মাহে আলম জানান, আগামী ৬ জুলাই থেকে হাটগুলোতে পশু বেচাকেনা শুরু হবেএবার ইজারা প্রক্রিয়ায় স্বচ্ছতা নিশ্চিত করা হয়েছে এবং সর্বোচ্চ দরদাতাকেই হাটের ইজারা দেয়া হয়েছেএ বছর ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশন এলাকায় বসবে ১০টি অস্থায়ী হাটদক্ষিণ সিটির যে ১০ স্থানে বসবে অস্থায়ী হাট- খিলগাঁও রেলগেট বাজারের মৈত্রী ক্লাব সংঘ মাঠ, হাজারীবাগ ইনস্টিটিউট অব লেদার টেকনোলজি কলেজ মাঠ, পোস্তাগোলা শ্মশানঘাটসহ আশপাশের খালি জায়গা, মেরাদিয়া বাজার সংলগ্ন আশপাশের খালি জায়গা, লিটল  ফ্রেন্ডস ক্লাব সংলগ্ন খালি জায়গাসহ কমলাপুর স্টেডিয়াম সংলগ্ন এলাকা, যাত্রাবাড়ী দনিয়া কলেজ সংলগ্ন আশপাশের এলাকা, ধোলাইখাল ট্রাক টার্মিনাল সংলগ্ন উন্মুক্ত এলাকা, লালবাগ রহমতগঞ্জ ক্লাব সংলগ্ন আশপাশের খালি জায়গা, শ্যামপুর কদমতলী ট্রাকস্ট্যান্ড সংলগ্ন খালি জায়গা এবং আমুলিয়া মডেল টাউনের আশপাশের খালি জায়গায় এবার ডিএসসিসির নির্ধারিত অস্থায়ী হাটগুলো বসবেএই হাটগুলোর মধ্যে সবগুলোর ইজারা ইতোমধ্যে সম্পন্ন হয়ে গেছেযারা  হাটগুলো ইজারা পেয়েছেন তারা হাটে বাঁশ, সামিয়ানা, হাসিল প্যান্ডেল, গরু রাখার স্থান নির্মাণের কাজ শেষ করে এনেছেন

হাটে স্বাস্থ্যবিধি মানতে হবে করোনার প্রকোপ ফের বেড়ে যাওয়ার কারণে হাটে স্বাস্থ্যবিধি মানার ওপর জোর দেয়া হয়েছেক্রেতা-বিক্রেতারা মাস্ক, স্যানিটাইজার ও প্রয়োজনীয় স্বাস্থ্যবিধি মেনে পশু কেনাবেচা করবেন।  এ ছাড়া কোরবানির পশুর বর্জ্য ২৪ ঘণ্টার মধ্যে অপসারণ এবং কোরবানির স্থান পরিষ্কার করার জন্য সব সিটি কর্পোরেশন এবং সংশ্লিষ্টদের নির্দেশনা দেয়া হয়েছেপাশাপাশি স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ করে কোরবানির পশুর হাট বসানোর নির্দেশ দেয়া হয়েছেএ প্রসঙ্গে স্থানীয় সরকারমন্ত্রী মোঃ তাজুল ইসলাম বলেন, পশুরহাট, বাজার ব্যবস্থাপনা, দ্রুততম সময়ে কোরবানির বর্জ্য অপসারণের জন্য জনপ্রতিনিধিদের সক্রিয় অংশগ্রহণ ও জনসাধারণকে পাশে দাঁড়াতে হবেসড়ক-মহাসড়কের পাশে যেখানে যান চলাচল বিঘ্ন হতে পারে, সেখানে কোনভাবেই পশুর হাট বসানো যাবে নাএ নির্দেশ অমান্যকারীর বিরুদ্ধে মোবাইল কোর্টের মাধ্যমে যথাযথ আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে

চাহিদার তুলনায় গবাদিপশু বেশি আছে, প্রাণিসম্পদ অধিদফতর দাবি চাহিদার তুলনায় এবার দেশে কোরবানিযোগ্য ২৩ লাখ গবাদিপশু বেশি আছে বলে দাবি করেছেন মস্য ও প্রাণিসম্পদমন্ত্রী শ ম রেজাউল করিমপ্রাণিসম্পদ অধিদফতরের হিসাব তুলে ধরে তিনি এ তথ্য জানিয়েছেনমন্ত্রী দাবি করেন, কোরবানিতে দেশে পশু সঙ্কটের কোন আশঙ্কা নেইএ কারণে যারা কোরবানি  দেবেন তাদের আতঙ্কিত হওয়ার কিছু নেইহাটে গিয়ে তারা পছন্দের পশুটি কিনতে পারবেনএর আগে গত ২৩ জুন কোরবানির হাটের বিষয়ে প্রাণিসম্পদ অধিদফতরে আন্তঃমন্ত্রণালয় সভায় কোরবানির পশুর চহিদা, সরবরাহসহ সার্বিক বিষয়ে পর্যালোচনা হয়সেখানে জানানো হয়, এ বছর কোরবানির জন্য গরু, ছাগল, ভেড়া, উট মিলিয়ে এক কোটি ২১ লাখ ২ হাজার ৩৮৯টি পশু প্রস্তুত করা হয়েছেএ ছাড়া গতবারের মতো বেসরকারী উদ্যোক্তার পাশাপাশি সরকারীভাবে অনলাইন হাটের ব্যবস্থা করা হচ্ছেসংস্থাটির মতে, গত বছর কোরবানিযোগ্য পশুর সংখ্যা ছিল এক কোটি ১৯ লাখ ১৬ হাজার ৭৬৫টিএর মধ্যে কোরবানি হয় ৯০ লাখ ৯৩ হাজার ২৪২টি পশুঅর্থা গত কয়েক বছর ধরেই দেশে চাহিদার তুলনায় বেশি গবাদিপশু উপাদন হচ্ছেখামার মালিকরাও দাবি করেছেন দেশীয় পশুতে কোরবানি হবে, সঙ্কট হওয়ার কোন আশঙ্কা নেইআমদানি নিরুসাহিত করার দাবি জানিয়ে বাংলাদেশ ডেইরি ফার্মার্স এ্যাসোসিয়েশনের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে- এটা হলে খামারিরা লোকসানে পড়বেনতবে, গত কয়েক বছর ধরে কোরবানির আগে ঢাকায় শেষ পর্যন্ত গরু ও ছাগল নিয়ে কাড়াকাড়ি হয়ে থাকেক্রেতারা বেশি দাম দিয়েও পছন্দের পশুটি কিনতে পারেন নাএ ধরনের বিস্তর অভিযোগ রয়েছেবিশেষজ্ঞদের মতে, অসাধু সিন্ডিকেট ব্যবসায়ীদের কারণে কোরবানির হাটে বিশৃঙ্খলা হয়ে থাকেকৃত্রিম সঙ্কটরোধে এদের আগে নিয়ন্ত্রণ করা প্রয়োজন

 

 


 

ডিজিটাল বাংলাদেশ পুরস্কার ২০২২
ডিজিটাল বাংলাদেশ পুরস্কার ২০২২