ঢাকা, বাংলাদেশ   বুধবার ০৬ জুলাই ২০২২, ২২ আষাঢ় ১৪২৯

পরীক্ষামূলক

বিদেশ

ইচ্ছাকৃতভাবেই চায়না ইস্টার্ন এয়ারলাইন্সের বিমানটি বিধ্বস্ত করা হয়েছিল

প্রকাশিত: ১৯:৩৪, ১৮ মে ২০২২

ইচ্ছাকৃতভাবেই চায়না ইস্টার্ন এয়ারলাইন্সের বিমানটি বিধ্বস্ত করা হয়েছিল

অনলাইন ডেস্ক ॥ কোন দুর্ঘটনা নয়, বরং ইচ্ছাকৃতভাবেই চায়না ইস্টার্ন এয়ারলাইন্সের বিমানটি মাটিতে ফেলে বিধ্বস্ত করা হয়েছিল, এমনটাই বলছে যুক্তরাষ্ট্রের সংবাদ মাধ্যম। ফ্লাইটের তথ্য সেরকমই ইঙ্গিত দিচ্ছে বলে তদন্তকারীরা তাদের জানিয়েছেন। তারা বলছেন যে বিমানে যান্ত্রিক কিম্বা কারিগরি কোন ত্রুটি খুঁজে পাওয়া যায়নি। যুক্তরাষ্ট্রের কর্মকর্তাদের প্রাথমিক রিপোর্ট উদ্ধৃত করে রিপোর্টে এসব কথা বলা হয়েছে। গত মার্চ মাসে বোয়িং ৭৩৭-৮০০ ফ্লাইটটি চীনের দক্ষিণাঞ্চলীয় শহর কুনমিং থেকে গুয়াংঝু শহরে যাচ্ছিল। এসময় বিমানটি পার্বত্য এলাকায় বিধ্বস্ত হলে ১৩২ জন আরোহী ও ক্রুর সবাই নিহত হয়। প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হয়েছিল যান্ত্রিক ত্রুটির কারণে এই দুর্ঘটনা ঘটেছে। দুর্ঘটনার দু'মাস পর এখন এধরনের চাঞ্চল্যকর খবর পাওয়া যাচ্ছে যাতে বলা হচ্ছে বিমানটি ইচ্ছে করেই নাক বরাবর নামিয়ে আনা হয়েছে। "ককপিটের কেউ একজন বিমানটিকে যা করতে বলেছিল বিমানটি সেটাই করেছে," বলছে ওয়াল স্ট্রিট জার্নাল, তারাই প্রথম এই রিপোর্টটি প্রকাশ করেছে। দুর্ঘটনার কারণ অনুসন্ধানে কাজ করছেন এবং প্রাথমিক রিপোর্ট তৈরির সঙ্গে যুক্ত আছেন এমন একজন কর্মকর্তাকে উদ্ধৃত করে একথা উল্লেখ করা হয়েছে। রিপোর্টে বলা হচ্ছে, দুর্ঘটনা স্থল থেকে যে ফ্লাইট রেকর্ডার বা ব্ল্যাক বক্সটি উদ্ধার করা হয়েছে তাতে দেখা যাচ্ছে বিমানটিকে অনেক খাড়াভাবেই নিচের দিকে নামিয়ে আনা হয়েছিল। মার্কিন কর্মকর্তাদের বরাত দিয়ে এবিসি নিউজ বলছে, ইচ্ছাকৃতভাবেই বিমানটি বিধ্বস্ত করা হয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে। তদন্তকারীদের প্রাথমিক রিপোর্ট সম্পর্কে যাদের অবহিত করা হয়েছে এমন দুজন ব্যক্তিকে উদ্ধৃত করে বার্তা সংস্থা রয়টার্স বলছে তদন্তকারীরা কারিগরি ত্রুটির কোন প্রমাণ খুঁজে পাননি। এর আগে চায়না ইস্টার্ন এয়ারলাইন্সের পক্ষ থেকে বলা হয়েছিল বিমানে তিনজন পাইলট ছিলেন এবং তাদের স্বাস্থ্যগত কোন সমস্যা ছিল না। এয়ারলাইনটি ওয়াল স্ট্রিট জার্নালকে আলাদা করে এও বলেছে যে পাইলটদের মধ্যে কেউ আর্থিক সমস্যায় ভুগছেন এমন ইঙ্গিতও তাদের কাছে ছিল না। যুক্তরাষ্ট্রের মিডিয়া রিপোর্টের ব্যাপারে চায়না ইস্টার্ন এয়ারলাইন্সের মন্তব্য জানতে চেয়েছিল বিবিসি। কিন্তু এখনও পর্যন্ত ওই এয়ারলাইন্সের পক্ষ থেকে কিছু বলা হয়নি। চীনের বেসরকারী বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষও এবিষয়েও কোনো মন্তব্য করেনি। তারাও এই দুর্ঘটনা নিয়ে তদন্ত করছে। তবে গতমাসে চীনা কর্তৃপক্ষের তরফে বলা হয়েছিল বিমানটি ইচ্ছাকৃতভাবে বিধ্বস্ত করা হয়ে থাকতে পারে- এই রিপোর্ট "জনগণকে বিভ্রান্ত করেছে" এবং এর ফলে "দুর্ঘটনার তদন্ত কাজে হস্তক্ষেপের" ঘটনা ঘটেছে। চীনের রাষ্ট্রীয় সংবাদ মাধ্যম গ্লোবাল টাইমসের রিপোর্টে বুধবার বলা হয়েছে যে তদন্তকারীরা এখনও ফ্লাইটের তথ্য এবং বিমানের ধ্বংসাবশেষ বিশ্লেষণ করে দেখছেন। তারা আরো জানিয়েছে যে সিভিল এভিয়েশন কর্তৃপক্ষ "নিয়ম অনুসারে বৈজ্ঞানিক উপায়ে এই দুর্ঘটনার ব্যাপারে তদন্ত অব্যাহত রেখেছে।" ওয়াল স্ট্রিট জার্নালের এই রিপোর্টের ব্যাপারে ওয়াশিংটনে চীনা দূতাবাস, যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় পরিবহন নিরাপত্তা বোর্ড, এবং বিমান প্রস্তুতকারী কোম্পানি বোয়িং- কেউই মন্তব্য করতে রাজি হয়নি। বলা হচ্ছে জাতিসংঘের আন্তর্জাতিক বেসামরিক বিমান চলাচল সংস্থার গাইডলাইন অনুসারেই তারা কোন মন্তব্য করেনি। এর আগে বোয়িং-এর পক্ষ থেকে বলা হয়েছিল যে তারা চীনের তদন্ত কাজে সহায়তা করছে। চীনা এয়ারলাইন্সের খুব কমই দুর্ঘটনা ঘটে থাকে। সবশেষ বড় ধরনের দুর্ঘটনা হয়েছে ১২ বছর আগে। চায়না ইস্টার্ন এয়ারলাইন্সের যে বিমানটি মার্চ মাসে বিধ্বস্ত হয়েছে সেটির বছর ছিল সাত বছরেরও কম। সূত্র : বিবিসি বাংলা

শীর্ষ সংবাদ:

ফের লোডশেডিং যুগ!
তেল-গ্যাস-বিদ্যুতে সাশ্রয়ী হোন ॥ প্রধানমন্ত্রী
বঙ্গবন্ধু কূটনৈতিক উৎকর্ষ পদক
প্রথম দিনেই ট্রেনের সিডিউল বিপর্যয়
চুয়েটে শেখ কামাল বিজনেস ইনকিউবেটরের যাত্রা শুরু আজ
হেনোলাক্সের মালিক সস্ত্রীক গ্রেফতার
ইভ্যালির রাসেল ও শামীমার বিরুদ্ধে চট্টগ্রামে মামলা
ঈদযাত্রায় মোটরসাইকেল নিরাপত্তা নিশ্চিত করে মহাসড়কে চলতে দেওয়ার দাবি
কোরবানির পশুর চামড়ার দাম নির্ধারণ করে দিল সরকার
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ‘ঘ’ ইউনিটের ফল প্রকাশ
গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে ৭ জনের মৃত্যু
সিলেটের বন্যায় ক্ষতিগ্রস্তদের সহযোগিতা করা হবে : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী
ফের করোনা বাড়ছে, সবাই স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলুন
শপথ নিলেন কুমিল্লা সিটির মেয়র রিফাত
জনগণের প্রভু নয়, সেবক হয়ে থাকতে চায় আওয়ামী লীগ ॥ কাদের
সকল বেসরকারী শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ‘র‌্যাগ ডে’ বন্ধের নির্দেশ